সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের
হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা

হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা

স্টাফ রিপোর্টার : হাওর-বাওরবেষ্টিত একটি জেলার নাম হবিগঞ্জ। এ জেলায় বেশিরভাগ মানুষই কৃষির উপর নির্ভরশীল। কৃষি নির্ভরশীল এ জেলায় পুরো বছরজুড়েই কৃষিকাজে ব্যস্ত থাকেন কৃষক কৃষাণীরা। তবে এবারের চিত্র একটু ভিন্ন। বর্ষা মৌসুম শেষ হলেও জেলার ভাটি অঞ্চলগুলোর হাওর থেকে নামছে না পানি। যে কারণে বোরো ধানের চারা রোপন করা নিয়ে কৃষকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে শঙ্কা।কৃষকরা বলছেন, এখনই বীজতলা তৈরির উপযুক্ত সময়। কিন্তু হাওর থেকে পানি না নামায় বীজতলা তৈরি করতে পারছেন তারা। যদিও হাওরের উজান অংশের পানি কিছুটা কমায় সেখানকার কৃষকেরা বীজতলা তৈরীতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তারা বলছেন, অন্যান্য বছর এ সময়টাতে হাওর থেকে পানি নেমে যায় কিন্তু এবার একেবারে ধীর গতিতে পানি কমছে। ফলে জমি না শুকানোয় সঠিক সময়ে বীজতলা তৈরী নিয়ে শঙ্খিত রয়েছেন তারা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলার ভাটি অঞ্চলখ্যাত বানিয়াচং, আজমিরীগঞ্জ ও লাখাই উপজেলার বেশিরভাগ হাওরে এখনও রয়েছে বর্ষার পানি। কার্তিক মাস শেষে হয়ে অগ্রায়ন মাসের অর্ধেক চলে যাচ্ছে। কিন্তু তারপরও হাওর পারে পানি না শুকানোয় বীজতলা তৈরী করতে পারছেন না কৃষকেরা। কৃষকদের শঙ্কা, যথাসময়ে যদি বীজতলা তৈরী না করা যায় তা হলে সঠিক সময়ে বোরো ধানের চারা জমিতে রোপ করা যাবে না। ফলে বৈশাখের ধান কাটার সময় পিছিয়ে যেতে পারে। আর এতে করে আগাম বন্যায় ধান তলিয়ে যাওয়ারও সম্ভাবনা থাকে।কৃষকদের অভিযোগ, এমনিতেই পলি মাটি পড়ে হাওরের বিভিন্ন অংশ ভরাট হয়ে গেছে তারপর আবার হাওরের বিভিন্ন স্থানে বাঁধ দিয়ে মাছ শিকার করছে জেলেরা। যে কারণে পানির গতিপথ ঠিক না থাকায় হাওর থেকে পানি নামছে না। সরেজমিনে বানিয়াচং ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা যায়, বেশিরভাগ হাওরের এখনও পানি রয়েছে। যেসব এলাকার হাওরে পানি কমেছে সেইসব এলাকার কৃষকেরা জমির আইল তৈরী থেকে বীজ বপণের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে। অনেকে আবার জমিতে হাল দিয়ে বীজতলা তৈরীর জন্য জমি প্রস্তুত করছে। আবার কেউ কেউ বীজ পানিতে ভিজিয়ে রেখে জমিতে ফেলার জন্য প্রস্তুত করছেন। জেলা কৃষি অফিসের দেয়া তথ্যেমতে, চলতি বছরে জেলায় ১ লাখ ২২ হাজার হেক্টর বোরো চাষাবাদের লক্ষ্য ধরা হয়েছে। এরমধ্যে সবছেয়ে বেশি লক্ষমাত্রা রয়েছে বানিয়াচং উপজেলায়। বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের কৃষক তনজিল আহমেদ চৌধুরী লাদেন জানান, এবার হাওর থেকে একেবারে ধীরগতিতে পানি নামছে। যে কারণে বীজতলা প্রস্তুত করা যাচ্ছে না। যেই জমিগুলো থেকে পানি শুকিয়েছে সেই জমিতে অল্প পরিমান বীজতলা তৈরী করা হয়েছে। তিনি বলেন, পানি না নামায় বীজতলা তৈরী ও প্রস্তুত করতে সময় লাগছে। যার প্রভাব পড়তে পারে যদি আগাম বন্যা হয় তাতে। একই গ্রামের কৃষক হৃদয় শাহ বলেন, অগ্রাহায়ন মাসের শুরু থেকেই বীজতলা তৈরীতে ব্যস্ত থাকেন কৃষকেরা। কিন্তু হাওর থেকে পানি না নামায় এখন অলস সময় পার করা হচ্ছে। কৃষক অলিউর রহমান জানান, হাওরে বেরিবাঁধ দিয়ে মাছ শিকার ও সুইচ গেইটের কারণেই সঠিক সময়ে পানি নামছে না। যার প্রভাব পড়ছে কৃষকদের বজীতলা তৈরীতে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া প্রয়োজন। হবিগঞ্জ কৃষি অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ নূরে আলম সিদ্দিকী জানান, হাওর থেকে ধীরগতিতে পানি নামায় বীজতলা তৈরীতে কিছুটা সময় লাগছে। তবে আমাদের মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিক এ বিষয়ে কৃষকদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিচ্ছেন। তিনি বলেন, এবার কৃষকদেরকে প্রণোদনার আওতায় উন্নত জাতের ‘এসএল এইট এইচ’ জাতের বীজ দেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com