অবিশ্বাস্য এক প্রত্যাবর্তনের গল্প

অবিশ্বাস্য এক প্রত্যাবর্তনের গল্প

http://lokaloy24.com/

লিটন কুমার দাস যখন সংবাদ সম্মেলনে বললেন, এখনো অবস্থান বিচার করার সময় আসেনি! কেউ কি বিশ্বাস করেছিলেন তার কথা! ক্রিকেটপাগল দর্শক, ক্রিকেট বিশ্লেষক কিংবা সাবেক কোনো ক্রিকেটার? কিভাবেই বা লিটনের কথায় আস্থা রাখা যায়! কেন না বিনা উইকেটে যে ১৪৫ রান করে দিন শেষ করেছে পাকিস্তান। বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস ৩৩০ রানে শেষ করলেও পাকিস্তানের দুই ওপেনার আবিদ আলি ও আবদুল্লাহ শফিক যে দৃঢ়তা দেখালেন, তাতে লিটনের কথাটা অর্থহীন মনে হওয়াই তো স্বাভাবিক। তাই নয় কি?

অবশ্য ক্রিকেটের পাড় ভক্তরা, অর্থাৎ যারা দুনিয়ার সব ক্রিকেটের খবর না নিলে যাদের খাবার হজম হয় না তাদের বিষয়টা কিঞ্চিত আলাদা। কেন না চট্টগ্রাম থেকে ১ হাজার ৭০০ কিলোমিটার দূরে কানপুরে ভারতের অবিশ্বাস্য প্রত্যাবর্তনের গল্পটা তারা জেনে গিয়েছিলেন। কারণ, আগের দিন বিনা উইকেটে ১২৯ রান করা নিউজিল্যান্ড পরের দিন সকালের সেশনেই ধসে পড়েছিল। কিউইরা বিনা উইকেটে ১৫১ রান করার পরও ২৯৬ রানে অলআউট। নিউজিল্যান্ড কোথায় লিড নেবে, সেখানে উল্টো ভারতই ৪৯ রানে এগিয়ে যায় প্রথম ইনিংসে।

চট্টগ্রাম টেস্টের একদিন আগে শুরু হওয়া কানপুর টেস্টের চিত্রনাট্যটা যেন একদিন পরে চট্টগ্রামে প্রায় হুবহু মঞ্চস্থ হয়ে যাচ্ছে। দুই টেস্টের সঙ্গে কী দারুণ মিল। আগের দিন ভারত যেভাবে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে অবিশ্বাস্যভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ঠিক একইভাবে কাল ম্যাচে দারুণভাবে প্রত্যাবর্তন করেছে বাংলাদেশও। বিনা উইকেটে ১৪৬ রান করা পাকিস্তানকে টাইগার বোলাররা গুঁড়িয়ে দিলেন ২৮৬।

 

কানপুরে ভারতের প্রত্যাবর্তনের নায়ক ঘূর্ণি জাদুকর অক্ষর প্যাটেল। যিনি একাই ৫ উইকেট নিয়ে কিউইদের ধসিয়ে দিয়েছেন। আর বাংলাদেশের অবিশ্বাস্য প্রত্যাবর্তনের মহানায়ক অবশ্যই স্পিনার তাইজুল ইসলাম। এই ঘূর্ণি মাস্টার ৭ উইকেট নিয়ে পাকিস্তানকে রীতিমতো উড়িয়ে দিলেন।

কী দুর্দান্ত এক সকাল। দিনের প্রথম ওভারেই পাকিস্তানের দুর্গে জোড়া আঘাত হানেন তাইজুল। ওভারের পঞ্চম বলে আউট করেন আগের দিনের হাফ সেঞ্চুরিয়ান আবদুল্লাহ শফিককে। পরের বলেই ফাঁদে ফেলেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক আজহার আলীকে। তাকে রানের খাতাই খুলতে দিলেন না তাইজুল।

পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম কোনো রকমে ডাবল ফিগারে পৌঁছাতে পেরেছেন। তিনি ৪৬ বল থেকে ১০ রান করে আরেক স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজের শিকারে পরিণত হয়েছেন। এরপর একপ্রান্তে একের পর এক উইকেট পতন হতে থাকে। তবে আরেকপ্রান্তে পাকিস্তানকে নির্ভরতা দিচ্ছিলেন আবিদ আলি। সেঞ্চুরিও করে ফেলেন। শেষ পর্যন্ত তাকেও বিদায় করে দিলেন তাইজুল। এর আগেই ১৩৩ রান করেছেন তিনি। তবে নাজমুল হোসেন শান্ত স্লিপে ক্যাচ মিস না করলে ১১৩ রানেই শেষ হয়ে যেত আবিদের ইনিংস।

নিচের দিকের ব্যাটসম্যানরা আর টিকতেই পারলেন না বাংলাদেশের স্পিনারদের সামনে। তবে সাত নম্বরে ব্যাট করতে নামা ফাহিম আশরাফ বাইশগজে থীতু হলেন বটে কিন্তু ৩৮ রানের বেশি করতে পারেননি। তিনিও কাটা পড়লেন তাইজুলের ঘূর্ণিতেই।

গতকাল বাংলাদেশের প্রথম সেশনটা ছিল দুর্দান্ত। ৩১ ওভারে ৫৮ রান যোগ করতেই সেরা চার ব্যাটসম্যানকে হারিয়েছে পাকিস্তান। প্রথম সেশনে আউট হয়েছেন আব্দুল্লাহ শফিক, আজহার আলি, বাবর আজম ও ফাওয়াদ আলম। তবে দিনটা আরও সুন্দর হতে পারত, যদি শেষ বিকালে বাংলাদেশের ইনিংসের চার চারটি উইকেট না পরত!

মজার বিষয় হচ্ছে, আগের দিন কানপুরে যা হচ্ছে পরের চট্টগ্রামে যেন তাই ঘটছে। বাংলাদেশও প্রথম ইনিংসে লিড পেয়ে যায় ৪৪ রানের। ঠিক দ্বিতীয় ইনিংসে যেভাবে ভারতের টপঅর্ডার ব্যাটসম্যানরা টপাটপ ড্রেসিংরুমের পথ ধরলো বাংলাদেশেরও অবস্থাও তাই। ৫১ রানে ৫ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর মিডল অর্ডার ও লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় নিউজিল্যান্ডকে ২৮৪ রানের টার্গেট দিয়েছে ভারত। এখন বাংলাদেশের পরের ব্যাটসম্যানরা কি পারবেন  ৩৯/৪ -এই বিভীষিকাময় স্কোর থেকে দলকে বড় সংগ্রহ এনে দিতে?

সব মিলে এখন বাংলাদেশের লিড ৮৩! উইকেটে যেভাবে বল টার্ন করছে আড়াইশ প্লাস লিড হলেই জমে উঠবে লড়াই। এখন দেখার বিষয়, কানপুর টেস্টের চতুর্থ দিনের পান্ডুলিপিটা আজ কতটা নিখুঁতভাবে টাইগাররা চট্টগ্রামে মঞ্চস্থ করতে পারেন!

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com