আজমিরীগঞ্জে অবৈধ বালু উত্তোলনে বাজারসহ ১০টি গ্রাম হুমকির মুখে, প্রশাসনের নীরব ভূমিকা!

আজমিরীগঞ্জে অবৈধ বালু উত্তোলনে বাজারসহ ১০টি গ্রাম হুমকির মুখে, প্রশাসনের নীরব ভূমিকা!

স্টাফ রিপোর্টার।। হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে কালনী নদী থেক অবৈধ ভাবে ২ টি ড্রেজার মেশিনের মাধ্যমে বালু উত্তোলনের মহোৎসব চলছে, বালু খেকোরা কে আগে মাটি উত্তোলন করে, মাটি ভরাট করবে তা নিয়ে চলছে প্রতিযোগিতা। ফলে নদীর তীর, আশপাশের এলাকায় ফসলি জমি, বসত ভিটা,বেড়ি বাধ,বাজার ধ্বংসের মুখে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১০/১২ দিন ধরে একদল বালুখেকো চক্র ২ টি ড্রেজার মেশিন দিয়ে কালনী নদী থেকে অবৈধ ভাবে প্রকাশ্য দিবালোকে বালু উত্তোলন করছে। কোন লোক প্রতিবাদ করতে আসে না কারণ তাদের লাঠিয়াল বাহিনী বালু খেকো চক্রের সাথে জড়িত। জানা যায়, ১০/১২ দিন ধরে লঞ্চ ঘাট থেকে নৌটার্মিনাল পর্যন্ত ২টি ড্রেজার মেশিন দিয়ে প্রকাশ্য চলছে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। যার কারনে নদীর তীর ভাঙ্গন,ফসলি জমি বিলীন, বাজার ও বেড়িবাঁধ হুমকির মুখে। প্রতিনিয়ত হাজার হাজার ঘন ফুট বালু উত্তোলন করছে প্রভাবশালীচক্র।এতে করে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বালুখেকোরা নৌকা প্রতি ৪৪০০০ হাজার টাকা করে নিচ্ছে, নিচু জায়গায় মাটি ফেলছে। জায়গায় ১০ টাকা ফুট ধরে বালু বিক্রি করছে কুচক্রী মহল।আজমিরীগঞ্জ পৌরসভার নিকট আদর্শ নগর গ্রামের ডোবা ৮৪ শতক জায়গা ২৫ লক্ষ টাকা কনটেক্টে কালনী নদী থেকে ড্রেজারের মাধ্যমে বালু উত্তোলন করছে।এছাড়াও আজমিরীগঞ্জ লঞ্চ ঘাটের নদীর তীরে বালুর স্তূপ দিতে দেখা যায়, যেখানে টলি যোগাযোগে ১০ টাকা ফুট ধরে বিক্রি করছে বালুখেকো চক্র। এছাড়াও আদর্শ নগরের ডোবা,লঞ্চ ঘাট এলাকায় সরকারি খাস জমি বালু দিয়ে ভরাট করে লক্ষ লক্ষ টাকায় বিক্রি করছে। প্রশাসনের নীরবতা দেখে জনসচেতন মহলে আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে।

এই বিষয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সালেহা সুলতানা সুমির সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি।
আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শফিকুল ইসলাম জানান, আমি পরিদর্শন করে আসছি, দুটো নৌকা দিয়ে বালু আনলোড করছে,যে হউক না কেন এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com