হবিগঞ্জে স্ত্রীকে খুন! দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা

হবিগঞ্জে স্ত্রীকে খুন! দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা

হবিগঞ্জে স্ত্রীকে খুন! দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জে স্ত্রী হত্যা মামলায় সাংবাদিক রতন ও তার সহযোগী শায়েল সহ ৫জন কে আসামী করে আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শহরের চৌধুরী বাজার জামে মসজিদ সংলগ্ন দাড়িহাটা নামক এলাকায়। যৌতুক লোভী স্বামী রতন ও তার তিন বন্ধুসহ ৫জন মিলে স্ত্রী লাকি আক্তার নামে এক যুবতিকে খুন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানাযায়, বন্ধুদের সহযোগিতায় সাংবাদিক রতনের সাথে সম্প্রতি একবছর পূর্বে কলেজ ছাত্রী লাকির পরিচয় ঘটে। এক পর্যায়ে তাদের মধ্য গড়ে উঠে গভীর প্রেমের সম্পর্ক। সেই সুবাদে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১নং লুকড়া ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের আলী ইসলামের কন্যা অনার্স পাশ করা ছাত্রী লাকি আক্তারের সাথে নবীগঞ্জ উপজেলার ১২নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়ন শ্রীমতপুর গ্রামের মৃত ছামিরুজ্জামান চৌধুরীর ছেলে আনিসুজ্জামান চৌধুরী রতনের বিয়েও হয়।

পরবর্তীতে ওই ৩বন্ধুর মাধ্যমে গত ১৮ জানুয়ারী ২০১৮ ইং তারিখে ইসলামী শরা-শরীয়তের বিধানমতে ৮ লক্ষ্য ১ টাকা কাবিন মূলে বিবাহ রেজিষ্ট্রারী সম্পন্ন হয়। বিবাহের পর তারা চৌধুরী বাজার জামে মসজিদ সংলগ্ন দাড়িহাটা এলাকায় জনৈক মাহমুদা খাতুনের ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছিল। উক্ত বাসায় তার বন্ধু আজিজুর রহমান শায়েল, মনিরুজ্জামান তানিম ও আনিসুজ্জামান জেবু প্রায় সময়ই আসা-যাওয়া করিত এম তথ্য পাওয়া যায়। বিয়ের পরে কিছুদিন যেতেনা যেতেই হতবাগী লাকির কপালে নেমে আসে যৌতুক নামের কালো ছায়া। যৌতুক লোভী রতন তার স্ত্রী লাকির নিকঠে ৫ লাক টাকা যৌতুক দাবি করে প্রায় সময়ই নির্যাতন করত।

এবিষয়ে লাকির মা রুজিলা আক্তার ঘটনার কথা জানতে পারলে মেয়ের ভবিষৎ জীবনের কথা চিন্তা করে বাধ্য হয়ে মানুষের কাছ থেকে ধার-দেনা করে ১লক্ষ টাকা এনে রতনের ৩বন্ধুর মাধ্যমে মেয়ের স্বামীর কাছে এনে পৌছে দেয়। তার পরও থামেনি যৌতুকলোভী স্বামীর নির্যাতন। বাকি অরো ৪ লাখ টাকার জন্য শুরু হয় লাকির উপর প্রতিনিয়ত শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন। অপর দিকে অসহায় লাকীর মা পাষন্ড যৌতুকলোভী রতনকে আরো চার লাক্ষ টাকা যৌতুক চাহিদা পূরণ করতে ব্যার্থ হয়ে রতন ও তার বন্ধুদেরকে অনেক বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু চুরে না শুনে ধর্মের কাহীনিÑ এদিকে রতন বন্ধুদেরকে নিয়ে যৌতুক আদায় পরিকল্পনায় অব্যাহত থাকে।

এক পর্যায়ে গত সোমবার দিবাগত রাতে ওই ভাড়া বাসায় ৩বন্ধুদের সাথে নিয়ে নির্যাতন করে এবং মুখে বিষ ঢেলে দেয় রতন। লাকি আক্তার জ্ঞান হারিয়ে ফেললে ঘাতকরা থাকে সিএনজিযোগে কাশিপুরে লাকির পিতার বাড়িতে অজ্ঞান অবস্থায় ফেলে আসে। এদিকে লাকির অবস্থার অবনতি ঘটলে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার আত্মীয়-স্বজনরা। তখন স্বজনরা তার স্বামীর মোবাইল ফোনে অনেকবার যোগাযোগের চেষ্টার পরেও ব্যার্থ হন তারা। কোন কর্নপাত করেনি রতন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় অন্তত ১ঘন্টা পর ওই কলেজ ছাত্রি লাকি আক্তার শেষ নিস্বাস ত্যাগ করেন।

এদিকে, হবিগঞ্জ সদর চৌধুরী বাজার পুলিশ ফাঁড়ির এসআই রাজিব লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন। ময়নাতদন্ত শেষে নিহতের মায়ের নিকট লাশ হস্তান্তর করে। পরে তার লাশ গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হয়।

লাকি আক্তারের মা জানান, আসামীরা প্রায় সময় রতনের সাথে আমাদের বাড়িতে আসা যাওয়া করতো। তারা খুবই ঘনিষ্ট বন্ধুত্ব সম্পর্ক ছিল। তাদেরকে আমি পায়-হাতে ধরিয়া অনেক বুঝানের চেষ্ঠা করি। এক লাখ টাকাও দিয়েছি। কিন্তু তারপরও পাষন্ড খুনিদের হাত থেকে আমার মেয়েটাকে বাঁছাইতে পারলামনা! “আমার মেয়ের খুনীদের ফাঁসি চাই।”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com