হবিগঞ্জে করোনা আক্রান্তদের সংস্পর্শে হাজারো মানুষ

হবিগঞ্জে করোনা আক্রান্তদের সংস্পর্শে হাজারো মানুষ

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  নমুনা দিয়ে দীর্ঘ ১৯ দিন অপেক্ষার পর করোনায় আক্রান্ত জানতে পারলেন হবিগঞ্জের ১৭ জন। এদের কেউ কেউ থেকেছেন কোয়ারেন্টিনে। তবে অনেকেই এলাকায় ঘুরে বেড়িয়েছেন নমুনা দেয়ার পর। আবার নিজেকে সুস্থ মনে করে রিপোর্ট পাওয়ার প্রতি আগ্রহ হারিয়েছেন কয়েকজন। আক্রান্ত এক ব্যক্তি নমুনা দেয়ার পর থেকে ১৯ দিন নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করেছেন। থেকেছেন পরিবারের সদস্যদের সাথে। এসেছেন হাজারো লোকের সংস্পর্শে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় রীতিমতো আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। অথচ তার সংস্পর্শে আসা লোকজন তো দূরে থাক, পরিবারের সদস্যদের নমুনা নিতেই অনীহা প্রকাশ করছে স্বাস্থ্য বিভাগ। গতকাল রবিবার ঢাকা থেকে পাওয়া রিপোর্টে ওই ১৭ জনের শরীরে করোনা সনাক্ত হয় বলে জানিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এদের মাঝে হবিগঞ্জ সদর ৫ জন, মাধবপুর ৭ জন, নবীগঞ্জ ৩ জন, চুনারুঘাট ১ জন এবং আজমিরীগঞ্জ উপজেলার ১ জন।
ওই ১৭ জন নমুনা দিয়েছিলেন গত ৯ জুন। রিপোর্ট এসেছে ২৭ জুন। সময় লাগলো ১৯ দিন। আক্রান্তদের কয়েকজন নিজেকে সুস্থ্যই মনে করেছিলেন। ঘুরে বেড়িয়েছেন নিজ এলাকায়। ১৯ দিন পর করোনায় আক্রান্তের খবর পেয়ে রীতিমতো আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন কয়েকজন। এদের পরিবারও পড়েছে বিপাকে।
আক্রান্ত এক ব্যক্তির বাড়ি চুনারুঘাট উপজেলার গাভীগাঁও। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (রাত ১১টায়) তার সাথে যোগাযোগ করতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ। আক্রান্ত ব্যক্তির ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ফাতেমা হক।
আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও বাজারের ৩৮ বছর বয়সী এক ব্যবসায়ী। তার ঘরে রয়েছেন স্ত্রী ও ১০ বছর বয়সী সন্তান। নমুনা দেয়ার ১৯ দিন পর রিপোর্ট এসেছে করোনা পজিটিভ। নাম প্রকাশ না করার স্বার্থে ওই ব্যবসায়ী দৈনিক খোয়াইকে বলেন, রিপোর্ট আসতে দেরী হওয়ায় তিনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালিয়েছেন নিয়মিতই। থেকেছেন বউ সন্তানের সাথে। তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি বাজারে অনেক জনপ্রিয়ও। প্রতিদিন এখানে আসেন শতাধিক ক্রেতা। এ অবস্থায় কতজনের মাঝে করোনা ছড়ানোর আশঙ্কা রয়েছে তা গুণে শেষ করে যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় কয়েকজন।
এ ব্যাপারে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাঈমা খন্দকার দৈনিক খোয়াইকে বলেন, বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগকে জানিয়েছি। তার পরিবারের সদস্য ও সংস্পর্শে আশা লোকদের নমুনা দ্রুত সংগ্রহ করার জন্যও বলা হয়েছে। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলা প্রশাসনের এক কর্মকর্তা জানান, ব্যাপারটি নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ উদাসীন ভূমিকায়। নমুনা নেয়ার পর ওই লোকের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করেনি তারা। করোনা পজিটিভ আসার পর তার পরিবারের সদস্যদের নমুনা সংগ্রহেও অনীহা প্রকাশ করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে কল রিসিভ করেননি। চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মুখলিছুর রহমান উজ্জ্বলকেও। অন্যদিকে সিভিল সার্জন একেএম মোস্তাফিজুর রহমানে সাথে অফিস টাইমের পর যোগাযোগ করতেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। যে কারণে পাওয়া যায়নি তার মন্তব্যও।
অন্যদিকে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিশ্বজিত কুমার পাল জানিয়েছেন ১৯ দিন অপেক্ষার পর রিপোর্ট আসাদের মাঝে তার উপজেলায় রয়েছেন তিনজন। এদের মধ্যে একজন পুলিশ সদস্য বাকী দুইজন স্বাস্থ্য বিভাগের। তবে তারা নমুনা দেয়ার পর কোয়ারেন্টিনে ছিলেন বলেও নিশ্চিত করেছেন তিনি।
জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেবে, গত ১১ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত হবিগঞ্জ জেলায় মোট ৫৫৪ জনের করোনা সনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন ৬ জন। আক্রান্তদের মধ্যে হবিগঞ্জ সদর ১৭৭, চুনারুঘাট ১১৩, মাধবপুর ৮৯, নবীগঞ্জ ৫৪, বাহুবল ৩৫, লাখাই ৩৪, বানিয়াচং ২৪, আজমিরীগঞ্জ ২১ ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় ০৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৯১ জন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com