সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
২০৩০ সালের মধ্যে বন বিনাশের অবসান, চুক্তি সই আজ

২০৩০ সালের মধ্যে বন বিনাশের অবসান, চুক্তি সই আজ

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব থেকে বিশ্বকে বাঁচাতে ২০৩০ সালের মধ্যে বন বিনাশের অবসান ঘটিয়ে নতুন করে বনভূমি তৈরির লক্ষ্য ঘোষণা করতে যাচ্ছেন গ্লাসগোতে সমবেত হওয়া শতাধিক রাষ্ট্রনেতা।

আজ মঙ্গলবার এ বিষয়ে একটি চুক্তি স্বাক্ষর হবে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। এই চুক্তিটিই হতে যাচ্ছে এবারের জলবায়ু সম্মেলন কপ২৬ এর প্রথম কোনো বড় সমঝোতা। বন রক্ষার জন্য ১৯ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারের তহবিল যোগানোর প্রতিশ্রুতিও থাকছে এই চুক্তিতে।

যেসব দেশ বন রক্ষার এই অঙ্গীকারে স্বাক্ষর করতে যাচ্ছে, তাদের মধ্যে ব্রাজিলও রয়েছে। যদিও দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশ আমাজন অরণ্যের গাছ কেটে এরইমধ্যে একটি বিশাল এলাকার বনভূমি ধ্বংস করে ফেলেছে। বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, সব মিলিয়ে বিশ্বের ৮৫ শতাংশ বনভূমি রয়েছে ব্রাজিলে।

এদিকে, গ্লাসগো জলবায়ু সম্মেলনে বিশ্বনেতাদের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে ২০১৪ সালে করা এরকম আরেকটি চুক্তির কথা মনে করিয়ে দিয়ে তারা বলেছেন, ওই চুক্তির পরও বন রক্ষায় তেমন কোনো সাফল্য আসেনি। তাই তারা বলছেন, শুধু প্রতিশ্রুতি দিলেই হবে না, তা বাস্তবায়ন করতে হবে।

প্রতিবেদনে বিবিসি আরও জানিয়েছে, বনভূমি রক্ষার অঙ্গীকার জানিয়ে যে চুক্তি আজ মঙ্গলবার হতে যাচ্ছে, ব্রাজিলের পাশাপাশি কানাডা, রাশিয়া ও ইন্দোনেশিয়াও স্বাক্ষর করবে তাতে।

এ চুক্তির আওতায় যে তহবিল গঠন হবে, তার একটি অংশ উন্নয়নশীল দেশগুলোকে দেওয়া হবে ভূমিক্ষয় রোধ, দাবানল নিয়ন্ত্রণ এবং আদিবাসী সম্প্রদায়গুলোর সহযোগিতার জন্য।

পাম তেল, সয়া এবং কোকোয়ার মত কৃষি পণ্য উৎপাদনের জন্য বিভিন্ন দেশে যে বন ধ্বংস করা হয়েছে, তারও অবসান ঘটানোর অঙ্গীকার করতে যাচ্ছে এসব পণ্যের আন্তর্জাতিক ব্যবসায় থাকা ২৮ দেশের সরকার। আর বৃক্ষ নিধন হয়, এমন কোনো কাজে বিনিয়োগ বন্ধ করা হবে, এমন প্রতিশ্রুতি দিতে যাচ্ছে ৩০টির বেশি বড় কোম্পানি।

এছাড়াও কঙ্গো অববাহিকায় বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ রেইন ফরেস্ট রক্ষায় ১ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলারের আরেকটি তহবিল গড়ার ঘোষণা আসবে মঙ্গলবারের চুক্তির সঙ্গে।

কপ২৬ এর আয়োজক যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের ভাষায়, পৃথিবীর ‘ফুসফুস’ যে বনভূমি, তা পুনরুদ্ধারের চেষ্টায় এই চুক্তি হবে একটি মাইলফলক।

বর্তমানে প্রতি মিনিটে ২৭টি ফুটবল মাঠের সমান বনভূমি কাটা পড়ছে পৃথিবীর মানুষের হাতে। আর গাছ কাটার মাধ্যমেও বায়ুমণ্ডলে যোগ হচ্ছে বাড়তি কার্বন ডাই অক্সাইড।  উষ্ণতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেরু অঞ্চলে গলছে বরফ, বাড়ছে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা। বন্যা, খরা, ঘূর্ণিঝড়ের মতো প্রকৃতিক দুর্যোগ আরও ঘন ঘন এবং আরও বেশি রুদ্ররোষ নিয়ে আঘাত হানছে, ডেকে আনছে ধ্বংস।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, বিপর্যয় এড়াতে হলে বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধির গতি কমিয়ে আনতে হবে। নিশ্চিত করতে হবে, যেন ২১০০ সাল পর্যন্ত সময়ে বৈশ্বিক উষ্ণতা প্রাক শিল্পায়ন যুগের চেয়ে ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি না বাড়ে।

২০১৫ সালে ঐতিহাসিক প্যারিস চুক্তিতে রাষ্ট্রনেতারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তাপমাত্রা বৃদ্ধি ওই পর্যায়ে আটকে রাখতে যা করা দরকার, তা তারা করবেন। কিন্তু সেজন্য সম্মিলিতভাবে কার্বন গ্যাস নির্গমণের পরিমাণ কমিয়ে আনতে হবে। আর এ কারণেই এবারের বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনকে অনেকে দেখছেন বিশ্বকে বাঁচানোর ‘শেষ সুযোগ’ হিসেবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com