ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৩০০ ছাড়িয়েছে

ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৩০০ ছাড়িয়েছে

ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৩০০ ছাড়িয়েছে
ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৩০০ ছাড়িয়েছে

ইরাকে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে চলা সরকারবিরোধী বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৩০০ ছাড়িয়েছে। ইতোমধ্যেই নিহত হয়েছে ৩১৯ জন। আহত হয়েছে কমপক্ষে ১৫ হাজার মানুষ। ১০ নভেম্বর ররিবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির আধাসরকারি মানবাধিকার কমিশন। বিবৃতিতে বলা হয়, গত ১ অক্টোবর থেকে এসব হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। এর আগে বিক্ষোভকারীদের ওপর রাষ্ট্রীয় বাহিনীর হত্যাযজ্ঞের মধ্যেই ইরাক সরকারের পক্ষে অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছে প্রতিবেশী দেশ ইরান।
বিক্ষোভকারীদের ওপর এমন হত্যাযজ্ঞের সমালোচনা করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। ইরাকি কর্তৃপক্ষকে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর লাগাম টেনে ধরার আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি। তবে এক বিবৃতিতে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে হস্তক্ষেপের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে ইরাকের কর্তৃপক্ষ। ইরাকি প্রেসিডেন্টের ওয়েবসাইটে ওই বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে।

গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে কর্মসংস্থানের সংকট, নিম্নমানের সরকারি পরিষেবা এবং দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বাগদাদের রাজপথে নামেন কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী। নির্দিষ্ট কোনও রাজনৈতিক দলের অনুসারী না হয়েও রাষ্ট্রীয় কার্যক্রমে অনিয়মের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের আওয়াজ নিয়ে রাজপথে নামেন আন্দোলনকারীরা। নিরাপত্তা বাহিনী টিয়ার গ্যাস ও গুলি চালিয়ে তাদের ওপর চড়াও হলে এই বিক্ষোভ আরও জোরালো হয়ে ওঠে, ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন শহরে। বিশেষ করে শিয়া অধ্যুষিত দক্ষিণাঞ্চলীয় বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ ব্যাপক আকার ধারণ করে।

গত ২২ অক্টোবর সরকারি তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে আসে, বিক্ষোভকারীদের ওপর সরকারি বাহিনীর মাত্রাতিরিক্ত বল প্রয়োগ ও গুলিবর্ষণের ফলে বিক্ষোভকারীদের প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। একই রকম মত দিয়েছে জাতিসংঘ।

অব্যাহত গণবিক্ষোভের মুখে সম্প্রতি পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে আগাম নির্বাচনের আহ্বান জানিয়েছেন শিয়া নেতা মুকতাদা আল-সদর। এক বিবৃতিতে সরকারকে পদত্যাগ করে আগাম নির্বাচন আয়োজনের আহ্বান তিনি। আন্দোলনকারীদের দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত আইনপ্রণেতাদের পার্লামেন্ট অধিবেশন বয়কটের আহ্বান জানান এ শিয়া নেতা। তবে বিক্ষোভকারীদের ওপর নির্বিচারে হত্যাযজ্ঞের মধ্যেই ইরাক সরকারের পক্ষে অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছে প্রতিবেশী দেশ ইরান।

ইরাকজুড়ে দুর্নীতি ও বেকারত্বের বিরুদ্ধে গণবিক্ষোভকে অস্থিতিশীলতা তৈরির চক্রান্ত হিসেবে আখ্যায়িত করেছে তেহরান। ইরানের স্পিকারের উপদেষ্টা হোসেইন আমির আব্দুল্লাহিয়ান বলেছেন,এই চক্রান্তের পেছনে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্র দেশগুলো। তারা ইরাকি জনগণের কিছু যৌক্তিক দাবিদাওয়ার প্রেক্ষিতে উদ্ভূত পরিস্থিতির অপব্যবহার করছে। এসবের মধ্য দিয়ে তারা ইরাক সরকারের পতন ঘটাতে চায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com