স্বাধীনতার ৪৭ বছরে জমে থাকা সড়কে অনিয়মের পেন্ডোরার বাক্স যেন খুলে দিয়েছে প্রতিবাদী শিক্ষার্থীরা!

স্বাধীনতার ৪৭ বছরে জমে থাকা সড়কে অনিয়মের পেন্ডোরার বাক্স যেন খুলে দিয়েছে প্রতিবাদী শিক্ষার্থীরা!

স্বাধীনতার ৪৭ বছরে জমে থাকা সড়কে অনিয়মের পেন্ডোরার বাক্স যেন খুলে দিয়েছে প্রতিবাদী শিক্ষার্থীরা!

  • যারা আইন তৈরি করেন, তারা আইনের কতটা ঊর্ধ্বে থাকেন! গত পাঁচ দিনে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল শিক্ষার্থীরা!

লোকালয় ডেস্ক : সড়কের শত অনিয়ম চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। রাষ্ট্রের শীর্ষ কর্তাব্যক্তি ও যারা আইন তৈরি করেন, তারা আইনের কতটা ঊর্ধ্বে থাকেন গত পাঁচ দিনে শিক্ষার্থীরা সবাইকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল। বছরের পর বছর চলতে থাকা ফিটনেস ও কাগজপত্রবিহীন গাড়ি, লাইসেন্সবিহীন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক চালক, উল্টোপথে যানবাহন চালানোসহ শত অনিয়ম রুখে দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। স্বাধীনতার ৪৭ বছরে জমে থাকা সড়কে অনিয়মের পেন্ডোরার বাক্স যেন খুলে দিয়েছে প্রতিবাদী এসব ছাত্রছাত্রী।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে তারা বুঝিয়ে দিয়েছেন, শিশু-কিশোররা শহরটাকে কেমন দেখতে চায় এবং সেই নিরাপদ শহর অর্জনে কী করতে হবে। সারাদিন রাস্তায় পড়ে থেকে তারা যে অনমনীয়তা প্রদর্শন করেছে সেটিই তাদের পক্ষে মানুষের সমর্থন বাড়াচ্ছে। তবে অভিযোগ উঠেছে, এ আন্দোলনকে ঘিরে অসৎ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য বাস্তবায়নেও একটি পক্ষ মাঠে সক্রিয়। বৃহস্পতিবার সাইন্সল্যাব ও মিরপুরে সহিংসতার ঘটনাও ঘটেছে। সাইন্সল্যাবে পুলিশের মোটরসাইকেলে আগুন দিয়েছে আন্দোলনকারীরা। মিরপুরে হামলা হয়েছে আন্দোলনকারীদের ওপর। এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রদল ও শিবিরের সক্রিয় অনেক নেতাকর্মীদের উপস্থিতি দেখা গেছে।
গত রবিবার দুই শিক্ষার্থী বাসচাপায় নিহত হলে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা। সে আন্দোলন কয়েকদিনে ছড়িয়েছে দেশব্যাপী। কিন্তু আন্দোলনের গত দুই দিন ধরে ছাত্ররা বিভিন্ন সড়কে ব্যাপকভাবে গাড়ির চালকের লাইসেন্স পরীক্ষার পাশাপাশি বিভিন্ন অনিয়ম রুখে দেয়।
বৃহস্পতিবার মিরপুর রোডে বিজিবির দুটি গাড়ি এবং পুলিশ ও ঢাকা ওয়াসার একটি গাড়ির চালকের বিরুদ্ধে মামলা করায় ছাত্ররা। কারণ তাদের কেউ লাইসেন্স দেখাতে পারেনি। ধানমন্ডি এলাকায় পানিসম্পদমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর গাড়ির চালকও লাইসেন্স দেখাতে পারেননি। পরে তদের বাধার মুখে মন্ত্রী সেই গাড়ি থেকে নেমে অন্য একটি গাড়িতে করে গন্তব্যে যান। শনির আখড়ায় সংসদ সদস্য পংকজ দেবনাথ গাড়ির কাগজপত্রের অভাবে শিক্ষার্থীদের বাধায় আটকা পড়েন কয়েক ঘণ্টা।
টানা পঞ্চমদিনের মতো প্রতিবাদে সড়কে নামে শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকেই একজন-দুজন করে ফার্মগেটমুখী হতে থাকে। এর মধ্যে আকাশে মেঘও জমতে শুরু করে। সকাল ১০টার দিকে ফার্মগেট পথচারী সেতুর নিচে জড়ো হয় কয়েকশ শিক্ষার্থী। চলতে থাকে স্লোগান- ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’।
রাজধানীর বিভিন্ন সড়কের গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোয় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করে। বৃষ্টিতে ভিজে একাকার হয়ে তারা স্লোগান দিতে থাকে। এক পর্যায়ে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও যুক্ত হন।
সড়কে নেমেই শিক্ষার্থীরা যানবাহনের লাইসেন্স পরীক্ষা শুরু করে। লাইসেন্স না থাকলে বা মেয়াদোত্তীর্ণ হলে সঙ্গে সঙ্গেই নিয়ে যাচ্ছে পুলিশের কাছে। মামলা দিয়ে তবেই ছাড়। কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউ, বিজয় সরণি ও মানিক মিয়া অ্যাভিনিউয়ে যাওয়ার সব সড়কেই শিক্ষার্থীরা নিজেদের মতো করে চেকপোস্ট বানিয়েছে। বিজয় সরণি যাওয়ার সড়কে তারা বিআরটিসির দোতলা একটি বাস আড়াআড়ি রেখে ব্যারিকেড তৈরি করে।
