হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক পাঁচ বছরে

হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক পাঁচ বছরে

হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক পাঁচ বছরে
হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক পাঁচ বছরে

নিজস্ব প্রতিনিধি: পণ্যের গুণগত মান ও পরিবেশ সুরক্ষা সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার নিয়ে হবিগঞ্জে কারখানা স্থাপনের পর থেকেই মানসম্পন্ন পণ্য উৎপাদন, স্থানীয় পর্যায়ে ব্যাপক কর্মসংস্থান এবং আর্থ- সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি পরিবেশ সুরক্ষার বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আসছে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বেলা ১১টায় হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের পাঁচ বছর পূর্তি উলক্ষে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রাল-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক (বিপনন) কামরুজ্জামান কামাল এসব কথা বলেন।

কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্টানটি শুরু হয়। কুরআন তেলাওয়াত করেন প্রাণ গ্রুপ মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুল কদ্দুছ।

অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন জেনাররেল ম্যানেজার আরএফএল অ্যাডমিন ফজলে রাব্বি, সিনিয়ার ম্যানেজার প্রাণ অ্যাডমিন এহসানুল হাবিব ও প্রাণ আরএফএল গ্রুপের অ্যাসিসস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার (জনসংযোগ) জিয়াউল হকসহ কারখানার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

বিপনন বিভাগের পরিচালক কামরুজ্জামান কামাল আরো বলেন, মানসম্পন্ন পণ্য উৎপাদনের পাশাপাশি পরিবেশের সুরক্ষার বিষয়টিকে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে থাকি।এ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কে বর্তমানে ৪টি ইটিপি রয়েছে যার মাধ্যমে প্রায় দৈনিক ৬৬ লাখ লিটার তরল বর্জ্য পরিশোধন করা সম্ভব যেখানে প্রতিদিন প্রায় গড়ে ৪৫ লাখ লিটার তরল বর্জ্য উৎপাদিত হয়। লিকুইড বর্জ্য ইটিপি এর মাধ্যমে পরিশোধন করা হয় আর সলিড বর্জ্য দিয়ে জৈব সার তৈরী করা হয়।

তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যেই পরিবেশ অধিদপ্তরের প্রয়োজনীয় সকল সরধনের ছাড়পত্র পেয়েছে পার্কটি। তাছাড়া পরিবেশ অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট সরকারী প্রতিষ্টানসমূহের কর্মকর্তারা নিয়মিত কারখানা পরিদর্শনের মাধ্যমে পরিবেশ সংশ্লিষ্ট বিষয়ের তদারকি করে থাকেন।

পরিবেশ সুরক্ষায় সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেতন হবার আহব্বান জানিয়ে তিনি বলেন, উজান থেকে নেমে আসা দুষিত পানির প্রবাহ বন্ধ করা গেলে এ অঞ্চলের ঐতিহ্য সুতাং নদী দূষিণের হাত থেকে বাঁচবে।

হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের জেনারেল ম্যানেজার এইচ এম মঞ্জুরুল হক বলেন, এখানকার উৎপাদিত পণ্য বর্তমারে বিশ্বের ১৪১টি দেশে রপ্তানি হ্চ্ছে। গত পাঁচ বছরের ২০হাজার মানুষের কর্মসংস্থাস হয়েছে। কারখানায় কর্মরত লোকবলের ৮০ ভাগই স্থানীয়।

তিনি জানান, কর্মসংস্থানের পাশাপাশি শায়েস্তাগঞ্জ এলাকায় উন্নত শিক্ষার সুযোগ সম্প্রসারনে কাজ করছে গ্রুপটি। আধুনিক সুযোগ সুবিধাসহ কারখানা সংলগ্নে একটি স্কুল স্থাপন করা হয়েছে। বর্তমানে এই স্কুলে প্রায় ৬শ শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। এছাড়া বেশ বেশ কিছু স্কুলে মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের বৃত্তি প্রদান,রাস্তাঘাট নির্শাণ, পয়ঃনিষ্কাশনের ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন কার্যক্রম চলছে যা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। মাত্র পাঁচ বছরে। ওই প্রতিষ্টান এ অঞ্চলের মানুষের গর্বের বিষয়ে পরিণত হয়েছে।

মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকরা ইটিপিসহ হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন।

উল্লেখ্য, দেশের ষীর্ষ স্থানীয় শিল্প প্রতিষ্টান প্রাণ আরএফএল গ্রুপ ২০১৪ সালে হবিগঞ্জের ওলিপুরে ২১৭ একর এলাকা জুড়ে হবিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক গড়ে তোলে। কারখানায় বর্তমানে ফ্রুট, ড্রিংক,বেভারেজ,ক্যান্ডি,লিকুইড গ্লুকোজ,বিস্কুট,কনফেকশনারি,ইলেকট্রিক ক্যাবলস,ফ্যান,মেলামাইন,বাইসাইকেল,এমএস ও জিআই পাইপ,টয়লেট্রিজসহ বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী উৎপাদিত হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com