হবিগঞ্জ নবীগঞ্জের ফাতেহা হত্যার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদীর মৃত্যু

হবিগঞ্জ নবীগঞ্জের ফাতেহা হত্যার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদীর মৃত্যু

আকিকুর রহমান রুমন(হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি)ঃ-হবিগঞ্জ নবীগঞ্জের চাঞ্চল্যকর ফাতেহা হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি রাজু কারাগারের অধিনস্ত চিকিৎসাধীন আজ ০৬ জুলাই (মঙ্গলবার)সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু বরণ করার খবর পাওয়া যায়।
হবিগঞ্জ কারাগারে দীর্ঘ ২৩মাস ২৮দিন কারাভোগ করেছিলো এই রাজু।
নিহত রাজু আহমেদ নবীগঞ্জ পৌর এলাকার আনমানু গ্রামের মৃত আব্দুল খালিকের ছেলে।
সূত্রে জানাযায়,
নবীগঞ্জ উপজেলায় ২০০২ইং আগষ্ট মাসে(ফাতেহা বেগম)নামের ৬মাসের অন্তসত্ত্বা গৃহবধূকে গনধর্ষণ করে শ্বাসরোদ্ধ হত্যা করা হয়।
তৎকালীন সময়ে এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের ঘটনায় নবীগন্জ থানায় একটি মামলা হয়।
মামলাটি নিয়েও ছিলো অনেক নাটকীয় জটিলতা।
অবশেষে মামলাটি চলে আসে সিআইডির কাছে।
পরে সিআইডি’র তদন্ত কার্যক্রমে সবকিছু বেড়িয়ে আসে।
তারপর বিঞ্জ আদালত এই মামলার সবকিছু পর্যালোচনা করে ৪ জনকে যাবজ্জীবন,২ জনকে ১লাখ টাকা করে অর্থদন্ড অনাদায়ে আরও ১বছরের কারাদন্ড সাজা প্রদান করেন। এছাড়াও ২ জন আসামীকে বেকসুর খালাস করে দীর্ঘ ১৭ বছর পর সবার উপস্হিতিতে আদালত এই রায় প্রদান করে মামলাটি নিঃশপ্তি করেন।
এরপর থেকেই হবিগঞ্জ জেলা কারাগারে নিহত রাজু সহ অপর সকল আসামীদের বন্দি জীবন শুরু হয়।
এদিকে হঠাৎ রাজু নিজেকে অসুস্হতা বোধ করলে তাৎক্ষণিক জেলা কারাগার কর্তৃপক্ষ অসুস্থ অবস্থায় রাজুকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করেন।
সেখানে তার অবস্হার অবনতি হলে ১লা জুলাই রাজু আহমদকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন কারা কতৃপক্ষ।
সেখানেই চিকিৎসা চলাকালীন অবস্হায় আজ(মঙ্গলবার) সকালে মারা যায় রাজু।
এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের মামলার এজাহার ও বিভিন্ন তথ্য সূত্র থেকে জানাযায়-২০০২ইং সালের ২০ আগষ্ট রাত আনুমানিক ৯ ঘটিকার সময় স্বামী-স্ত্রীর পূর্ব বিরোধ মিমাংসার কথা বলে ফাতেহাকে নেওয়া হয়।
নিহত গৃহবধূ ফাতেহা নবীগঞ্জ পৌর এলাকার হরিপুর গ্রামের আরব আলীর মেয়ে।
গৃহবধু ফাতেহা বেগম (২৪)কে যখন নেওয়া হয়েছিল তার পিত্রালয় থেকে তখন তিনি ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন।
এমন অবস্হায়ই তার পাষন্ড স্বামী সাইদুল মিয়া ও অন্যান্য আসামীরা তাকে ফুঁসলিয়ে আসামী বাবুল মিয়ার বাড়ির কথা বলে নিয়ে যায়।
কিন্তু সকল আসামীরা সেইদিন বাবুল মিয়ার বাড়ীতে না নিয়ে একটি নৌকায় উঠিয়ে তাকে নিয়ে যায় শাখাবরাক নামের এক নদীতে।
সেই নদীতে নিয়ে নৌকার মধ্যেই তাকে জোরপুর্বক পালাক্রমে সবাই ধর্ষণ করে।
তাদের এমন পাশবিক নির্যাতনের প্রতিবাদ করে এবং এই ঘটনার উপযুক্ত শিক্ষা দেয়ার হুমকিও দেয় তখন ফাতেহা।
এমন হুমকি দেয়ায় তখন আসামীরা ফাতেহাকে শ্বাসরোদ্ধ করে হত্যা করে।
এবং মৃতদেহটি নদীর পাড়ে একটি ধান ক্ষেতে লুকিয়ে রাখে।
এই ঘটনার পরদিন ২১ আগষ্ট সকাল ১১টায় সংবাদ পেয়ে শাখাবরাক নদীর পাড় থেকে ফাতেহার মৃতদেহটি উদ্ধার করে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ এবং লাশটিও থানায় নিয়ে আসেন তারা।

এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় নবীগঞ্জ থানায় নিহত ফাতেহার বোন রওশনারা বেগম, বাদী হয়ে ফাতেহার স্বামী সাইদুল হক, রাজু আহমদ, আব্দুল মন্নাফ,বাবুল মিয়া,আলাল মিয়া ও আব্দুল খালিকের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
যাহার মামলা নং-২৭। তারিখ ২১/০৮/২০০২ইং।
মামলা দায়েরের সাথে সাথে তড়িৎ গতিতে নিহত ফাতেহার স্বামী সাইদুল হককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে সাইদুল হককে ব্যাপক ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তখন তার স্বীকারোক্তিতে পুলিশ ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত নৌকাসহ বিভিন্ন আলামত উদ্ধার করেন।
এই মামলার তদন্তের দায়িত্ব হিসেবে তখনকার সময়ের এসআই কামাল উদ্দিনকে নিয়োগ করেছিলেন অফিসার ইনচার্জ ওসি।
মামলার আইও এসআই কামাল মিয়া ২০০২ইং সনের ১লা ডিসেম্বরে ৫ জন আসামীর বিরুদ্ধে চার্জসীট দাখিল করেন।
এছাড়া এই নিহত রাজু আহমদকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে প্রেরণ করেন।
এমন চার্জসীট দেখে
মামলার বাদী এটার বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি দরখাস্ত প্রদান করেন।
বিজ্ঞ আদালত নারাজির বিষয়টি আমলে নিয়ে হবিগঞ্জ সিআইডিকে এই মামলার পুনঃরায় তদন্তভারের দায়িত্ব প্রদান করেন।
পরে দায়িত্ব পাওয়া সিআইডি পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা নিহত রাজুসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জসীট দাখিল করেন।
এদিকে চাঞ্চল্যকর গৃহবধু ফাতেহা হত্যাকান্ডের ঘটনায় ময়না তদন্তের রিপোর্টও চলে আসে।
এই রিপোর্ট পর্যালোচনা করে ফাতেহার ৬ মাসের অন্তসত্তা ও হত্যার পূর্বে ধর্ষণের বিষয়টিরও সত্যতা পাওয়া যায় রিপোর্ট থেকে।
পরবর্তীতে মামলার বিচার কার্যক্রম নিঃস্পত্তির জন্য হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে মামলাটি স্থানান্তরিত হয়।
যাহার নং নাঃশিঃ ১৩২৫/১৮।
ঘটনার প্রায় দীর্ঘ ১৭ বছর পর হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত-৩ এর বিচারক এই মামলার সকল কাগজপত্র, স্বাক্ষীদের জবানবন্দি,উভয় পক্ষের কৌশলীদের বক্তব্য পর্যালোচনা করেন।
এবং ৮জুলাই সোমবার ২০১৯ইংরেজী এই মামলাটির উক্ত রায় প্রদান করা হয়।
নিহত ফাতেহার স্বামী উপজেলার গহরপুর গ্রামের মকলিছ মিয়া ছেলে সাইদুল হক। পৌর এলাকার হরিপুর গ্রামের মৃত আব্দুল নুরের ছেলে আব্দুল মন্নাফ।
মৃত বজলা মিয়ার ছেলে বাবুল মিয়া এবং আনমনু গ্রামের আব্দুল খালিকের ছেলে রাজু আহমদকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, সাইদুল হক ও আব্দুল মন্নাফকে ১ লাখ টাকা করে অর্থদন্ড অনাদায়ে আরও ১ বছর করে কারাদন্ড এবং অপর আসামী হরিপুর গ্রামের মৃত রয়মান আলীর ছেলে আলাল মিয়া ও মৃত আব্দুল লতিফের ছেলে আব্দুল খালিককে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়।
এদিকে যাবজ্জীবন সাজা প্রাপ্ত আসামী পক্ষের আত্মীয় স্বজনরা উক্ত রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপীল করেছেন।
আজ হঠাৎ রাজু’র এমন মৃত্যুর সংবাদটি এলাকায় পৌঁছিলে পরিবারও আত্বীয় স্বজনদের মধ্যে আহাজারি শুরু হওয়ারও খবর পাওয়া যায়।
এমনকি তার এমন মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে বলেও অনেকে জানান।
পরিবারের লোকজন মৃতদেহটি আনতে সিলেট চলে যান।
সেখানে আইনী প্রক্রিয়া শেষ করে ময়না তদন্তের পর তাদের কাছে রাজুর লাশটি বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

পরিবারের লোকজন রাজুর লাশ বাড়িতে নিয়ে আসেন এবং বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে জানাজার নামাজ শেষ করে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে বলেও পরিবার সূত্রে নিশ্চিত করেছেন।
নিহত রাজু আহমেদ’র পরিবারে ৪টি কন্যা সন্তান ও একটি পুত্র সন্তান রয়েছে বলেও জানান তারা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com