সংবাদ শিরোনাম :
আসামে নাগরিকত্ব সংকট দেখা দিয়েছে : নজর রাখছে বাংলাদেশ

আসামে নাগরিকত্ব সংকট দেখা দিয়েছে : নজর রাখছে বাংলাদেশ

লোকালয় ডেস্ক : আসামে নাগরিকত্ব নিয়ে বর্তমানে যে সংকট দেখা দিয়েছে, তার ওপর নজর রাখছে বাংলাদেশ। এনআরসির প্রথম খসড়ায় বাদ পড়েছে ২০ লাখের মতো মুসলমান। তাদের অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসী মনে করে ফেরত পাঠাতে চায় আসাম রাজ্য সরকার।

যদিও বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশকে এখনো জানানো হয়নি। তবে শেষ পর্যন্ত যদি বিষয়টি সে পর্যায়ে গড়ায়, কীভাবে সামাল দেবে, সে বিষয়েও প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। আসামে নাগরিকদের ভোটার তালিকা তথা রাজ্যের জাতীয় নাগরিক নিবন্ধনের (এনআরসি) প্রথম খসড়া গত রবিবার মধ্যরাতে প্রকাশ হয়।

৩ কোটি ২৯ লাখ আবেদনকারীর মধ্যে তালিকায় নাম উঠেছে ১ কোটি ৯০ লাখের। বাদ পড়েছে ১ কোটি ৩৯ লাখ আবেদনকারী। এর মধ্যে ২০ লাখের মতো মুসলিম রয়েছেন। আসাম রাজ্য সরকার এ ২০ লাখ মুসলমানকে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া নাগরিক মনে করে। তাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে চায় রাজ্য সরকার।

বর্তমানে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে বিতাড়িত প্রায় ১০ লাখ শরণার্থী বাংলাদেশে অবস্থান করছে। মানবিক কারণে বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিলেও এর কারণে নানা সমস্যার সম্মুখীন বাংলাদেশ। এত বিশাল জনগোষ্ঠীর কারণে পরিবেশগত বিপর্যয়ের শঙ্কা, নানাবিধ অপরাধ ও দুর্নীতির ঝুঁকি, মাদকের বিস্তারের মতো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে। এ ছাড়া রোহিঙ্গাদের জন্য নির্ধারিত স্থানে তাদের রাখা, ত্রাণ ব্যবস্থাপনা ও জীবনধারণে সহায়তা, নিরাপত্তা নিবন্ধন ও অভিযোগ নিরসনের মতো জটিলতাও মোকাবিলা করতে হচ্ছে। এখন আসামের নাগরিকত্ব প্রশ্ন বাংলাদেশদেশকে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত করে তুলেছে। আসামের রাজ্য সরকার সেখানে অবস্থানরত কথিত বাংলাদেশিদের ফেরত পাঠাতে চায়। যদিও বিষয়টি আনুষ্ঠানকিভাবে বাংলাদেশকে জানানো হয়নি। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, আসাম রাজ্য সরকার ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের পর যাওয়া মানুষদের বের করে দেওয়ার কথা বলছে। বাংলাদেশের নীতি হচ্ছে, বিদেশে অবৈধভাবে বসবাসরত বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনা। প্রত্যাবাসনের যে আন্তর্জাতিক নিয়ম, তাতে বিষয়টি আগে সংশ্লিষ্ট দেশকে জানাতে হবে। তবে আসামের রাজ্য সরকার অবৈধ বাংলাদেশিদের ফেরত দেওয়ার কথা বলছে, সে বিষয়ে এখন পর্যন্ত ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়নি। যদি জানায়, তা হলে তালিকা হস্তান্তর করা হবে। এর পর নাগরিকত্ব যাচাই করা হবে। তার পর প্রত্যাবাসান শুরু হবে। বাংলাদেশ বিষয়টি অবগত এবং মোকাবিলায় প্রস্তুত। ১৯৫১ সালের পর রাজ্যে পরিচালিত প্রথম শুমারির ওপর ভিত্তি করে নাগরিকদের খসড়া তালিকাটি তৈরি করেছে আসাম সরকার। ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চের আগে থেকেই পরিবারসহ ভারতে বসবাস করতÑ এটা যারা প্রমাণ করতে পেরেছে, তাদেরই কেবল নাগরিক হিসেবে বৈধতা দেওয়া হয়েছে। বলা হচ্ছে, তালিকায় নাম না থাকা বাসিন্দারা অবৈধ অভিবাসী হিসেবে গণ্য হবে। এর পর দেশ ছাড়তে হবে তাদের। গত তিন বছরে এ নিবন্ধনকে ঘিরে ভারতের সুপ্রিমকোর্টে ৪০টি শুনানি হয়েছে। ৩৮ লাখ আবেদনকারীর দাখিল করা দলিলপত্র সন্দেহজনক বলে কর্মকর্তারা আদালতের শুনানিতে জানিয়েছেন। রাজ্যের বিজেপি নেতা অভিজিত শর্মা দাবি করেছেন, ২০০৬ সালের ভোটার তালিকায় ৪১ লাখ বাংলাদেশির নাম রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com