সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
৬ কেজি গাঁজা, ১৭ বোতল অফিসার চয়েস, ২৩ বোতল মদসহ আটক ১ চুনারুঘাট সীমান্ত দিয়ে আসছে মাদক ॥ ধরা পড়ছে না গডফাদাররা

৬ কেজি গাঁজা, ১৭ বোতল অফিসার চয়েস, ২৩ বোতল মদসহ আটক ১ চুনারুঘাট সীমান্ত দিয়ে আসছে মাদক ॥ ধরা পড়ছে না গডফাদাররা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাট উপজেলার তরুণ ও যুবসমাজকে মাদকে গ্রাস করে ফেলেছে। সীমান্তের ওপার থেকে আসা ফেনসিডিল, গাঁজা এবং ভারতে তৈরি এক ধরনের ইয়াবা মাইক্রোবাস, সিএনজি ও কোনো কোনো ক্ষেত্রে দামি গাড়িতে করে পাচার হচ্ছে। সম্প্রতি মাদকের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরু হয়েছে। এতেও থেমে নেই মাদক পাচার। পুলিশের অভিযানে এখনও বড় কোনো মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার হয়নি। চুনোপুঁটিরাই গ্রেফতার হচ্ছে।
গত ১৪ অক্টোবর চুনারুঘাট থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৬ কেজি গাঁজা, ১৭ বোতল অফিসার চয়েস, ২৩ বোতল নাইট রাইডার্স মদসহ এক ব্যবসায়ী আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলির নির্দেশনায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে ওই দিন গভীর রাতে থানা পুলিশ বিশেষ অভিযান ২নং আহম্মদাবাদ ইউপির আমু চা বাগানের ডাক্তার বাংলোর সামনের রাস্তা থেকে খাস চিমটিবিলের গণেশ মালের পুত্র বিষু মাল (২৭) কে আটক করা হয়।
জানা যায়, চুনারুঘাট উপজেলার প্রায় ৭৪ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকা রয়েছে। এ সীমান্তের মধ্যে কালেঙ্গা থেকে বাল্লা হয়ে সাতছড়ি পর্যন্ত কিছুটা ছাড়া পুরোটাই পাহাড়ি সীমান্ত এলাকা হওয়ায় দিনে ও রাতে অবাধে মাদক পাচার হয়ে আসছে। সীমান্তের ওপারে ত্রিপুরা রাজ্যের ৫টি জেলার পাহাড়ি অঞ্চলের বাসিন্দারা গত কয়েক বছর ধরে বিপুল পরিমাণ গাঁজা বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদ করছে। এসব গাঁজার ৮০ ভাগই বাংলাদেশে পাচার হয়ে আছে। পাশাপাশি সীমান্ত ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ফেনসিডিল কারখানা। এসব কারখানায় তৈরি ফেনসিডিল মূলত বাংলাদেশে পাচার হয়ে আসছে। সাতছড়ি, গুইবিল, চিমটি, কালেঙ্গা, রেমা ও বাল্লা সীমান্ত দিয়ে কয়েক কোটি টাকার গাঁজা ও ফেনসিডিল পাচার হয়ে বাংলাদেশে এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কালেঙ্গা থেকে বাল্লা-গুইবিল-চিমটিবিল-সাতছড়ি পাহাড়ি এলাকার সীমান্তের পরিমাণ প্রায় ৭৪ কিলোমিটার। অথচ ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বিজিবির ৪টি ক্যাম্প রয়েছে। তাদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে প্রতিদিন কমপক্ষে দুই থেকে আড়াই লাখ টাকার গাঁজা ফেনসিডিল পাচার হয়ে বাংলাদেশে আসছে। এসব গাঁজা ফেনসিডিল পাহাড়ি ও ঘনবসতি গ্রামের মধ্য দিয়ে সবার চোখের আড়ালে সিএনজি কিংবা মাইক্রোবাসে পাচার হয়ে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। বিশেষ করে পাহাড়ি এলাকা সাতছড়ি, চাকলাপুঞ্জি, চণ্ডিছড়া, আমু ও নালুয়া চা বাগানের বিভিন্ন পথে গাঁজা ফেনসিডিল পাচার হয়ে আসছে সবচেয়ে বেশি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com