সংবাদ শিরোনাম :
দশ টাকায় টিকিট কেটে চক্ষু পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী বাহুবলে বেকারিতে অনুমোদনবিহীন বিএসটিআই লোগো ব্যবহার ২৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল ১৪ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু হবিগঞ্জ এসে পৌঁছেছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শীতবস্ত্র হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা সিলেট বোর্ডে পাসের হার কমেছে ১৭.৯৬ শতাংশ, ফেল বেশি মানবিকে : হবিগঞ্জে পাশের হার ৭৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির  সভা অনুষ্ঠিত  মাধবপুরে নবাগত ইউএনওর মতবিনিময় সভা  মৎস্য কর্মকর্তার ডিজিটাল আইনের মামলায় দুই সাংবাদিকের জামিন মঞ্জুর
স্বীকারোক্তির ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল পকেটমার চোর চক্রের গডফাদার শায়েস্তাগঞ্জের ফারুক আটক

স্বীকারোক্তির ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল পকেটমার চোর চক্রের গডফাদার শায়েস্তাগঞ্জের ফারুক আটক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবশেষে পকেটমার চোর চক্রের গডফাদার শায়েস্তাগঞ্জের ফারুক মিয়া (৪০) জনতার হাতে আটক হয়েছে এবং টাকা নেয়ার কথা নিজ মুখে স্বীকারোক্তি দিচ্ছে এমন একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এতে শায়েস্তাগঞ্জ ও হবিগঞ্জে ব্যাপক তোলপাড় চলছে। এদিকে তাকে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা খুঁজে বেড়াচ্ছে।
জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে শায়েস্তাগঞ্জ দাউদনগর এলাকার বাসিন্দা ফারুক মিয়ার নেতৃত্বে হবিগঞ্জ শহরের বিভিন্ন স্থানে পকেটমার চক্রের সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। এ চক্রটি সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংক, শপিং মল, কোর্ট প্রাঙ্গণে অবাধে বিচরন করে। তাদের সঙ্গে ৪/৫ জন লোক থাকে। কোনো লোক ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে আসা মাত্র কৌশলে নিয়ে যায়। আবার ধরা পড়লে তাদের সাথে থাকা লোকজন তাকে ছাড়িয়ে নেয়। ফারুক ও তার সহযোগিরা ইতোমধ্যে পুলিশের হাতে আটক হলেও আইনের ফাঁক দিয়ে বেরিয়ে এসে পুনরায় এসব ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। তাদের হাত থেকে ব্যবসায়ী, প্রবাসী এমনকি বিচারপ্রার্থীরাও ছাড় পাচ্ছে না। প্রতিদিনই তারা শহর থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। গত মঙ্গলবার শহরের সবজুবাগ এলাকার এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে প্রতারণা করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। বিষয়টি সিসিটিভির ফুটেজ দেখে ফারুককে কৌশলে সবুজবাগ এনে আটক করে। এ সময় সে নিজ মুখে স্বীকার করে ৮ হাজার ৫৭০ টাকা নিয়েছে এবং শায়েস্তাগঞ্জে দাউদনগর এলাকার বটগাছ তলার ব্যবসায়ী আবুল হোসেনের মাধ্যমে বিকাশে টাকা এনে টাকার মালিক আসাদুল নামে এক ব্যক্তিকে দেয়। সে আরও জানায়, টাকা পেয়ে আবুল হোসেন ও অন্য সহযোগিদের কাছে জমা রাখে। তবে আসাদুলের দাবি ছিলো সে ১০ হাজার টাকা চুরি করেছে। কিন্তু ফারুক স্বীকার করে যা ৪ মিনিটের একটি ভিডিও ফুটেজ ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। তবে এসময় ফারুককে ব্যবসায়ীরা উত্তম মধ্যমও দেন। পরে সে ভবিষ্যতে এমন করবে না মর্মে অঙ্গীকার করে এবং নিজের মুখে পকেটমার চক্রের সভাপতি দাবি করে। পরে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। এ ছাড়া সে জানায়, চুরি এবং প্রতারণার টাকা আমি একা নেই না। হবিগঞ্জে সিন্ডিকেট আছে। তাদেরকেও ভাগ দিতে হয়। বেশিরভাগ সে নিয়েই থাকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com