৫ হাজার টাকার লেহেঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ২০ হাজারে!

৫ হাজার টাকার লেহেঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ২০ হাজারে!

৫ হাজার টাকার লেহেঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ২০ হাজারে!
৫ হাজার টাকার লেহেঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ২০ হাজারে!

চট্রগ্রাম- চট্টগ্রাম নগরের বিত্তশালীদের মার্কেট হিসেবে পরিচিত মিমি সুপার মার্কেটে ঈদ বাজারে তিনগুণ দাম রাখার দায়ে লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছিল শুক্রবার। কিন্তু শনিবার জেলা প্রশাসনের আরেক অভিযানে জানা গেল মধ্যবিত্তের মার্কেট হিসেবে পরিচিত চিটাগং শপিং কমপ্লেক্সেও এ ক্ষেত্রে কম যায় না। বরং এক কাঠি বেশি!

এমার্কেটে দেড় হাজার টাকায় কেনা থ্রি-পিছের মূল্য হাঁকা হচ্ছে ৬ হাজার টাকা। ৫ হাজার টাকার লেহেঙ্গা বিক্রি করা হচ্ছে ২০ হাজারে। শুধু তাই নয়- ২ থেকে ৫ হাজার টাকায় আমদানি করা ভারতীয় শাড়িতে চাওয়া হচ্ছে তিন থেকে চার গুণ বাড়তি দাম।

ঈদকে কেন্দ্র করে নগরের চিটাগং শপিং কমপ্লেক্সে কাপড়ের এমন গলাকাটা দাম আদায়ের চিত্র উঠে এসেছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে।

শনিবার (২৫ মে) বিকালে নগরীর ষোলশহর দুই নম্বর গেইট এলাকায় ‘চিটাগং শপিং কমপ্লেক্সে’ ভ্রাম্যমাণ আদালতের এই অভিযান চালানো হয়েছে। এতে নেতৃত্ব দেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের কাট্টলী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) তৌহিদুল ইসলাম ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী হাসান।

তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযান শুরুর আগে আমাদের বাজার মনিটরিং টিমের সদস্যদের ক্রেতার বেশে বিভিন্ন দোকানে পাঠিয়ে পোশাকের দাম যাচাই করানো হয়। তারা দোকানগুলোতে মূল্যতালিকা এবং পণ্যের গায়েও কোনো দাম লেখা দেখতে না পেয়ে আমাদের কাছে রিপোর্ট করে। এরপর আমরা ২০টি দোকানে অভিযান চালায়। এর মধ্যে ১৫টিতে অনিয়ম ও কারসাজি পাওয়া গেছে।’

যেসব দোকানে অনিয়ম পাওয়া গেছে সেগুলো হল- ইয়ং লেডি, নাদিয়া, সমাগম, শাহনাজ স্টোর, লেটেস্ট ফ্যাশন, কিডস কর্নার, ফেমাস বুটিক, বাসন্তী, প্রিটি লুকস, চিটাগাং বুটিকস, আলম ফেব্রিক্স, চাঁদোয়া, লাজুক ফেব্রিক্স, ফিরোজা শাড়ি এম্পোরিয়াম এবং রায়হান’স ফ্যাশন।

তৌহিদুল জানান, এসব দোকানে ভারত থেকে আমদানি করা শাড়ি-লেহেঙ্গা-থ্রি পিছ, বাচ্চাদের পোশাক বিক্রি হচ্ছে। আমদানি ও কেনার নথিপত্র যাচাই করে দেখা যায়, পোশাকের গায়ে কোড আকারে যে দাম লেখা হয়েছে, এর সঙ্গে নথিপত্রের দামের পার্থক্য প্রায় তিনগুণ।

ড্রেস এর কাগজপত্রের মূল্যের সঙ্গে দোকান মালিকরা কোড আকারে পণ্যের গায়ে ও রেজিস্টারে যে মূল্য লিখে রাখছেন সেটা অযৌক্তিক ও মাত্রাতিরিক্ত। অধিকাংশ কাপড় জাতীয় পণ্যই আমদানি মূল্যের চাইতে অধিক মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। ১৫টি দোকানের একটিতেও পোশাকের গায়ে মূল্য লেখা নেই। দোকানে মূল্যতালিকাও নেই।

অনিয়মের দায়ে চিটাগাং শপিং কমপ্লেক্সর দোকান মালিক সমিতি সভাপতি সহিদুল আলমকে ১ লাখ টাকা জরিমানা দেওয়ার আদেশ দেওয়া হয়। এছাড়া ২৪ ঘন্টার মধ্যে সকল দোকানে মূল্যতালিকা টাঙানো এবং পোশাকের গায়ে দাম লেখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com