আবার মুখোমুখি সিইসি-মাহবুব

আবার মুখোমুখি সিইসি-মাহবুব

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

আবারও প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ও নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার মুখোমুখি হয়েছেন। নির্বাচন ‘আইসিইউতে’ ও গণতন্ত্র ‘লাইফ সাপোর্টে’ নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের এমন বক্তব্যকে ‘শালীনতা বহির্ভূত’ বলে মন্তব্য করেছেন সিইসি। গতকাল বিকালে ঢাকায় নির্বাচন ভবনে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ প্রতিক্রিয়া দেন সিইসি। তবে সিইসির এই বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নিজেদের মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব না থাকলেও বর্তমান কমিশনের পাঁচ বছর মেয়াদে বিভিন্ন সময়ে নির্বাচন, ভোটারবিমুখতা, সহিংসতা, কর্তৃত্ব নানা বিষয়ে বরাবরই ভিন্নমত দিয়ে এসেছেন মাহবুব তালুকদার। সর্বশেষ রবিবার নির্বাচন এখন ‘আইসিইউতে’ ও গণতন্ত্র ‘লাইফ সাপোর্টে’ বলে ‘আমার কথা’ শীর্ষক লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন তিনি।
এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে সিইসি নূরুল হুদা বলেন, ‘উনি যে কথাগুলো ব্যবহার করেছেন সেগুলো শালীনতা বহির্ভূত। আইসিইউ, লাইফ সাপোর্ট- এ কথাগুলো শালীন মনে করি না।’ তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনে থেকে নির্বাচন নিয়ে কীভাবে সহায়তা করা যায়, সফল করা যায়- এটা ইসি সদস্যদের দায়িত্ব। উনি সব সময় এ ধরনের কথা বলেন, করার কিছু নেই।’ তার মতে, এত ভোটার উপস্থিতির মধ্যেও এ দেশে নির্বাচন নেই, নির্বাচনী পরিবেশ নেই, মানুষ নির্বাচনী সংস্কৃতি থেকে চলে গেছে- এটা প্রতিষ্ঠিত হতে পারে না। প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী ও ইসি সচিব হুমায়ুন কবির খোন্দকার। তবে উপস্থিত ছিলেন না মাহবুব তালুকদার।

মাহবুব তালুকদারের অনুপস্থিতিতে কথা বলতে চাননি সিইসি। তবে পরে নিজে থেকেই প্রসঙ্গটি টেনে এনে বলেন, ‘উনি (মাহবুব তালুকদার) সব সময় এ রকম করে থাকেন। এ নিয়ে আমরা জিজ্ঞাসাও করি না, জানতেও চাই না।’ এর আগেও মাহবুব তালুকদারের বক্তব্যে ক্ষোভ দেখিয়েছেন সিইসি। তখন সিইসি বলেছেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে ‘হেয়, অপদস্থ ও নিচে নামানোর জন্য’ যা করা দরকার, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার সবই করে চলেছেন।

ঘেঁটে ঘেঁটে শব্দ চয়ন করে ছেড়ে দেন : সিইসি জানান, ‘কমিশন সভা বসলে হোমওয়ার্ক করে বসেন, প্রস্তুতি নিয়ে আসেন। সভায় সব সদস্য কন্ট্রিবিউট করেন; প্রতিটি মিটিংয়ে চিন্তাভাবনা করে যান তারা। মাহবুব সাহেব কোনো চিন্তাভাবনা করেন না। উনি ৭/৮ দিন পর্যন্ত একটা শব্দ চয়ন করার জন্য ব্যয় করেন। কোন শব্দটা দিলে আপনারা এ রকম বলবেন, প্রশ্ন করবেন- আইসিইউ, লাইফ সাপোর্ট। এ শব্দগুলো অনেক ঘেঁটে ঘেঁটে তারপরে এভাবে ছেড়ে দেন। এটা পাঁচ বছর ধরে দেখেছি।’ কমিশনার মাহবুব তালুকদারের বারবার এ ধরনের ‘আত্মসমালোচনায়’ কিছুটা ‘বিরক্তি’ প্রকাশ করেন সিইসি। সেই সঙ্গে সাংবিধানিক সংস্থাটির এ সদস্যকে নিয়ে কিছুটা অসহায়ত্বও প্রকাশ পায় সিইসির ভঙ্গিতে। প্রথম থেকে এ ধরনের কথা বলে যাচ্ছেন উল্লেখ করে সিইসি বলেন, ‘উনি ওনার মতো বলেন, আমাদের করার কিছু নেই।’ এক প্রশ্নে তিনি নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্ব নেই বলেও দাবি করেন। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার মাহবুব তালুকদারের বক্তব্য নিয়ে পাল্টাপাল্টি কথা হয়েছে কমিশন সদস্যদের মধ্যে। সিইসিও বলেছেন, ইসিকে হেয় করতে সবই করছেন মাহবুব তালুকদার।

ইসির উৎকণ্ঠা আওয়ামী লীগ জানে : ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে হতাহতের ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের উৎকণ্ঠার বিষয়টি আওয়ামী লীগ জানে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘তাদের (আওয়ামী লীগের) সঙ্গে আলাদা বৈঠক করিনি। কিন্তু আমরা বার্তা দিয়েছি। তারা জানে আমাদের উৎকণ্ঠা আছে। তাদের বলা হয়েছে, যেন বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণে রাখে।’

সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মারামারি হচ্ছে। কিন্তু দায় আসে আপনাদের ওপর। এ নিয়ে আওয়ামী লীগকে কোনো বার্তা দিয়েছেন? জবাবে কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি তদন্তসাপেক্ষ। মন্তব্য করা যাবে না। সহিংস ঘটনা কিন্তু নির্বাচন ছাড়াও ঘটে। পুলিশ তখন ব্যবস্থা নেয়। নির্বাচনের ঘটনাতেও পুলিশ ব্যবস্থা নিচ্ছে।’ এক প্রশ্নে সিইসি নূরুল হুদা বলেন, ‘দলীয় লোকজন বঞ্চিত থাকায় এ রকম হতে পারে। এ নিয়ে আমাদের নিজস্ব বিশ্লেষণ নেই। এটা আমরা করতেও পারি না।’

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে উল্লেখ করে সিইসি বলেন, অস্ত্র ব্যবহারের বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জানিয়েছি। কোনো একটি ঘটনা ঘটলে টিভিতে সেটি বারবার দেখানো হয়। এতে মানুষের ধারণা হয় সব জায়গায় বুঝি এমন ঘটছে। এর আগে লিখিত বক্তব্যে নূরুল হুদা বলেন, নির্বাচন ঘিরে কয়েকটি স্থানে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। কোনোটাই প্রত্যাশিত নয়। বিশ্লেষণে দেখা গেছে, এসবের পেছনে ছিল আধিপত্য বিস্তার, বংশীয় প্রভাব ও ব্যক্তিগত শত্রুতা। সিইসি দাবি করেন, ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে যথাযথ প্রস্তুতি নেয়। ভোট গ্রহণের দিন ও আগে-পরে ভোট কেন্দ্র ও নির্বাচনী এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com