সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
হবিগঞ্জে আইসিটি শিক্ষায় হ-য-ব-র-ল

হবিগঞ্জে আইসিটি শিক্ষায় হ-য-ব-র-ল

ডেস্কটপ ও ল্যাপটপ দুই ধরনের কম্পিউটারই আছে। কিন্তু শেখানোর শিক্ষক নেই। ব্যবহার না হওয়ায় নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। কোনোটির মনিটর ভালো আছে, কিন্তু সিপিইউ নষ্ট। কোনোটির কি-বোর্ড কাজ করে না। ল্যাপটপের ব্যাটারি নষ্ট। ইউপিএসের সমস্যা থাকায় বিদ্যুৎ চলে গেলে কম্পিউটার চলে না। কিন্তু এগুলো মেরামতেরও কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয় না। এ হচ্ছে হবিগঞ্জের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্থাপিত শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবের অবস্থা।

‘সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপন’ প্রকল্পের আওতায় ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত প্রথম দফায় দেশের ৬৪টি জেলায় ৬৫টি ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাবসহ প্রায় চার হাজার একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব’ স্থাপন করা হয়। পরে দ্বিতীয় দফায় প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ে। এখন তৃতীয় দফায় মেয়াদ বৃদ্ধির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

প্রকল্পের উদ্দেশ্য হচ্ছে সারা দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিশেষায়িত কম্পিউটার ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপনের মাধ্যমে শিক্ষায় আইসিটি ব্যবহারের সুযোগ তৈরি ও শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি করা। সফটওয়্যার-ভিত্তিক ভাষাশিক্ষার প্রয়োজনীয় অবকাঠামো স্থাপনের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেওয়া ও দক্ষ মানবসম্পদ উন্নয়ন এবং ডিজিটাল শিক্ষার সম্প্রসারণ ও সহজলভ্যকরণের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের আইসিটিতে দক্ষতা, সক্ষমতা বৃদ্ধি ও স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করা।

আইসিটিতে শিক্ষার্থীদের দক্ষতা ও সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সারা দেশে হাইস্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় স্থাপন করা হয়েছে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব। সরকার ৬ষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত আইসিটি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে। এরই অংশ হিসেবে প্রথম ধাপে হবিগঞ্জের ৮টি উপজেলায় ৬০টি ল্যাব চালু করা হয়। প্রতিষ্ঠানগুলোর অবস্থা ভেদে দেওয়া হয়েছে ১০ থেকে ১৭টি ল্যাপটপ, ডেস্কটপ কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক সামগ্রী। দ্বিতীয় ধাপে আরও ৫০টি  শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে তালিকাভুক্ত করা হয়। পর্যায়ক্রমে ওইসব স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসাগুলোতেও ১৭টি ল্যাপটপ, চেয়ার-টেবিল, স্মার্ট টিভি দেওয়া হয়েছে। এর আগে একটি কক্ষকে ল্যাবের উপযোগী করার জন্য প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানকে সরকারিভাবে ৬৫ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দেওয়া হয়। দুই কিস্তিতে ১১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এ ল্যাব স্থাপন করা হয়। তবে জেলায় ২৭২টির মধ্যে ১৬২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব চালুই হয়নি। কিন্তু কাগজপত্রে চালু ল্যাবগুলোর করুণ দশার চিত্র উঠে এসেছে দেশ রূপান্তরের অনুসন্ধানে।

দেশ রূপান্তর ১৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ল্যাব পরিদর্শন ও বাকি ৪৫টি প্রতিষ্ঠান প্রধানের সঙ্গে মুঠোফোনে আলাপ করেছেন। এতে প্রায় ৯০ শতাংশ ল্যাবের অচলাবস্থার চিত্র পাওয়া গেছে। এমনও প্রতিষ্ঠান আছে যেখানে কম্পিউটার আছে, কিন্তু তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ের শিক্ষক নেই। অন্য বিষয়ের শিক্ষক দিয়ে কোনোভাবে পাঠদান করানো হচ্ছে। কোথাও সিপিইউ  নষ্ট, কোথাও কি-বোর্ড নষ্ট। আছে ল্যাবের আসন সংকট। ফলে শিক্ষার্থীরা ল্যাবের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

হবিগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিস থেকে জানা গেছে, জেলায় ১৬১টি হাই স্কুলের মধ্যে ৭২টি, ২৯টি কলেজের মধ্যে ১৫টি, ৬২টি মাদ্রাসার মধ্যে ১০টি এবং ২০টি স্কুল অ্যান্ড কলেজের ১৩টিতে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব রয়েছে। মোট তিন হাজার ৫৬০টি শ্রেণিকক্ষের মধ্যে মাল্টিমিডিয়া শ্রেণিকক্ষ রয়েছে ৩৭২টি। এর মধ্যে ৯১টি অর্থাৎ ২৫ শতাংশই অনুপযোগী।

সরেজমিনে কয়েকটি স্কুলের ল্যাবে প্রশিক্ষণ দেওয়ার সময় দেখা গেছে, একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপের সামনে একজন শিক্ষার্থী চেয়ারে বসার সুযোগ পেলেও বাকিরা দাঁড়িয়ে তা দেখছে।

আইসিটি শিক্ষায় ব্যবহারিক ক্লাস গুরুত্বপূর্ণ। অথচ ব্যবহারিক ক্লাস করার সুযোগ নেই। হবিগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র নাবিল জানায়, এখন পর্যন্ত ল্যাবে ক্লাস করার সুযোগ পাননি। ল্যাবের শ্রেণিকক্ষের রং সাদা না কালো তাও জানি না।

অথচ আইটিসি বিষয়ে ৫০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হয়। এর মধ্যে তত্ত্বীয় ২৫ ও ব্যবহারিক ৫০ নম্বর থাকে। মুখস্ত করেই পরীক্ষা দিচ্ছেন সবাই। আর ব্যবহারিক পরীক্ষার নম্বরও শিক্ষকের মর্জির ওপর নির্ভরশীল।

জেলা শিক্ষা অফিসের একজন কর্মকর্তা জানান, সরকারি হাই স্কুলে আইসিটি শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়নি। বিজ্ঞান বা অঙ্কের শিক্ষকরা সাধারণত এ বিষয়টির দায়িত্ব নিয়ে থাকেন।

কম্পিউটার সামগ্রী নষ্ট হওয়ার কারণ সম্পর্কে স্কুল ও কলেজের শিক্ষকদের বক্তব্য অনেকটা এক রকমই। তারা বলছেন, কম্পিউটারগুলোর ভার্সন বেশ পুরনো। করোনার সময়ে স্কুল ও কলেজ দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় ল্যাপটপগুলো চার্জ দেওয়া হয়নি। এতে অধিকাংশ ল্যাপটপের ব্যাটারি নষ্ট হয়ে গেছে।

কিছুু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান ল্যাবের কম্পিউটার বা অন্যান্য যন্ত্রপাতি নষ্ট থাকার বিষয়টি চেপে যাচ্ছেন। হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের (আইসিটি) অফিস থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে চালু থাকা শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবের বিভিন্ন বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়। গত ৬ আগস্ট শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নূরপুর আদর্শ হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মান্নান লিখিত তথ্যে জানিয়েছেন তার স্কুলের সব কম্পিউটারই সচল। অথচ গত ৮ আগস্ট এ প্রতিনিধি ওই স্কুল সরেজমিনে গিয়ে দেখেছেন, স্কুলের ১১টির মধ্যে ২টি ল্যাপটপ দীর্ঘদিন ধরে নষ্ট। বাকিগুলোর অবস্থাও কাহিল বলে জানান খোদ তথ্যপ্রযুক্তির শিক্ষক বদরুজ্জামান।

জানা গেছে, বানিয়াচঙ্গ উপজেলার বক্তারপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও একতা উচ্চ বিদ্যালয়ে তথ্যপ্রযুক্তির কোনো শিক্ষক নেই। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আইসিটি শিক্ষক কতজন আছেন বা কতটি পদ খালি রয়েছে তা জানাতে পারেনি জেলা শিক্ষা অফিস। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা  মো. রুহুলুল্লাহ জানান, আইসিটি শিক্ষক সম্পর্কে আলাদাভাবে কোনো হিসাব নেওয়া হয়নি।

