হাসপাতাল ভিজিটের নামে প্রতারক খোকনের টাকা আত্মসাত : রিমাণ্ড আবেদন

হাসপাতাল ভিজিটের নামে প্রতারক খোকনের টাকা আত্মসাত : রিমাণ্ড আবেদন

প্রতারক রিজেন্ট সাহেদ যদি ওস্তাদ হয় তবে মাধবপুরের দেলোয়ার হোসেন ওরফে খোকন হলো তার শিষ্য।

অবশ্য খোকনের প্রতারণার গল্প আর রিজেন্ট সাহেদের প্রতারণার গল্প সম্পূর্ণ বিপরীত। পদ্ধতিও ভিন্ন।

সেই প্রতারক ও নারীলোভী খোকনকে গত ১৬ জুলাই সরকারি চাকুরীর নামে প্রতারণার দায়ে গ্রেফতার করেছে হবিগঞ্জ এনএসআই ও ডিবি পুলিশ।

প্রতারণা, জালিয়াতির স্বীকারোক্তি দেয়ায় মামলা দায়েরের পর তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

তার গডফাদার কে বা সে কার হয়ে কাজ করে তা খুঁজে বের করতে আদালতে তার চারদিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। মাধবপুর থানা পুলিশ গত শনিবার চারদিনের রিমাণ্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করেন।

তবে এর আগেই দেলোয়ার হোসেন খোকনের প্রতারণার বিষয়ে মুখ খোলতে শুরু করেছেন নিঃস্ব হওয়া ব্যক্তি ও ভুক্তভোগীরা।

জানা যায়, সরকারি চাকরিতে নিয়োগ বাণিজ্যই খোকনের মূলপেশা ছিলো না। প্রতারক সাহেদের মতো স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়েও সে প্রতারণা করতো। এছাড়াও ব্যাংক ঋণ আত্মসাতের চেষ্টা, শিক্ষক নিয়োগ ও বদলী বাণিজ্যের সাথেও সে জড়িত ছিলো বলে জানা গেছে।

গতকাল সরেজমিনে তার গ্রামের বাড়ি বাশে^রপুর গ্রামে গেলে পাওয়া যায় তার সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর ও বহু অজানা কাহিনী।

সে সরকারি চাকরি দেয়ার পাশাপাশি হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও সিলেটসহ বিভিন্ন জেলায় নিজেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ও কর্মকর্তা পরিচয় দিতো এবং বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিক ভিজিট করতে যেতো। এ জন্য সে আগে থেকেই তার পছন্দের একজনকে ভিজিটর বানিয়ে রাখতো।

পরে লোক দেখানো ভিজিটে গিয়ে প্রাইভেট হাসপাতালের মালিকদের বলতো, তাদের পক্ষে প্রতিবেদন দেয়া হবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের সচিবদের সাথে তার গভীর সম্পর্ক রয়েছে। ভিজিট প্রতি সে কোনো কোনে হাসপাতাল থেকে ৫০ হাজার থেকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিতো।

সিলেটের একটি নামী প্রাইভেট হাসপাতাল থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। এসব টাকা নিয়ে সে তার গ্রামে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা খরচ করে একটি বাড়ি তৈরি করে।

এ ছাড়া সম্প্রতি সে করোনা পরীক্ষা নিয়ে জালিয়াতির পরিকল্পনা ও গরুর খামার প্রতিষ্ঠার নামে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে আত্মসাতের পরিকল্পনা করছিলো বলে সূত্র জানিয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ভুক্তভোগী জানান, সে এমন এক প্রতারক হয়তবা ইতোমধ্যে কোনো ব্যাংকে গরুর খামারের নামে লোন আবেদন করে রেখেছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নজর দেয়ার দাবি জানান তিনি।

গতকাল স্থানীয় ও ঢাকার বিভিন্ন অনলাইনে তার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ হলে বিষয়টি মাধবপুরের টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়।

তার এতোদিনের পুরোনো অজানা প্রতারণার কাহিনীর কথা পত্রিকায় আসায় অনেকে সাংবাদিকদের প্রশংসা করছেন। তার প্রতারণার শিকার হয়েছেন এমন কয়েকজন ভুক্তভোগী হলেন মাধবপুরের শমসের আলী, কপিল আহমেদ, তাজুল ইসলামসহ অনেকেই।

যাদের কেউ কেউ আত্মীয় স্বজনের মাধ্যমে প্রতারক খোকনকে সরাসরি টাকা দিয়েছেন আবার কেউ কেউ কচুয়া দরবার শরীফের পীর সাহেবের জিম্মায় টাকায় দিয়েছেন।

তাদের মধ্যে যারা ২ থেকে ৪ লাখ টাকা দিয়েছেন তাদের কেউ কেউ প্রতারক খোকনের মোটর সাইকেল কিংবা তাকে আটকিয়ে অনেক দেন দরবার করে কিছু বা অর্ধেক টাকা আদায় করেছেন। অবশিষ্ট টাকা সে আত্মসাত করেছে। এ ছাড়া প্রতারক খোকন গ্রামের কয়েকটি মসজিদে রড, সিমেন্ট, ফ্যানসহ অনুদান দেবার কথা বলেও দেয়নি।

প্রসঙ্গত, মাধবপুর উপজেলার বানেশ্বরপুর গ্রামের বাসিন্দা এক সময়ের পুরাতন কাপড় বিক্রেতা আবুল হোসেনের ছেলে দেলোয়ার হোসেন খোকন (৪২) দীর্ঘদিন ধরে টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন কার্যালয়ের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের য়া সাক্ষর সীল তৈরি করে চাকুরির নিয়োগপত্রের ব্যবসা করে আসছে।

গোপন সুত্রের সংবাদের ভিত্তিতে হবিগঞ্জ এনএসআই অনুসন্ধান করে ঘটনার সত্যতা পায়। পরে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কর্তৃপক্ষের নির্দেশে জেলা এনএসআই হবিগঞ্জ এর নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের একটি টিম বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১০ টায় বানেশ্বরপুর গ্রামে অভিযান চালায়।

এসময় প্রতারক চক্রের হোতা দেলোয়ার হোসেন খোকন (৪২) কে তার নিজ বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ নকল সীল, ভূয়া নিয়োগপত্র ও নগদ ৫ হাজার টাকাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়।

এনএসআই ও ডিবির যৌথ জিজ্ঞাসাবাদে অন্তত ২০ লোকের কাছ থেকে চাকুরী দেওয়ার নামে প্রায় লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে গ্রেফতার দেলোয়ার হোসেন খোকন স্বীকারোক্তি দেয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন হবিগঞ্জ জেলা এনএসআই এর ডিডি মোঃ আজমল হোসেন ও এডি মোঃ হুমায়ুন।

এব্যাপারে ডিবি পুলিশ বাদি খোকনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে।

মাধবপুর থানার ওসি মোঃ ইকবাল হোসেন জানান, প্রতারক দেলোয়ার হোসেন খোকনকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চারদিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। রিমান্ড মঞ্জুর হলে তার কাছ থেকে আরো অজানা তথ্য উদঘাটন সম্ভব হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com