৬৩ বছরের বাঁধন হারিয়ে অনবরত কাঁদছেন রওশন

৬৩ বছরের বাঁধন হারিয়ে অনবরত কাঁদছেন রওশন

৬৩ বছরের বাঁধন হারিয়ে অনবরত কাঁদছেন রওশন
৬৩ বছরের বাঁধন হারিয়ে অনবরত কাঁদছেন রওশন

প্রায় ৬৩ বছরের সংসার জীবন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও বিরোধী দলীয় উপনেতা রওশন এরশাদের। কতোশত মান-অভিমান, হাসি-কান্নায় ভরপুর জীবন। এরপরও দু’জন দু’জনার। এক ছাদের নিচে থাকা হয়নি অনেকদিন। কিন্তু কখনোই আলগা হয়নি এ দম্পতির বাঁধন।

রাজনৈতিক জীবনের সহযোদ্ধা প্রিয় স্বামীকে হারিয়ে কাঁদছেন বিরোধী দলীয় উপনেতা রওশন এরশাদ। এরশাদের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে তার প্রায় ৬৩ বছরের সংসার জীবন ইতি ঘটলো।

জীবনের শেষ দিনগুলোতেও বারবার ছুটেছেন স্বামীর দূয়ারে। কখনো শয্যাশায়ী স্বামীর পাশে ধর্মগ্রন্থ পড়েছেন, কখনো স্বামীর জীবন ভিক্ষা চেয়েছেন আল্লাহর কাছে।

রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন রোববার (১৪ জুলাই) সকাল পৌনে ৮টার দিকে তিনি মারা যান। তার বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর।

সকালে ভালবাসার মানুষটি চলে যাওয়া সংবাদ পেয়ে স্থির থাকতে পারেননি। একমাত্র সন্তান রাহগীর আল মাহে সাদ এরশাদকে সঙ্গে নিয়েই ছুটলেন নিজেদের আলাদা করতে। কিন্তু স্বামীর পাশে যেতেই স্ত্রী কান্নায় ভেঙে পড়লেন। অধিক শোকে যেন পাথর হয়ে গেছেন। বন্ধ রেখেছেন নিজের মোবাইল ফোন। ৬৩ বছরের অম্ল-মধুর সম্পর্কের ইতি টেনে শূন্য হৃদয় নিয়ে গুলশানের বাড়িতে এখন স্তব্ধ-নির্বাক রওশন এরশাদ, অনবরত কাঁদছেন তিনি।

১৯৫৬ সালে ময়মনসিংহের সম্ভ্রান্ত পরিবারের মেয়ে রওশনকে বিয়ে করেন এরশাদ। চাকরির কারণে বিয়ের পরপরই সংসার করা হয়ে ওঠেনি। ওই সময় রওশন নিজের পড়াশোনার জন্য ময়মনসিংহে থেকেছেন। স্ত্রীর জন্য আকুল হৃদয়ে সেই সময় নিয়মিতই ‘ডেইজি’ সম্বোধন করে তাকে চিঠি লিখতেন এরশাদ।

দু’জনের সম্পর্ক ছিল মধুর। এরশাদের জীবন বাঁক নিলেও নিজের স্বামী অন্তঃপ্রাণ মানসিকতার প্রমাণ দিয়েছেন রওশন। অনেকদিন আলাদা বসবাস করলেও নিয়মিত কথাবার্তা হতো দম্পতির। এরশাদের দুঃসময়েই পাশে ছিলেন। ফাটল থেকে রক্ষা করেছেন জাতীয় পার্টিকে।

যেভাবে রংপুরের বাসিন্দা হন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বাবা মকবুল হোসেন ছিলেন ভারতের কোচবিহারের বাসিন্দা। তিনি ছিলেন সেখানকার দিনহাটা আদালতের আইনজীবী।

কিন্তু রাজনৈতিক কারণে মকবুল হোসেনকে কোচবিহার থেকে বহিষ্কার করে তৎকালীন প্রশাসন। পরে সপরিবারে রংপুর চলে আসেন। এরপর আর ফিরে যাননি জন্মভূমিতে।

বসবাসের এক পর্যায়ে রংপুর আদালতে আইন ব্যবসা শুরু করেন মকবুল। হয়ে যান এখানকার স্থায়ী বাসিন্দা। ‘স্বৈরাচার’ তকমা পাওয়া হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জীবনীগ্রন্থ ‘আমার কর্ম আমার জীবন’ এ এমন তথ্যই পাওয়া গেছে।

এরশাদ লিখেছেন, রাজনীতির কারণে ‘শাস্তি’ দিয়ে কোচবিহার ছাড়ার জন্য ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেন কোচবিহারের তৎকালীন প্রধান কমিশনার। কোচবিহার ছিলো মহারাজা জগদ্দীপেন্দ্র নারায়ণ ভূপবাহাদুর শাসিত করদ মিত্ররাজ্য।

ভারতবর্ষের স্বাধীনতার পর ১৯৪৯ সালে মহারাজা ও ভারত সরকারের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির মাধ্যমে কোচবিহারের শাসন ব্যবস্থা একজন প্রধান কমিশনারের হাতে ন্যস্ত করা হয়। প্রধান কমিশনার নিযুক্ত হন ভিআই নান্নাজাপ্পা। ১৯৫০ সালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের একটি জেলা হয় কোচবিহার।

স্থানীয় হিন্দু-মুসলিম জোতদারদের সমন্বয়ে গঠিত কোচবিহার স্টেট কাউন্সিলের সভায় ভারতীয় ইউনিয়নে যোগদানের বিষয়ে মতবিরোধ তৈরি হয়।

বিতর্কিত দ্বি-জাতি তত্ত্বের কারণে বিভাজিত ভারতবর্ষের প্রভাব পড়ে সেখানেও। কাউন্সিলের প্রায় সব সদস্য পাকিস্তানের সঙ্গে একীভূত হওয়ার পক্ষে অবস্থান নিলেও একজন হিন্দু সদস্য বিরোধিতা করেন। মহারাজা জগদ্দীপেন্দ্র নারায়ণ ভূপবাহাদুর ভারতীয় ইউনিয়নে যোগদানের পক্ষে অবস্থান নেন।

ওই সময়ে স্টেট কাউন্সিলের সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত ‘হিতসাধনা সভা’ কোচবিহারের প্রতিটি থানায় সভা-সমিতির মাধ্যমে ভারতবিরোধী প্রচারণা চালাতে থাকে।

মুসলিম সদস্যরা পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। এমন পরিস্থিতে আরও কয়েকজনের সঙ্গে এরশাদের বাবা আইনজীবী মকবুল হোসেনকেও কোচবিহার থেকে বহিষ্কার করা হয়।

মকবুল হোসেন তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে চলে আসেন রংপুরে। অপর বহিষ্কৃতরা পরে কোচবিহারে ফিরলেও মকবুল হোসেন তার ছেলে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে নিয়ে থেকে যান রংপুরেই।

১৯৫০ সালে ক্রয় সূত্রে ঠিকানা হয় রংপুর মহানগরীর নিউ সেনপাড়ার বর্তমান (স্কাইভিউ) বাড়িতে। অবশ্য এর কয়েক বছর আগে ১৯৪৬ সালে উচ্চ মাধ্যমিকে অধ্যয়নের জন্য রংপুরে এসেছিলেন এরশাদ, থাকতেন কারমাইকেল কলেজের জিএল হোস্টেলে। আরও আগে থেকে তার বড় বোন নাহার ও ভগ্নিপতি সিরাজুল হক রংপুরে থাকতেন বলে নিজের বইয়ে উল্লেখ করেছেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com