হাসপাতালে ‘ভ্যাকসিন নিয়ে টানাটানি, প্রাণ গেল সাপে কাটা রোগীর’!

হাসপাতালে ‘ভ্যাকসিন নিয়ে টানাটানি, প্রাণ গেল সাপে কাটা রোগীর’!

হাসপাতালে ‘ভ্যাকসিন নিয়ে টানাটানি, প্রাণ গেল সাপে কাটা রোগীর’!

অনলাইন ডেস্ক : টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী রেজিস্টার ডা. মনিরা আফরোজের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে সাপে কাটা রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নিহত ওই রোগীর নাম আবু সাইদ। শনিবার সকালে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ওই চিকিৎকের বিচার দাবি করেছে নিহতের পরিবারের সদস্যরা। নিহত আবু সাইদ কালিহাতী উপজেলার চর ভাবলা গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে নিহতের ছেলে শহিদুল ইসলাম শান্ত লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘গত ১৬ জুলাই সোমবার দুপুরে বাড়ির পাশের দোকানে বসে থাকা অবস্থায় আমার বাবাকে সাপে কামড়ায়। দুপুর ২টা ২৫ মিনিটে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক মেডিসিন বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. মনিরা আফরোজের অধীনে ভর্তি করানো হয়। ভর্তির সময় বাবার পায়ের দুটি বাঁধন খুলে দেওয়া হয় এবং বলা হয়, হাসপাতালে সাপে কাটার ভ্যাকসিন নেই। এরপর টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. শরিফ হোসেন খানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে সাপে কাটার ভ্যাকসিন না থাকার বিষয়টি জানালে তিনি হাসপাতালে ভ্যাকসিন আছে বলে আমাকে নিশ্চিত করেন। সাপে কাটার ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য সিভিল সার্জন নিজে কর্তব্যরত ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলেন এবং হাসপাতালের সহকারি পরিচালককেও বিষয়টি জানাই।’

নিহতের ছেলে তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘সিভিল সার্জন ফোনে ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা বলায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন ডা. মনিরা আফরোজ। সিএস বললেই দিতে হবে, আপনি হাসপাতাল ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে কথা বলেন বলেও সাফ জানিয়ে দেন তিনি। তখন আমি হাসপাতালের সহকরী পরিচালক (প্রশাসন) ডা. সদর উদ্দিনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলি। তিনি বিষয়টি দেখছেন বলে জানান। এ সময় তিনি আমাকে আশ্বস্ত করে জানান, আরএমও এর সঙ্গে কথা বলছি ব্যবস্থা হয়ে যাবে। আমি ডা. মনিরা আফরোজের সঙ্গে দেখা করলে তিনি বলেন, আরএমও’র সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। কিন্তু আমি অ্যান্টি স্নেক ভেনম ভ্যাকসিন দিতে পারব না। পরবর্তীতে বিকেল ৫টার দিকে তিনি আমার বাবাকে ঢাকা অথবা ময়মনসিংহ মেডিকেলে নিয়ে যেতে বলেন। এরপর অবস্থার অবনতি হলে আমরা তাকে ময়মনসিংহ হাসপাতালে নিয়ে যাই। ময়মনসিংহ হাসপাতালে সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিটে বাবাকে ভর্তি করানো হয়। পরে ৮টা ১৫ মিনিটে তিনি মারা যান। যার কারণে আমি অভিভাবক হারালাম। তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। যাতে ভবিষ্যতে ডাক্তারের অবহেলার কারণে আর কোনো মানুষের মৃত্যু না হয়।’

এ বিষয়ে ডা. মনিরা আফরোজের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সিভিল সার্জন আমাকে ভ্যাকসিন দেওয়ার নির্দেশ দিলেও সেটিংসের কারণে আমি দিতে পারিনি। পরে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে রোগীকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে রেফার্ড করা হয়।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com