হবিগঞ্জের লাখাইয়ে ১২০ ঘর-বাড়ি লুট করে নিয়ে গেছে প্রতিপক্ষ

হবিগঞ্জের লাখাইয়ে ১২০ ঘর-বাড়ি লুট করে নিয়ে গেছে প্রতিপক্ষ

lokaloy24.com

লোকালয় ডেক্স : হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার সন্তোষপুর গ্রামে নজরুল ইসলাম হত্যার ঘটনার প্রতিশোধ নিতে আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছে প্রতিপক্ষ। এর নেতৃত্বে রয়েছেন সাবেক মেম্বার মনিরুজ্জামান ওরপে মনু। হত্যা মামলায় ৬২জন আসামি হলেও তার নেতৃত্বে ১২০ পরিবারের ঘর-বাড়ি লুট করে ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে। লুট করা হয়েছে গবাদিপশু আর গাছপালাসহ ১০ কোটি টাকার মালামাল। জীবন বাঁচাতে বৃদ্ধ,নারী ও শিশুসহ ৬০০ লোক গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার পর এবার তাদের পাকা ধান কেটে নিচ্ছে মনিরুজ্জামানের লোকজন। করোনার কারণে বিপর্যস্থ অবস্থায় বাস্তুহারা এই লোকজন এবার অন্নহারা হয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লাখাই উপজেলার সন্তোষপুর গ্রামের সাবেক মেম্বার মনিরুজ্জামান মনু মিয়ার সাথে বর্তমান মেম্বার বাহার উদ্দিনের গ্রাম্য আধিপত্য বিস্তারর নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মাঝে হত্যাসহ বিভিন্ন মামলা চলমান রয়েছে। গত ২২ মার্চ উভয় পক্ষের সংঘর্ষে  মনিরুজ্জামান এর পক্ষের নজরুল ইসলাম (৩৫) নামে এক ব্যাক্তি নিহত হয়। উভয় পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়। এ ব্যাপারে ৬২ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করা হলেও এই ঘটনার প্রতিশোধ নিতে সাবেক মেম্বার মনিরুজ্জামান এরে পক্ষের লোকজনের উপর হামলা এবং তাদের বাড়িঘরে লুটপাট চালানো হয়।

মঙ্গলবার সরজমিনে সন্তোষপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে ঘরবাড়ি ভাঙ্গার কারণে রিতিমত ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে। অনেক বসত ভিটার টিন ও ইট নিয়ে যাওয়ায় শুন্য ভিটা পড়ে আছে। দোতলা কয়েকটি ঘরও ভেঙ্গে চুরমার করা হয়েছে। গাছ পালা কেটে নেওয়ার চিহ্ণ স্পষ্ট। পুকুরগুলো থেকে মাছ মেরে নেওয়ার প্রমাণ এখনও দৃশ্যমান। আশপাশের লোকজনকে জিজ্ঞেস করলে তারা জানায় এখানে কোন লোক নেই।

নির্যাতিত হয়ে বাস্তহারাদের পক্ষের মাহবুল আলম নামে  এক ব্যাক্তির সাথে এলাকার বাহিরে দেখা হলে তিনি জানান, হত্যা মামলায় ৬২জন আসামি হলেও এখানে বৃদ্ধ, নারী ও শিশু কেউই রেহাই পায়নি। শতাধিক শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন হুমকির মুখে। কয়েকজন এইচএসসি পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা দেওয়া অনিশ্চয়তার মাঝে পড়েছে। কয়েকজন সন্তানসম্ভবা নারীও এখন দিশেহারা। আমাদের মুরুব্বী তাজুল ইসলাম (৮৫), দুলা মিয়া ৮১) ও নানু মিয়া (৮৬) বাড়িতে থাকতে না পেরে প্রতিদিন কান্নাকাটি করছেন। কিন্তু কোনভাবেই তাদেরকে সান্তনা দেওয়া যাচ্ছে না। সাবেক মেম্বার মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে আমাদের ১২০টি বসতঘর ভেঙ্গে ৭ কোটি টাকার মালামাল বিক্রি করে দেয়। লুটপাট করে আরও ৩ কোটি টাকার মালামাল। পুকুরে থাকা ৫ লাখ টাকার মাছ চুরি করে নেয় তারা।

তিনি আরও জানান, আমাদের মূল পেশা কৃষিকাজ। এলাকার চান বন, বড়জালা, হরিণ বেড়, মিয়া বন, বাওয়া ও পুবের বনে আমাদের ১ হাজার বিঘা জমিতে বোরো ধান আবাদ করা হয়েছিল। কিন্তু এখন ধান পাকতে শুরু করলেও আমরা ধান কাটতে পারছি না। সাবেক মেম্বার মনিরুজ্জামন এর নেতৃত্বে দিনের বেলা এবং রাতে কেটে নেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ২২বিঘা জমির ধান কেটে নিয়েছে। এই ফসল যদি আমরা না পাই তাহলে আমাদের ৬০০ লোকের বেচে থাকাই কষ্ঠকর হবে। লুটপাটের ঘটনায় মামলা দিলেও থানা তা রেকর্ড করেনি। ধান কেটে নেয়ার বিষয়টিও আমরা পুলিশ ও প্রশাসনকে অবহিত করেছি। কিন্তু কোন প্রতিকার পাইনি। আমরাও চাই হত্যার ঘটনার বিচার হোক। কিন্তু তারা যে লুটপাট করেছে তারও বিচার হওয়া উচিত এবং নিরিহ লোকজনকে রক্ষা করা প্রয়োজন।

মাহবুবুল আলম জানান, কোন প্রতিকার না পেয়ে আমি নিজে গত ১৬ এপ্রিল এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবর আবেদন করেছি। যার অনুলিপি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকেও প্রদান করেছি। মাননীয় জেলা প্রশাসক বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য পুলিশ সুপারকে অনুরোধ করেন। কিন্তু আমরা কোন প্রতিকার পাইনি।

এ ব্যাপারে সাবেক মেম্বার মনিরুজ্জামান মনুর দুটি মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করার চেষ্ট করা হলে একটি বন্ধ পাওয়া যায় এবং অপরটি রিসিভ করেননি। পরে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করলেও কোন জবাব দেননি।

লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) মো. সাইদুর রহমান এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন কেটে দেন। পরে হবিগঞ্জ সদর, শায়েস্তাগঞ্জ ও লাখাই সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সন্তোষপুর গ্রামে যাতে আর কোন ঘটনা না ঘটে  তার জন্য স্থায়ীভাবে পুলিশ ক্যাম্প করে ১০জনকে দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। কারও ধান যাতে কেউ কেটে না নিতে পারে তার জন্য সেখানে পুলিশ মোতায়েনের পাশাপাশি বিষয়টি নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com