সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
অদৃশ্যে বিশ্বাস এবং বাস্তবতা

অদৃশ্যে বিশ্বাস এবং বাস্তবতা

লোকালয় ডেস্কঃমৌলিক যে বিষয়গুলোর প্রতি ঈমান আনার মাধ্যমে আমি আপনি মুসলমান হিসেবে স্বীকৃত হই, তা সবই কিন্তু অদৃশ্য বা গায়েব। কুরআন মাজিদে মুত্তাকিদের বৈশিষ্ট্যের মধ্যে প্রথমটিতেই বলা হয়েছেÑ ‘তারা অদৃশ্য বা গায়েবের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে।’ (আল বাকারা : ৩) আল্লাহ, ফিরিশতা, পরকাল ইত্যাদি সবই তো না দেখে বিশ্বাস করতে হয়। এখন প্রশ্ন হলো, যা দেখা যায় না সেসব বিষয়ের প্রতি ঈমান আনা বা বিশ্বাস স্থাপন করা কি বিজ্ঞানসম্মত বা যুক্তিযুক্ত? একবিংশ শতাব্দীর এই প্রযুক্তির যুগে এমন কথা কি অবৈজ্ঞানিক মনে হবে?
আসলে বিশ্বাস বা ঈমানের প্রশ্ন না দেখা বিষয়ের সাথেই সম্পর্কিত। কোনো জিনিস দেখার পর তা বিশ্বাস না করার কোনো সুযোগ নেই। সেটা করলে বরং মানুষ আপনাকে পাগল বলবে। বিশ্বাস সেই জিনিসের প্রতিই করতে হয় যেটি আমি দেখিনি বা আমি জানি না। উদাহরণ হিসেবে আমরা বলতে পারি, ঢাকা শহরে বায়তুল মোকাররম নামে একটি মসজিদ আছে এমন কথাটি যিনি ঢাকা কখনো আসেননি অথবা মসজিদটি কখনো দেখেননি তাকে বলা যায়। এখন তিনি বিশ্বাস করতে পারেন অথবা নাও পারেন। কিন্তু আপনি যদি বায়তুল মোকাররম মসজিদটি দেখার পর বলেন যে, আমি বিশ্বাস করি এর কোনো মূল্য নেই অথবা যদি বলেন আমি বিশ্বাস করি না, তাহলে তাকে পাগল ছাড়া আর কী বলা যাবে!
তেমনি পৃথিবীর বহুদেশে পাতাল পথে বা মাটির নিচে রেলপথ আছে এবং এসব রেলপথে প্রতিদিন লাখো মানুষ চলাচল করে। না দেখা পর্যন্ত বলা যায় যে, আমি বিশ্বাস করি বা করি না। কিন্তু কাউকে লন্ডন টিউব রেলওয়েতে ভ্রমণ করিয়ে আনার পর যদি সে বলে, হ্যাঁ এখন আমি বিশ্বাস করলাম। তার এই বিশ্বাসের যেমন কোনো মূল্য নেই; তেমনি সে যদি বলে আমার বিশ্বাস হয় না, তাহলে তাকে মূর্খ বা জাহেল ছাড়া আর কী বলা যাবে?
আপনার শরীরে প্রবহমান রক্তে গ্লুকোজ বা চিনির মাত্রা বেড়ে গেছে বলে আপনার ডাক্তার বললেন। তিনি আপনাকে পরামর্শ দিলেন, আপনাকে নিয়মিত দুই মাইল হাটতে হবে; খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনতে হবে ইত্যাদি। আপনি কিন্তু আপনার রক্তের মধ্যে কোনো চিনি দেখেননি, এটি পরীক্ষার মাধ্যমে একজন বিশেষজ্ঞই শুধু দেখতে পান। এখন হয় আপনাকে ওই পর্যায়ের বিশেষজ্ঞ হতে হবে, না হয় এ বিষয়ে একজন বিশেষজ্ঞের কথার প্রতি ঈমান বা বিশ্বাস স্থাপন করে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। কোনো ব্যক্তি যদি গোঁ ধরে যে, রক্তে চিনি না দেখা পর্যন্ত আমি বিশ্বাস করব না; এমন ব্যক্তির দুর্ভোগ অন্যরা কিভাবে ঠেকাতে পারে?
মৌলিক বিষয়গুলোর প্রতি ঈমান আনার বিষয়টিও ঠিক সেরকম। নবী রাসূলরা বিশ্ব জাহানের মালিক কর্তৃক নির্বাচিত হন এবং প্রত্যাদেশ বা অহির মাধ্যমে এসব বিষয়গুলো মানুষকে জানিয়ে দেন। যেসব মানুষ তাদের স্বাভাবিক বিচার বুদ্ধি প্রয়োগ করে পৃথিবীর সৃষ্টি কৌশল, দিন রাতের আবর্তনের প্রতি লক্ষ্য করে, সে সহজেই নবী রাসূলদের দেয়া খবরের প্রতি ঈমান আনার সৌভাগ্য অর্জন করতে পারে। আর যারা এসব বিষয় প্রত্যক্ষভাবে দেখে ঈমান আনতে চায়, তাদের দুর্ভাগ্য স্বয়ং নবী রাসূলরাও ঠেকাতে পারেননি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com