৭৯ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকিতে টেলিটককে চিঠি

৭৯ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকিতে টেলিটককে চিঠি

৭৯ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকিতে টেলিটককে চিঠি
৭৯ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকিতে টেলিটককে চিঠি

লোকালয় ডেস্ক : টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের থ্রিজি স্পেকট্রাম সেবায় প্রযোজ্য ৭৯ কোটি ২৫ লাখ ৭৫ হাজার টাকা মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট/মূসক) আদায়ে চূড়ান্ত দাবিনামা জারি করে নোটিস দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিআইউ)।

গত ৩ মার্চ টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর চুড়ান্ত দাবিনামা দিয়ে নোটিস প্রদান করা হয়। ভ্যাট এলটিইউ থেকে পাঠানো চিঠিতে উৎসে মূসক কর্তন ও জমাদানে ব্যর্থতার জন্য সেবা সরবরাহকারী (বিটিআরসি) ও গ্রহণকারী (টেলিটক) উভয়কেই দায়ী করা হয়েছে। অনাদায়ে প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংক হিসাব জব্দসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে।

মূলক টেলিটক ২০১৪-১৫ অর্থবছরে লাইসেন্স ফি, লাইসেন্স অ্যাকুইজিশন ফি ও রেভিনিউ শেয়ারিং ফি বা থ্রিজি  স্পেকট্রাম অ্যাসাইনমেন্ট ফি’র ওপর প্রযোজ্য মূসক পরিশোধ করেনি। আর সেবা গ্রহণ করেছে বিটিআরসির কাছ থেকে।

এনবিআরের ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘দাবিকৃত মোট ভ্যাটের পরিমাণ ৭৯ কোটি ২৫ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। এই টাকা পরিশোধ করতে এনবিআরের ভ্যাট এলটিইউ প্রথমে চুড়ান্ত দাবিনামা জারি করে। এরপর টাকা পরিশোধের জন্য দুইবার টেলিটক বরাবর নোটিসও জারি করে। কিন্তু টেলিটক এনবিআরের এসব দাবি এবং নোটিসে কোন কর্ণপাত করছে না। আশা করছি তাদের বোধোদয় হবে।’

টেলিটককে দেওয়া চিঠিতে আরো বলা হয়েছে, ভ্যাট কর্তন ও জমাদানে ব্যর্থতার জন্য পণ্য/সেবা সরবরাহকারী ও গ্রহণকারী উভয়ই সমানভাবে দায়ী হবেন। এ অবস্থায় থ্রিজি স্পেকট্রাম সেবার বিপরীতে প্রযোজ্য মূসক বাবদ ৭৯ কোটি ২৫ লাখ ৭৫ হাজার টাকা অনতিবিলম্বে সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়ার জন্য বলা হলো।

এদিকে একই দাবিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান বরাবরও চুড়ান্ত চিঠি দিয়েছে এনবিআর। চিঠিতে বলা হয়েছে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের কাছে থ্রিজি স্পেকট্রাম অ্যাসাইনমেন্ট ফি বাবদ জুন পর্যন্ত সময়ে ১ হাজার ৫৮৫ কোটি ১৫ লাখ  টাকা বিটিআরসির বকেয়া রয়েছে। যেখানে ধার্যকৃত অর্থের উপর ১৫ শতাংশ হারে মূসকবাবদ প্রায় ৭৯ কোটি ২৫ লাখ ৭৫ হাজার টাকা।  এ বিষয়ে ২০১৭ সালের ২৮ মে শুনানি করে দাবিনামা চূড়ান্ত করা হয়। এ সরকারি রাজস্ব না কেটে ও আদায় না করেই টেলিটককে সেবা দিয়েছে বিটিআরসি। এ অবস্থায় টাকা আদায় ও পরিশোধে বিটিআরসির কাছে ৭ দফা ও চুড়ান্ত দাবিনামা জরি করার পর দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও প্রতিষ্ঠান কর্তৃক উক্ত টাকা পরিশোধ করা হয়নি। সম্প্রতি সরকারের কাছে এ রাজস্ব পরিশোধের জন্য তাগিদপত্র দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে এটাকেই  চুড়ান্ত নোটিস হিসাবে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাহাব উদ্দিনের সঙ্গে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com