হবিগঞ্জের সদর হাসপাতালে সেবার বদলে মাইর!

হবিগঞ্জের সদর হাসপাতালে সেবার বদলে মাইর!

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল গাইনী বিভাগের নার্স পারভিন আক্তার। (বামে) হামলায় জড়িত থাকা নার্সের স্বামী নুরুল ইসলাম ।

নিজস্ব প্রতিনিধি: হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সেবার অনিয়ম আগে থেকে দেখা গেলেও এবার ভিন্ন ঘটনার জন্ম দিয়েছেন গাইনী বিভাগের কর্তব্যরত পারভিন আক্তার নামে এক নার্স। বিনা অনুমতিতে নার্স স্টাফদের বাথরুম ব্যবহার করায় ওই ওয়ার্ডের ভর্তি থাকা কলি আক্তার নামে এক মহিলা রোগীকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ ও প্রহার করেন নার্স পারভিন। এতে ওয়ার্ডের উপস্থিত অন্যান্য রোগী ও তার স্বজনরা এগিয়ে আসলে তাদের উপর চরাও হয়ে উঠে উত্তেজিত ওই নার্স। পারভিনের উত্তেজনার মুহুর্তে তার প্রহারের শিকার ভর্তি রোগীর স্বজন রিনা আক্তার নামে এক মহিলা  এসময় গুরুত্বর আহত হন । রিনার অবস্থা বেগতিক দেখা দিলে আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে গেলে দায়ীত্বরত ডা: মেহেদী হাসান চিকিৎসা দেন ।

জানাযায়, ২৯ জুন বৃহস্পতিবার বিকালে রোগী কলি আক্তারকে তার স্বজনেরা চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালের গাইনী বিভাগে ভর্তি করেন । চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল ৩০ জুন শনিবার বিকালে রোগীর স্বজনেরা হাসপাতালে তাকে দেখতে যান । এসময় রোগীর কাপর পাল্টানোর জন্য লেবার ওয়ার্ডের ভেতরে ঢুকলে নার্স পারভিন তাদের আটক করে অকথ্য ভাষায় গালমন্ধ করেন। পরে ওই রোগী ও তার স্বজনরা আটকানোর চেষ্টা করলে তাদের উপরেও উত্তেজিত হন নার্স পারভিন। এক পর্যায়ে নার্সের অতর্কিত প্রহারে আহত হন রোগী কলি ও তার স্বজন রিনা আক্তার। একটি সুত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালের আগত রোগীদের সাথে এমন দুর্ ব্যবহার, নির্যাতন ও প্রহার নিয়মিত করে আসছেন তিনি । কিছুদিন পুর্বে নবীগঞ্জের এক গর্ভবতি রোগী সদর হাসপাতালে ডেলিভারী করাতে আসলে আবারও ওই নার্স ঘটান নির্মম আরেকটি ঘটনা । ওইদিন রোগীনী প্রসব যন্ত্রনায় চিৎকার করলে তাকেও আঘাত করেন তিনি । নার্সের উত্তেজনার ফল ধারালো ব্ল্যাডের আঘাতে ওই রোগীর উরুতে  খানিকটা অংশ কেটে ফেলেন । পরে রোগীর স্বামী তার স্ত্রীকে বাঁচাতে তরিঘরি করে সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান । পরে সেখানের চিকিৎসকের মাধ্যমে তিনি জানতে পারেন তার স্ত্রীকে হবিঞ্জের সদর হাসপাতাল থেকে তার উরু কেটে দেয়া হয়েছে। সেখানে প্রায় ২২ টি সেলাই করে দেন কর্তব্যরত ডাক্তাররা । এসব ঘটনায় কেউ কতৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দিলেও কোনো প্রতিকার পাননি কেউ। উল্টো তার বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া যায় সাধারন মানুষকে সচিবের ভয় দেখান তিনি ।

 

এঘটনায় ওই নার্স পারভিনের সাথে প্রতিবেদকের কথা হলে তিনি জানান, আমি এমন কোন ঘটনা ঘটাইনি। কোন রোগী ও তারস্বজনদের সাথে খারাপ ব্যাবহার করেনি এবং প্রহারের বিষয়টি সম্পুর্ন ভাবে অস্বিকার করেন । পারভিন বলেন, হাসপাতালের কিছু কিছু তার সহকর্মী ও একদল দালালরাই তার বিরুদ্ধে বলার জন্য আটার মত লাইগ্গা আছে।

 

লোকালয় / একে

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com