হবিগঞ্জে ঈদ শপিংয়ে জমজমাট বাজার, বাড়ছে ঝুঁকি

হবিগঞ্জে ঈদ শপিংয়ে জমজমাট বাজার, বাড়ছে ঝুঁকি

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  করোনাভাইরাস সংক্রামণ রোধে প্রশাসনিকভাবে সামাজিক দুরত্ব মেনে চলার নির্দেশ থাকলেও এর তোয়াক্কা করছেন না গ্রাম-গঞ্জের মানুষ। বিষয়টি হাসি-ঠাট্টার মধ্যে দিয়ে এড়িয়ে চলছেন হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন। সামাজিক দুরত্ব না মেনে তারা হাট-বাজার, সালিশ বৈঠক, ইফতার ও দোয়া মাহফিলে ঘা ঘেষা-ঘেষি করে বসছেন এবং অনেকেই টিসিবির পণ্য কিনতে গিয়েও ঘা ঘেষা-ঘেষি করে দাড়াচ্ছেন। ঈদেও শপিংয়ে হাটবাজারের কাপড়ের দোকানগুলোতেও ক্রেতাদের ভীড় দেখা যাচ্ছে। এতে কওে জমজমাট হয়ে উঠেছে স্থানীয় হাটবাজারগুলো। ফলে করোনাভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি বাড়ছে প্রতিনিয়ত। তাই সামাজিক দুরত্ব মেনে চলতে হাটবাজার ও জনসমাগম স্থলে প্রশাসনিকভাবে স্বেচ্ছাসেবকদের কাজে লাগানোর দাবী জানিয়েছেন সচেতনমহল।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, জেলার বিভিন্ন হাটবাজাওে মানুষের ভীড় কমাতে প্রশাসন কঠোর ভূমিকা পালন করে আসছে। বিভিন্ন স্থানে প্রতিদিনই ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে আইন অমান্যকারীদের জরিমানা করা হচ্ছে। এছাড়াও দেয়া হচ্ছে করাদণ্ড। সামাজিক দুরত্ব মেনে চলতে প্রচার-প্রচারণাও অব্যাহত রেখেছে বিভিন্ন উপজেলার প্রশাসনসহ আইন শৃংখলাবাহিনী। কিন্তু প্রশাসন ভূমিকা রাখলেও বিভিন্ন হ্টাবাজারের ক্রেতা-সাধারণকে সামাজিক দুরত্ব মেনে চলতে দেখা যায়নি। প্রশাসনের লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা কেটে পড়ে, আবার প্রশাসনের লোকজন চলে গেলে পুণরায় ভীড় করতে দেখা যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার কটিয়াদি বাজার, নুরানী বাজার, বাহুবলের নন্দনপুর, মিরপুর বাজার, মানিকা বাজার, লাখাই’র বামৈ বাজারসহ বিভিন্ন বাজারে স্থানীয় এলাকাবাসী ও সাধারণ ক্রেতাদের উপস্থিতি রয়েছে প্রতিদিন। এতে বাজাওে বাড়ছে ভীড়। অনেক সময় সামাজিক দুরত্ব বজায় না রেখে চা চক্র, বিভিন্ন আড্ডা ও গল্প গুজবে তাদের মেতে উঠতে দেখা যায়।

এদিকে, বিভিন্ন এলাকায় টিসিবির পণ্য কিনতে এসেও ভীড় করছেন ক্রেতারা। পণ্যের দাম তুলনামূলক কম থাকায় ক্রেতারা দুরত্ব না মেনেই এসব পণ্য কিনতে দেখা গেছে। স্থানীয় হাটবাজারের কাপড়ের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের ভীড় লক্ষণীয়। ঈদের শপিং করতে এসে গ্রামের মানুষ হাট-বাজারের কাপড়ের দোকানে ভীড় করছেন। প্রতিদিন জনসাধারণের উপস্থিতিতে জমজমাট হয়ে উঠেছে হাটবাজার। দোকানপাট খোলারাখায় জনসাধারণের উপস্থিতি দিন দিন বাড়ছে বলে ধারণা করছেন সচেতনবাসী। শুধু তাই নয়, জেলার বিভিন্ন গ্রামে টং দোকানে ও মানুষের ভীড় বাড়ছে। প্রশাসনিক নির্দেশে স্থানীয় হাটবাজার সময়মতো বন্ধ হলে সাধারণ মানুষ গ্রামের দোকান-পাটে ভীড় করছেন। এতে কিছুতেই মানা হচ্ছে না সামাজিক দুরত্ব।

গ্রাম-গঞ্জের বেশির ভাগ মানুষ অসচেতন। করোনাভাইরাস সংক্রামণ বৃদ্ধি রোধ সম্পর্কে তাদের ধারনা নেই বললেই চলে। যেভাবে করোনা সংক্রামণ বৃদ্ধি পাচ্ছে তুলনামূলকভাবে গ্রাম-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনাই বেশি। এখনো সামাজিক দুরত্ব মানছেন না হাটবাজারে থাকা ক্রেতা ও সাধারণ লোকজন। তাদের সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে আরও সচেতন করা প্রয়োজন।

এ বিষয়ে প্রশাসনকে কঠোর ভূমিকা নিতে হবে। প্রয়োজনে প্রশাসনিক নির্দেশে গ্রামে গ্রামে কমিটি গঠন কওে সচেতন স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী গড়ে তুলতে হবে। প্রতিদিন স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী হাট-বাজারে দায়িত্ব পালন করলে অনেকেই সামাজিক দুরত্ব মেনে চলতে বাধ্য হবেন। এতে করেকরোনা সংক্রামন বৃদ্ধি রোধ কিছুটা হলেও সম্ভব হবে।

হবিগঞ্জ জেলায় প্রতিনিয়ত করোনা সংক্রামণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রশাসনিক কর্মকর্তা থেকে শুরু করে না না শ্রেণী পেশার লোকজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন। গ্রাম-গঞ্জে যদি এ সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে তাহলে ব্যাপক ক্ষতি হয়ে যাবে। গ্রামের বেশির ভাগ মানুষ অসচেতন। করোনাভাইরাস সংক্রামণ রোধে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে অনেকেই এখনো অনিহা প্রকাশ করছেন। কাজেই তাদের সচেতন করতে হবে। আইনশৃংখলাবাহিনীকে আরও কঠোর ভূমিকা পালন করতে হবে। সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার বিষয়ে সকলকে সচেতন করতে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবীদেও এগিয়ে আসা প্রয়োজন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com