সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
৯০ বছর বয়সী আমিরের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়াতে পারবে হেফাজত?

৯০ বছর বয়সী আমিরের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়াতে পারবে হেফাজত?

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক:মাত্র ১১ মাসের ব্যবধানে তিন শীর্ষ নেতাকে হারিয়েছে দেশের কওমি মাদরাসাভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। সবশেষ গত বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) দুপুরে মারা যান হেফাজতের আমির ও চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসার শাইখুল হাদিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। তবে এ শোক সংবাদের অর্ধদিন না পেরোতেই বাবুনগরীর স্থলাভিষিক্ত হিসেবে নতুন আমির হিসেবে মুহিবুল্লাহ বাবুনগরীর নাম ঘোষণা করা হয়।

বৃহস্প‌তিবার (১৯ আগস্ট) রাত ১১টার দি‌কে হাটহাজারী মাদরাসায় সদ‌্য প্রয়াত আমির জুনা‌য়েদ বাবুনগরীর জানাজায় আমির প‌দে তার নাম ঘোষণা ক‌রেন হেফাজত মহাসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদী। আগামী কাউন্সিল পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্ব পালন করবেন।

কে এই মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী?

ভারপ্রাপ্ত আমিরের দায়িত্ব পাওয়া মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী সদ্য প্রয়াত জুনাইদ বাবুনগরীর মামা হন। জুনাইদ বাবুনগরীর নেতৃত্বাধীন কমিটিতে তিনি হেফাজতের প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন। এছাড়া আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বাধীন হেফাজতের কমিটিতেও তিনি ছিলেন সিনিয়র নায়েবে আমির।

মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীর বয়স প্রায় ৯০ বছর। তিনি চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া আজিজুল উলুম বাবুনগরের মহাপরিচালকের দায়িত্বে আছেন। চট্টগ্রামের বাইরে তার তেমন প্রভাব না থাকলেও হাটহাজারী মাদরাসা বলয়ের আস্থাভাজন হওয়ায় তিনি ভারপ্রাপ্ত আমিরের দায়িত্ব পেয়েছেন।

মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী এর আগেও বিভিন্ন সময় আলোচিত হন। তিনি মুফতি ফজলুল হক আমিনীর নেতৃত্বাধীন ইসলামী ঐক্যজোটের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। তবে ইসলামী ঐক্যজোট বিএনপি জোট থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর তিনি পদত্যাগ করেন। এছাড়া মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর জানাজার নামাজে ইমামতি করেও তিনি আলোচনায় আসেন।

মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী হেফাজতে ইসলামের তৃতীয় আমির। প্রতিষ্ঠাতা আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ইন্তেকালের কয়েক মাস আগে থেকে শফীপন্থীদের সঙ্গে জুনাইদ বাবুনগরীপন্থীদের বিরোধ বাড়তে থাকে। তখন মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী আল্লামা শফীর বিরোধী বলয়ে নেতৃত্ব দেন। আল্লামা শফীর পরে তিনিই আমির হবেন এমন গুঞ্জন থাকলেও শেষ পর্যন্ত তার ভাগিনা জুনাইদ বাবুনগরী আমির নির্বাচিত হন। আর তাকে করা হয় প্রধান উপদেষ্টা। গত মার্চে নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে চাপে পড়া হেফাজত এক পর্যায়ে কমিটি বিলুপ্ত করতে বাধ্য হয়। পরে পাঁচ সদস্যের যে আহ্বায়ক কমিটি করা হয় সেখানেও মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ছিলেন।

কতটা ঘুরে দাঁড়াতে পারবে হেফাজত?

নতুন এই কান্ডারির নেতৃত্বে নানামুখী চাপে পড়ে অস্তিত্ব হারাতে বসা হেফাজতে ইসলাম কতটা ঘুরে দাঁড়াতে পারবে সেটা নিয়ে এখন সংগঠনটির নেতাকর্মীদের মধ্যে নানা আলোচনা ও বিশ্লেষণ চলছে। মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী হেফাজতের মাঝে একজন গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি ঠিক আছে, কিন্তু তার বয়স প্রায় ৯০ বছর। তিনি থাকেন চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির সেই প্রত্যন্ত অঞ্চলে। তিনি সংগঠনকে খুব বেশি কিছু দিতে পারবেন কি-না সেটা নিয়ে সন্দেহের অবকাশ রয়েছে।

হেফাজতে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয় ২০১০ সালে। সেই সময় নারী নীতিমালার বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসা থেকে সংগঠনটির যাত্রা। তবে সংগঠনটি জাতীয় পর্যায়ে পরিচিতি লাভ করে ২০১৩ সালে। শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চ থেকে ইসলাম সম্পর্কে কটূক্তি হচ্ছে এমন অভিযোগ তুলে ওই বছরের ৬ এপ্রিল সংগঠনটি ঢাকা অভিমুখে লংমার্চ করে। তাদের এই শোডাউন ব্যাপক নজর কাড়ে বিভিন্ন মহলের। তবে এর ঠিক এক মাস পর ৫ মে ঢাকা ঘেরাও কর্মসূচিতে শাপলা চত্বরে অবস্থানকালে মধ্যরাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাঁড়াশি অভিযানে পালাতে বাধ্য হন হেফাজতের নেতাকর্মীরা। এরপর সংগঠনটি অনেকটা চুপসে যায়।

হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা আমির ছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। তার ব্যক্তিত্বের কারণে সারাদেশের মানুষ তাকে সমীহ করতো। পরবর্তী সময়ে সরকারের সঙ্গেও দেশের শীর্ষ এই আলেমের সুসম্পর্ক গড়ে উঠে। তার নেতৃত্বেই কওমি মাদ্রাসা দাওরায়ে হাদিসের সনদের সরকারি স্বীকৃতি পায়। এমনকি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শোকরিয়া মাহফিলে প্রধানমন্ত্রীকে ‘কওমি জননী’ উপাধিও দেন আলেম-উলামারা। মূলত আল্লামা শফীর ইন্তেকালের পর হেফাজতে রাজনৈতিক আলেমদের নিয়ন্ত্রণ চলে আসায় সংগঠনটি সরকারবিরোধী অবস্থানে চলে যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com