সংবাদ শিরোনাম :
শ্রীমঙ্গলে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় আটক কৃষকের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন পাকিস্তানে ট্রেনের ধাক্কায় মিনিবাসে থাকা ২০ শিখ তীর্থযাত্রী নিহত ওয়ানডেতে শতাব্দীর সেরাদের তালিকায় ২য় সাকিব লক্ষ্মীপুরে ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে প্রাণ গেল দুই চালকের বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ১২ লাখ ছুঁইছুঁই ঠাকুরগাঁওয়ে টাংগন নদীর পানি বৃদ্ধি দুঃশ্চিন্তায় রয়েছে নদী পারের মানুষ । করোনা কালে শায়েস্তাগঞ্জে বিয়ে সাদীর ধুম পড়েছে করোনায় হবিগঞ্জে এ পর্যন্ত ৬৩ জন পুলিশ সদস্য আক্রান্ত ও সুস্থ হয়েকরোছে ২২ জন হবিগঞ্জের মাধবপুরে ইয়াবাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার হবিগঞ্জে বাস-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে ৫ জন আহত নিহত ১
হবিগঞ্জের মাধবপুরে সংরক্ষিত বনে আগুন পুড়েছে ৩৮ হাজার গাছ

হবিগঞ্জের মাধবপুরে সংরক্ষিত বনে আগুন পুড়েছে ৩৮ হাজার গাছ

হবিগঞ্জের মাধবপুরে সংরক্ষিত বনে আগুন পুড়েছে ৩৮ হাজার গাছ
হবিগঞ্জের মাধবপুরে সংরক্ষিত বনে আগুন পুড়েছে ৩৮ হাজার গাছ

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার রঘুননন্দন রেঞ্জের জগদিশপুর বিটে প্রায় ১৫ হেক্টর বনভূমির ৩৮ হাজার গাছ আগুনে পুড়ে গেছে। বনরক্ষী ও উপকারভোগিরা ২দিন চেষ্টা চালিয়ে রোববার আগুন নেভাতে সক্ষম হন।

হবিগঞ্জ সহকারী বন সংরক্ষক আব্দুল আল মামুন রোববার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে গত শনিবার সকালে বনে আগুন লাগার দৃশ্যটি বন বিভাগ ও পাশ্ববর্তী বস্তিবাসীদের নজরে আসে। দুর্গমস্থানে ফায়ার বিগ্রেড যেতে না পারায় বস্তিবাসী ও বনবিভাগের লোকজন অনেক চেষ্টা করে রোববার দুপুরে আগুন নেভাতে সক্ষম হন। তবে অগ্নিকান্ডের সঠিক কারন জানা যায়নি।

জগদিশপুর বিটের ফরেষ্টার শামসুজ্জামান বলেন- ধারণা করা হচ্ছে শত্রুতাবশত কিংবা রাখালদের ফেলে যাওয়া সিগারেটের আগুন থেকে এই অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হতে পারে।

তিনি জানান- ২০১৬- ২০১৭ আর্থিক বছরে এই গাছগুলো সৃজন করা হয়েছিল। প্রতি হেক্টরে ১৫শ’ গাছ সৃজন করা হয়। সে অনুযায়ী ক্ষতিগ্রস্থ গাছের সংখ্যা সাড়ে ৩৭ হাজার গাছ।

উপকারভোগী ফরিদা বেগম জানান, সরকারের সহযোগিতায় বাগান পেয়ে আশা করেছিলাম লাভবান হব। কিন্তু আগুনে সব আশা পুড়ে গেছে।

হবিগঞ্জ সহকারী বন সংরক্ষক আব্দুল আল মামুন জানান, সরকারের রাজস্ব অর্থায়নে ৯০ হেক্টর জায়গায় বিভিন্ন প্রজাতির দীর্ঘমেয়াদী বনায়ন সৃজন করা হয়। এগুলো সরকারি নিদের্শে ১২৫ জন উপকারভোগীদের মধ্যে বরাদ্দ দেয়া হয়। এটি একটি সফল বাগান ছিল। আগুন নেভানোর জন্য পানির কোন ব্যবস্থা না থাকা এবং খরা মৌসুম হওয়ায় আগুনের তীব্রতা বাড়তে থাকে। ফলে আগুনের লেলিহান শিখা দ্রুত পুরো বনে ছড়িয়ে পড়ে। বনরক্ষী ও উপকারভোগীরা ২ দিন চেষ্টা চালিয়ে রোববার সকালে আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। পাহাড়ের ভেতরে যান চলাচলের রাস্তা না থাকায় ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি বনে ঢুকতে পারেনি। ক্ষতিগ্রস্থ বনে নতুন করে গাছ লাগানোর পরিকল্পনা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com