অসহায় সন্তানের মুখে খাবার দিবো বলেই ভিক্ষার হাত আজ আপনাদের দিকে

অসহায় সন্তানের মুখে খাবার দিবো বলেই ভিক্ষার হাত আজ আপনাদের দিকে

অসহায় সন্তানের মুখে খাবার দিবো বলেই ভিক্ষার হাত আজ আপনাদের দিকে
অসহায় সন্তানের মুখে খাবার দিবো বলেই ভিক্ষার হাত আজ আপনাদের দিকে

নুরুল আমিন,চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ): ছোট সন্তান গর্ভে আসার পরই স্ত্রী জেসমিনকে পরিত্যক্ত ঘোষনা করে বাড়ি ছেড়ে চলে যায় স্বামী সজল হক। বিয়ের পরের বছরই প্রতিবন্ধি হয়ে জন্ম নেয় ইয়াসিন।

বিবাহিত জীবনের ৯ বছরের মাঝে জেসমিন ৩ সন্তানের মা হয়ে যান। ইয়াসিনের প্রতিবন্ধিতা নিয়ে সজল হক স্ত্রীর সাথে ঝগড়া মাত্রা বাড়িয়ে দেয় এক সময়। প্রতিবন্ধি ইয়াসিনের জন্ম নেয়টাকে সে স্ত্রীর উপর চাপিয়ে দেয়। এক সময় বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যায় সজল।

বেচারী জেসমিন প্রতিবন্ধি ইয়াসিন (৮) জিহান (৪) এবং দেড় বছরের নিশু কন্যাকে নিয়ে পড়ে যান বিপাকে। প্রথমে এ বাড়ি ও বাড়ি গিয়ে ঝি এর কাজ করে ৩ সন্তানের বরন পোষন চালান।

এখন আর চলেনা তাই প্রতিবন্ধি ইয়াসিনকে বাজারে তোলতে বাধ্য হয়েছেন। সেই হতভাগীর বাড়ি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার জালালাবাদ গ্রামে। আনোয়ার নামের এক ঘটক তাকে ১৩ বছর বয়সে বিয়ে দেয় চুনারুঘাট উপজেলার গেড়ারুক গ্রামের আঃ হকের পুত্র সজল হকের সাথে।

বিয়ের প্রথম বছরই ওই কিশোরী মা বনে যান। জন্ম নেয় শারিরিক প্রতিবন্ধি ইয়াসিন। একে একে জন্ম নেয় জিহাদ ও নিশু। গায়ে-গতরে জেসমিন যে বেশ সুন্দরী ছিলো তা বুঝা যায় এখনো তবে দারিদ্রের ছাপ- গায়ে-মুখে। শরীরে ঘামাছি উঠেছে। স্বাস্থ্যেও ঘটেছে অবনতি। কাপড়-চোপড় ময়লা-দুর্গন্ধময়।

জেসমিনের সাথে সেদিন কথা হয় স্থানীয় আমুরোড বাজারে। প্রতিবন্ধি ইয়াসিনকে মাটিতে শুয়ে রেখেছেন। ফুটফুটে জিহান মা’য়ের পাশেই ঘুরাঘুরি করছে। আর নিশু মায়ের কোলে দিব্য আরাম করে ঘুমাচ্ছে। জেসমিন বলেন, উপায় না দেখে বাজারে হাত পাততে বাধ্য হয়েছি। অসহায় সন্তানের মুখে কয়েক মুঠো খাবার দিবো বলেই ভিক্ষার হাত আজ আপনাদের কাছে।

তিনি বলেন,স্থানীয় ময়-মুরব্বী,চেয়ারম্যান-মেম্বারদের কাছে নালিশ করে কোন বিচার না পেয়ে শেষ পর্যন্ত ভিক্ষার হাত বাড়াই। যা পাই তা দিয়ে ৩ সন্তানের মুৃখে আহার দিচ্ছি।

আপনি কি রোজা রেখেছেন ? এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, আল্লাহ’র ফরজ রোজা না রাখলে গুনা হবে তাই রোজা রেখেছি। সেহরী কি দিয়ে খেয়েছেন ? ভাত,আলুর ভর্তা। পাশের একটি খাবারের দোকান দেখিয়ে বললেন, তিনি আজ ইফতার করাবেন। হতভাগি জেসমিনের সন্তানের ভবিষ্যৎ অন্ধকার। অবহেলা আর অনাদরে বেড়ে উঠছে ওই সন্তান ৩ জন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com