চুনারুঘাট মাসুদ চৌধুরী হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক ফজলুল হক তরফদার বলেন, ‘নষ্ট ল্যাপটপগুলো স্থ্ানীয়ভাবে মেরামত করিয়েছি। তারপর গত জুলাইয়ে সিলেট টিচার্স ট্রেনিং কলেজের টেকনিশিয়ান দিয়ে মেরামত করিয়েও ৭টি ল্যাপটপ সচল করা যায়নি। এছাড়া সরকারিভাবে মেরামতের জন্য কোনো নির্দেশনা বা অনুদান দেওয়া হয় না। ফজলুল হক তরফদার আরও বলেন, শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবে ব্যবহৃত কম্পিউটার ও অন্যান্য ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী মেরামতের জন্য সরকারিভাবে প্রত্যেক জেলায় সার্ভিস সেন্টার খোলা প্রয়োজন। এতে যেমন বেকার সমস্যার নিরসন হবে। অন্যদিকে নষ্ট কম্পিউটার নিয়ে ঢাকা ও সিলেটে শিক্ষকদের দৌড়াদৌড়ি কমবে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. মোস্তফা কামাল দেশ রূপান্তরকে বলেন, শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব চালুর আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানদের কাছ থেকে আইসিটি শিক্ষক আছেন কি না জেনে নেওয়া হয়। তারপরেও কিছু হেরফের হতে পারে। প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ল্যাব ফি নিয়ে থাকে। ওই অর্থ দিয়ে কম্পিউটার মেরামত হয়ে যাওয়ার কথা।

শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন প্রকল্পের পরিচালক (যুগ্ম সচিব) মো. রেজাউল মাকছুদ জাহেদী জানান, এ প্রকল্পে প্রথম পর্যায়ে ৩৯০ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। চলমান দ্বিতীয় পর্যায়ের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৯৩০ কোটি টাকা। এ ছাড়া ‘শেখ রাসেল স্কুল অব ফিউচার’ পাইলট প্রকল্পে ৩০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে নেওয়া হয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠানগুলো অত্যন্ত আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর হবে।

অঙ্ক ও ইংরেজি বিষয়ে শিক্ষার্থীরা যাতে (সেলফ লার্নিং) আত্মশিক্ষা লাভ করতে পারে সেজন্য জাপানের কোমন (শঁসড়হ সড়ফবষ) মডেল আনার চেষ্টা করছি। প্রথম পর্যায়ের কম্পিউটার নষ্ট হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কী পরিমাণ কম্পিউটার নষ্ট হয়েছে এর তথ্য আমরা সংগ্রহ করেছি। অচল হয়ে যাওয়া কম্পিউটারগুলোর পরিবর্তে নতুন কম্পিউটার দেওয়ার পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। কম্পিউটার মেরামতের জন্য ওয়ালটনের সঙ্গে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের  চুক্তি আছে বলেও জানান রেজাউল মাকছুদ জাহেদী। যেসব প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল ল্যাব রয়েছে সেখানে একজন আইসিটি শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার জন্য ইতিমধ্যে আমাদের মন্ত্রণালয় থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হয়েছে।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল দেশ রূপান্তরকে বলেন, হাইকোর্টের নির্দেশ এমপিও এবং ননএমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ করতে হবে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) মাধ্যমে। ৭০০টি সরকারি স্কুলে আইসিটি শিক্ষক নেই উল্লেখ করে উপমন্ত্রী বলেন, আইসিটি শিক্ষক না থাকলেও অন্য বিষয়ের শিক্ষকরা পড়াচ্ছেন। শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় পাসও করছে। ৩০ হাজার বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পর্যায়ক্রমে এনটিআরসির মাধ্যমে আইসিটি শিক্ষকের পদ পূরণ করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com