১৪ শহিদের রক্তে লাল হয়েছিল বগুড়ার বাবুরপুকুর পাড়

১৪ শহিদের রক্তে লাল হয়েছিল বগুড়ার বাবুরপুকুর পাড়

১৪ শহিদের রক্তে লাল হয়েছিল বগুড়ার বাবুরপুকুর পাড়
১৪ শহিদের রক্তে লাল হয়েছিল বগুড়ার বাবুরপুকুর পাড়

লোকালয় ডেস্কঃ আজ বাবুরপুকুর দিবস। ১৯৭১ সালের ১১ নভেম্বর রাতের আঁধারে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বাড়ি বাড়ি গিয়ে ১৪ জনকে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যায় শাজাহানপুর উপজেলার বাবুরপুকুর নামক স্থানে। সেখানে তাদের গুলি করে হত্যা করে হানাদার বাহিনী।

সেই ১৪ জন শহিদের স্মৃতি রক্ষার্থে নির্মাণ করা হয়েছে একটি স্মৃতিসৌধ। সেই স্মৃতিসৌধে শহিদদের স্মরণ করবে শহিদ পরিবারের সদস্য ও বগুড়ার সাংস্কৃতিক কর্মীরা।

জানা যায়, ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে বগুড়া শহরের ঠনঠনিয়া এলাকার কিছু তরুণ ও যুবককে সংগঠিত করেন মুক্তিযোদ্ধা সাইফুল ও তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় নেতা মান্নান পশারী। তাদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতায় মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি চলতে থাকে।

এদিকে মে মাসেই ওই একই এলাকায় গঠন করা হয় শান্তি কমিটি। মুক্তিযুদ্ধের শেষ পর্যায় ১৯৭১ সালের নভেম্বর মাস, অনেকে যুদ্ধের মাঠ থেকে বাড়ি এসেছেন স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে। ১১ নভেম্বর আর রমজানের ২১ তারিখ শেষ রাতে সবাই যখন সেহরি খাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল সেই সময় শান্তি কমিটির সহযোগিতায় হানাদার বাহিনী হানা দেয় ঠনঠনিয়ার শাহ পাড়া, মন্ডলপাড়া, তেঁতুলতলা, হাজীপাড়া ও পশারীপাড়াসহ কয়েকটি এলাকায়।

হানাদার বাহিনী এসব এলাকার বাড়ি থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে আনে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় নেতা মান্নান পশারী ও তার ভাই হান্নান পশারী, ন্যাপ কর্মী ওয়াজেদুর রহমান টুকু, জালাল মন্ডল ও তার ভাই মন্টু মন্ডল, আব্দুস সবুর ওরফে ভোলা মন্ডল, মুক্তিযোদ্ধা সাইফুল ইসলাম, আলতাফ আলী, বাদশা শেখ, বাচ্চু শেখ, ফজলুল হক খান, টিঅ্যান্ডটির অপারেটর নূর জাহান, আবুল হোসেন ও তার পিতা গেদু জিলাদার, ছোটভাই আশরাফ আলী, জনাব আলী ও তার ছেলে জাহাঙ্গীর খন্দকার, সিবের আলীসহ অজ্ঞাতনামা আরও তিন জনকে।

হানাদার বাহিনী ২১ জনকে বাড়ি থেকে বের করেই হাত ও চোখ বেঁধে গাড়িতে তুলে নেয়। শত কাকুতি-মিনতি কিছুই থামাতে পারেনি হানাদারদের। গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের পাশে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার বাবুরপুকুরে। সঙ্গে ছিল শান্তি কমিটির নেতা। সেই নেতাই আটকৃকতদের মধ্য থেকে ১৪ জনকে শনাক্ত করে দেয়। তার শনাক্ত করা টিঅ্যান্ডটির নারী অপারেটর নূর জাহানসহ ১৪ জনকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে ব্রাশ ফায়ার করা হয়। বাকি সাত জনকে ছেড়ে দেয় হানাদাররা।

সেই দিন যারা পাক বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পেয়েছিল তারা হলেন শহিদ আবুলের পিতা গেদু জিলাদার ও ছোট ভাই আশরাফ আলী, জনাব আলী ও তার ছেলে জাহাঙ্গীর খন্দকার, সাবের আলী এবং অজ্ঞাত দুই জন। সেখানে হত্যাযজ্ঞের পর লাশ সারিবদ্ধভাবে সেখানে ফেলে রাখা হয়। প্রাণে বেঁচে আসা সাত জনের কাছে খবর পেয়ে তাদের আত্মীয়-স্বজনরা বাবুরপুকুরে ছুটে যায় লাশের সন্ধানে। কিন্তু সেখান থেকে লাশ আর আনতে পারেনি। সেখানেই কবর দেওয়া হয় ১৪ শহিদের।

এই গণকবরস্থলে কোনো সমাধি ছিল না। পরে ১৯৭৯ সালে বগুড়া প্রেসক্লাবের উদ্যোগে সেখানকার কবরগুলো পাকা করে দেওয়া হয়। ২০০৯ সালের মাঝামাঝিতে সেখানে স্মৃতিসৌধ স্থাপন করার কাজ শুরু হয়। বগুড়া জেলা পরিষদ এই প্রকল্পের অর্থায়ন করে।

বেদনা বিধুর এই দিনটিকে স্মরণ করতে শহিদ পরিবারের সদস্য এবং বগুড়ার সাংস্কৃতিক কর্মীরা সেখানে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

রবিবার অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে পরিবারের পক্ষ থেকে শহিদদের আত্মার শান্তি কামনা করা। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট বগুড়া ও গ্রাম থিয়েটারের আয়োজনে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হবে বলে জানান জোটের সভাপতি তৌফিক হাসান ময়না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com