হিসাব আর ব্যবস্থাপনা নিয়েই যাঁদের কাজ

হিসাব আর ব্যবস্থাপনা নিয়েই যাঁদের কাজ

ব্যবস্থাপনা আর হিসাব শাখায় দক্ষ পেশাজীবী তৈরির লক্ষ্যে কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টস পড়াচ্ছে দ্য ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ l

চাকরিবাকরি প্রতিবেদকপ্রতিনিয়তই বাড়ছে ব্যবসা-বাণিজ্য। বাড়ছে নতুন নতুন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানে ব্যবস্থাপনা থেকে শুরু করে প্রতিষ্ঠানের আর্থিক হিসাব-নিকাশ পর্যন্ত নানা ধরনের কাজ করার জন্য প্রয়োজন হয় দক্ষ ও অভিজ্ঞ হিসাবরক্ষক বা ব্যবস্থাপকের। এখন শুধু প্রাতিষ্ঠানিক সনদ থাকলেই ভালো চাকরি হয় না। এর সঙ্গে দরকার পেশাগত কিছু সনদ। এমনই এক ডিগ্রি হচ্ছে সিএমএ ডিগ্রি। সিএমএ হচ্ছে কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টসের সংক্ষিপ্ত রূপ। ব্যবস্থাপনা আর হিসাব শাখায় দক্ষ পেশাজীবী তৈরির লক্ষ্যে কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টস (সিএমএ) পড়াচ্ছে দ্য ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএমএবি)। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন পত্রিকায় সিএমএ ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। ভর্তি কার্যক্রম হবে অনলাইনে। আবেদনকারীদের www.icmaberp.org এই ঠিকানায় গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ফরম পূরণ করতে হবে। এরই মধ্যে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে। কোচিং প্রোগ্রামের প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ পর্যন্ত। আর করেসপন্ডেন্স প্রোগ্রামের প্রার্থীরা আগামী ২৯ মার্চ ২০১৮ তারিখ পর্যন্ত আবেদনের সুযোগ পাবেন। তাই এই কোর্সটি করে আপনিও হয়ে যেতে পারেন দেশে বা বিদেশের ভালো কোনো প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার বা চিফ ফিন্যান্সিয়াল অফিসার।

প্রতিষ্ঠানটিতে বছরে দুটি সেশনে ছাত্রছাত্রী ভর্তি করানো হয়। জানুয়ারি থেকে জুন এবং জুলাই থেকে ডিসেম্বর। এখন জানুয়ারি থেকে জুন সেশনের ভর্তি কার্যক্রম চলছে। এই সেশনে দুটি পদ্ধতিতে ছাত্রছাত্রী ভর্তি হতে পারবে। ইন্টারমিডিয়েট এন্ট্রি রুট ও গ্র্যাজুয়েট এন্ট্রি রুট পদ্ধতিতে। ইন্টারমিডিয়েট এন্ট্রি রুট পদ্ধতিতে ভর্তি হতে হলে এসএসসি ও এইচএসসি মিলিয়ে কমপক্ষে জিপিএ ৮ পেতে হবে। আর গ্র্যাজুয়েট এন্ট্রি রুট পদ্ধতিতে ভর্তি হতে যেকোনো বিভাগ থেকে ন্যূনতম স্নাতক পাস হতে হবে। এসএসসি থেকে স্নাতক পর্যন্ত পরীক্ষার ফল লাগবে কমপক্ষে ৬ পয়েন্ট।

আইসিএমএবির উপপরিচালক (শিক্ষা) আব্দুল মালেক বলেন, ‘এই সিএমএ কোর্সটি দুটি পদ্ধতিতে করানো হয়। একটি কোচিং পদ্ধতি এবং অন্যটি করেসপন্ডেন্স পদ্ধতি। যাঁরা কোচিং পদ্ধতিতে ভর্তি হবেন, তাঁদের নিয়মিত ক্লাস ও ক্লাস টেস্ট দিতে হবে। আর করেসপন্ডেন্স র্কোসের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের নিয়মিত ক্লাস করতে হয় না। শুধু অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিলেই হয়। তাই যাঁরা চাকরিরত আছেন, তাঁদের জন্য এই করেসপন্ডেন্স পদ্ধতিটি খুব সহজ হয়।’ শিক্ষার্থীদের ছয় মাসে একটি লেভেল শেষ করতে হবে। এ কোর্সটিতে ইন্টারমিডিয়েট এন্ট্রি রুট ছাত্রছাত্রীদের পাঁচটি লেভেল ও গ্র্যাজুয়েট এন্ট্রি রুট ছাত্রছাত্রীদের চারটি লেভেল সম্পন্ন করতে হবে। প্রতিটি লেভেলের স্থিতিকাল ছয় মাস। এই লেভেলগুলোর মধ্যে রয়েছে নলেজ লেভেল, বিজনেস লেভেল, অপারেশনাল লেভেল, ম্যানেজমেন্ট লেভেল ও স্ট্র্যাটেজিক লেভেল।

