হবিগঞ্জের বাহুবলে ৪ বছরেও চালু হয়নি ট্রমা সেন্টার

হবিগঞ্জের বাহুবলে ৪ বছরেও চালু হয়নি ট্রমা সেন্টার

হবিগঞ্জের বাহুবলে ৪ বছরেও চালু হয়নি ট্রমা সেন্টার
হবিগঞ্জের বাহুবলে ৪ বছরেও চালু হয়নি ট্রমা সেন্টার

হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জের বাহুবলে সরকারের প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত একটি ‘ট্রমা সেন্টার ভবন’ নিয়ে চলছে ঠেলাঠেলি। দীর্ঘ ৪ বছর ধরে স্থানীয় গণপূর্ত ও স্বাস্থ্য বিভাগের মধ্যে এ ঠেলাঠেলির কারণে ভবনটির ভাগ্য এখন অনিশ্চিত-অন্ধকারে নিমজ্জিত। বিষয়টি নিয়ে সাধারণ জনগণসহ সংশ্লিষ্ট সকলের মধ্যে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ, হতাশা। এ অবস্থায় একদিকে অযতœ-অবহেলায় বিনষ্ট হচ্ছে কোটি-কোটি টাকার সরকারি সম্পদ। অপরদিকে জরুরি স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন দুর্ঘটনায় আহত জনগণ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১০ সালে ‘ফিজিক্যাল ডেভলাপমেন্ট প্রজেক্ট’ নামে সরকার দেশের ৬টি মহাসড়কের পাশে ১০ শয্যার ট্রমা সেন্টার নির্মাণের একটি প্রকল্প গ্রহণ করে। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে মহাসড়কে দুর্ঘটনায় হাত-পা ভাঙ্গা রোগীদের দ্রুত চিকিৎসা প্রদান। এরই ধারাবাহিকতায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকায় একটি ৩ তলা ভবন নির্মাণ করা হয়। এতে ব্যয় হয় প্রায় ৩ কোটি ১৮ লাখ টাকা। পরে সরবরাহ করা হয় প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম ও আসবাবপত্র। কিন্তু ২০১৪ সালে এর নির্মান কাজ শেষ হলেও দীর্ঘ ৪ বছরেরও বেশি সময় ধরে অদৃশ্য-অজ্ঞাত কারণে ভবনটি হস্তান্তর হয়নি স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে। ফলে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত রোগীদের পূর্বের মতই বাধ্য হয়ে যেতে হচ্ছে ঢাকা অথবা সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এ অবস্থায় বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ ও হতাশা ছড়িয়ে পড়েছে জেলার সচেতন মহলসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে।

এ ব্যাপারে বাহুবল উপজেলার ফদ্রখলা গ্রামের ব্যবসায়ী সাইফুর রহমান জানান, প্রমা সেন্টারটি চালু হলে আমরা সহজেই উন্নত চিকিৎসা নিতে পারতাম। কিন্তু সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাদের অবহেলায় আমরা সেটি থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। পাশাপাশি অযতœ-অবহেলায় বিনষ্ট হচ্ছে কোটি-কোটি টাকার সরকারি সম্পদ
মিরপুর প্রেসক্লাব সভাপতি সাংবাদিক সমুজ আলী রানা জানান, অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়েছে ট্রমা সেন্টারের ভাগ্য। কিছু দায়িত্বহীন ব্যাক্তির উদাসীনতার কারণে স্মান হয়ে যাচ্ছে সরকারের একটি মহতি উদ্যোগ। আমরা দ্রুত এর প্রতিকার চাই।

জানতে চাইলে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিয়েছেন হবিগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এবং সিভিল সার্জন। দু’জনই দায় চাপাচ্ছেন ‘একে অন্যের উপর’।

হবিগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সাদ মোহাম্মদ আন্দালিব জানান, স্বাস্থ্য বিভাগ ভবনটি গ্রহণ করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। অফিসিয়ালি চাইলে এখনই হস্তান্তর করতে প্রস্তুত তিনি। তবে তার বিপরীত বক্তব্য দিয়েছেন হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. সুচিন্তচৌধুরী।

তিনি বলেন, আমি কি তালা ভেঙ্গে ভবনে ঢুকব। তাদের জটিলতার কারণে তারা (গণপূর্ত) ভবনটি হস্তান্তর করতে পারছেনা। আমরা গ্রহণের জন্য প্রস্তুত’।

হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এম এম মুনিম চৌধুরী বাবু জানান, বাহুবল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সভাপতি ছিলেন সংরক্ষিত আসনের সংসদ এমপি কেয়া চৌধুরী, এ বিষয়ে তিনিই বলতে পারবেন।

হবিগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি।

হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনের বর্তমান সদস্য শাহ নেওয়াজ মিলাদ গাজী বলেন, এ বিষয়ে তিনি স্বাস্থমন্ত্রীর সাথে কথা বলেছেন, অচিরেই সেটা চালু করে দেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com