ইন্টারমিডিয়েট এন্ট্রি রুট পদ্ধতির ছাত্রছাত্রীদের নলেজ লেভেলের জন্য ভর্তি ফি দিতে হবে ২৫ হাজার টাকা, আর গ্র্যাজুয়েট এন্ট্রি রুট ছাত্রছাত্রীদের ক্ষেত্রে বিজনেস লেভেলের জন্য ২৯ হাজার ৫০০ টাকা ফি দিতে হবে। পরবর্তী সময়ে অপারেশনাল লেভেল, ম্যানেজমেন্ট লেভেল ও স্ট্র্যাটেজিক লেভেলের জন্য ফি লাগবে যথাক্রমে ১০ হাজার, ১৪ হাজার ও ১৮ হাজার টাকা।

সিএমএ ডিগ্রি নিতে হলে ইন্টারমিডিয়েট এন্ট্রি রুট ছাত্রছাত্রীদের মোট পড়তে হয় ২০টি বিষয়। অন্যদিকে গ্র্যাজুয়েট এন্ট্রি রুট পদ্ধতির ছাত্রছাত্রীদের পড়তে হবে ১৭টি বিষয়। আর এসব বিষয়গুলো পড়িয়ে থাকেন আইসিএমএবি থেকে পাস করা সদস্য ও দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা।

আব্দুল মালেক জানান, বতর্মান চাকরির বাজারে একজন সিএমএ ডিগ্রিধারীর অনেক চাহিদা রয়েছে। তাই এই ডিগ্রি সম্পন্ন করে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, বিমা, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন এনজিও, মোবাইল ফোন কোম্পানি, মাল্টি ন্যাশনাল প্রতিষ্ঠান, এমনকি বিদেশেও চাকরির ভালো সুযোগ রয়েছে।

আইসিএমএবির ঢাকা ব্রাঞ্চ কাউন্সিলের সাবেক চেয়ারম্যান ও সিলভার লাইন গ্রুপের চিফ ফিন্যান্সিয়াল অফিসার অ্যান্ড হেড অব এইচআর এস এম জহির উদ্দিন হায়দার এফসিএমএ বলেন, আইসিএমএবি থেকে পাস করে পেশাগত হিসাববিজ্ঞানী হিসেবে এখানকার সদস্যরা বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, এনবিএফআই এবং বহুজাতিক কোম্পানিতে দেশে ও বিদেশে সাফল্যের সঙ্গে কাজ করছেন। কিছুসংখ্যক সদস্য বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার সঙ্গেও জড়িত আছেন। পেশাগত সনদ প্রদানের কারণে এখানকার পরীক্ষার ক্ষেত্রে বিশেষ মান বজায় রাখা হয়। এখান থেকে পাস করে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করে প্রতিষ্ঠানের অর্থ, হিসাব এবং কস্ট, ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টিং ফিল্ডে বিশেষ অবদান রেখে চলেছেন সদস্যরা। প্রতিষ্ঠানের আর্থিক শৃঙ্খলা বজায় রাখায় কর্তৃপক্ষকে সঠিক পথ নির্দেশনা দেওয়ার ক্ষেত্রে সিএমএরা অনন্য ভূমিকা রেখে থাকেন। এ ছাড়া ন্যূনতম ব্যয়ে পণ্যের উৎপাদন করে একে বাজারে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা পালনে সিএমএদের বিশেষ পারদর্শিতা রয়েছে।

পণ্যের উৎপাদন ব্যয় নিরূপণ, মূল্য নির্ধারণ, টেন্ডার মূল্য নিরূপণ, বিশেষ মূল্য ছাড়ের বিবেচ্য বিষয় ইত্যাদি বিষয়ে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারেন সিএমএ পেশাজীবীরা।

একজন সদ্য পাস করা সিএমএ ক্যারিয়ারের শুরুতে যদি ন্যূনতম সুযোগ পান তবে অতি অল্প সময়ের মধ্যেই প্রতিষ্ঠানের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মানবসম্পদে পরিণত হতে পারেন।

বিস্তারিত জানতে: যাঁরা কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টিং পড়ে পেশা শুরু করতে চান, তাঁরা ভর্তি ও অন্যান্য তথ্য জানতে যোগাযোগ করতে পারেন আইসিএমএবির ঢাকাসহ দেশের অন্য শাখাগুলোতে। সারা দেশে এদের মোট পাঁচটি শাখা রয়েছে।

ঢাকা কেন্দ্র: শিক্ষা বিভাগ, আইসিএমএবি ভবন, নীলক্ষেত, ঢাকা। ফোন: ৯৬১৫৪৬০, ৯৬১১৭৯৯। মোবাইল: ০১৯২২১০৬৭৪৩।

চট্টগ্রাম শাখা: ফোন: ০৩১-৭২৭৬৩৮। মোবাইল: ০১৮১৩০৫৯৮৮১।

খুলনা শাখা: ফোন: ০৪১-৭২২৩৩৫। মোবাইল: ০১৯১৯৮০১০২১।

রাজশাহী কেন্দ্র: ফোন: ০৭২১-৭৫১০৯২। মোবাইল: ০১৯৭৮২৭৪৩২৪।

কুমিল্লা কেন্দ্র: ফোন: ০৮১-৭৩৬৮৬। মোবাইল: ০১৭১৫০২৬৫৪৪।

এ ছাড়া ভিজিট করতে পারেন www.icmab.org.bd এই ঠিকানায়।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com