অ্যাম্বুলেন্স, হজযাত্রী ও জরুরি যান ছাড়া আর কোনো যানবাহন ফার্মগেট থেকে ছাড়া হয়নি। ফার্মগেট এলাকায় জরুরি যানের গায়ে সাদা কাগজে ‘ইএম (ইমার্জেন্সি)’ লিখে ছেড়ে দেওয়া হয়। যাতে পরবর্তীতে আর কেউ না আটকায়। কোনো কোনো গাড়িতে শিক্ষার্থীরা নিজেরাই বসে কাচের ভেতর থেকে ইশারা দিয়ে গাড়ি পার করে দেয়। কেউ কেউ বিদেশযাত্রীর পাসপোর্ট দেখাতে দেখাতে যান পার করে দেয়।
হলিক্রস স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা ফার্মগেট পথচারী  সেতুর নিচে সমবেত হয়ে জাতীয় সংগীত গায়। তাদের সঙ্গে গলা মেলায় আশপাশে থাকা লোকজন। ফার্মগেটে অনেক অভিভাবকও এসেছিলেন। এদের একজন পারভীন আক্তার। মেয়ে হলিক্রসের শিক্ষার্থী। পারভীন বলেন, ‘সকালেই মেয়েকে নিয়ে এসেছি। বৃষ্টিতে ভিজেছে, সেই কাপড় গায়েই শুকিয়েছে। ওদের প্রতি আমার পূর্ণ সমর্থন আছে।’
দুপুরের পর শিক্ষার্থীরা বিশাল একটি মিছিল বের করে কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউতে। সার্ক ফোয়ারা মোড়ে এসে তারা এদিনের আন্দোলন শেষ করে। তবে জানায়, আজ শুক্রবার হলেও তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন চালিয়ে যাবে শিক্ষার্থীরা।
লাইসেন্স না থাকায় এমপি পংকজ দেবনাথ দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ
রাজধানীর শনির আখড়ায় গাড়িচালক ড্রাইভিং লাইসেন্স দেখাতে না পারায় সংসদ সদস্য পংকজ দেবনাথকে দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা। এ সময় এমপির বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাতে থাকেন শিক্ষার্থীরা।
তখন সংসদ সদস্যকে মুক্ত করতে এগিয়ে আসেন কদমতলী থানা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মমিনুল ইসলাম রাজীব। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়লে এক পর্যায়ে তাকে বেদম মারধর করা হয়। পরে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও ইন্স্যুরেন্স আপডেট না থাকার অভিযোগে পুলিশ মামলা দায়ের করলে এমপির গাড়িটি ছেড়ে দেন শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত শনির আখড়া দনিয়া স্কুলের সামনে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে।
পংকজ দেবনাথ বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের সংসদ সদস্য এবং স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা ১টার দিকে সংসদ সদস্য পংকজের গাড়ি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক দিয়ে যাচ্ছিল। ওই সময় বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা তার গাড়ি থামান। তারা এমপির গাড়ির চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষা করেন। তবে গাড়ি চালক তার ড্রাইভিং লাইসেন্স দেখাতে না পারায় শিক্ষার্থীরা পংকজ দেবনাথের গাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখে এবং আইনানুযায়ী তাকে গ্রেফতারের দাবি জানান।
কিন্তু সেসব কাগজপত্র দেখাতে না পারলে পুলিশকে এ বিষয়ে মামলা দায়ের করতে বলেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশ নীরব ভ‚মিকা পালন করলে তা দেখে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়ে সংসদ সদস্যের গাড়ি অবরোধ করে রাখেন।
গাড়ি ধরে ছাত্ররা, মামলা দেয় পুলিশ
গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল পর্যন্ত কাকরাইল মোড়ে অবস্থান করে বিক্ষোভ শুরু করে শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা উই ওয়ান্ট জাস্টিস, আমার ভাইয়ের কান্না- আর না আর না, আমার বোন কবরে- খুনি কেন বাইরে, এসব স্লোগান দেয়। শিক্ষার্থীরা মোড়ের সব দিকের রাস্তা বন্ধ করে দেয়। ফলে এ এলাকায় সৃষ্টি হয় দীর্ঘ যানজট।
বেলা সোয়া ১১টার দিকে কাকরাইল মোড়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা কেউ সার্কেল করে সড়কের মাঝখানে বসে স্লোগান দিচ্ছে বিচারের দাবিতে। কেউ আবার সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে যানবাহন আটকে দিচ্ছে। অন্য একটি গ্রুপ ঘুরে ঘুরে চালকের লাইসেন্স চেক করছে।
যাদের লাইসেন্স আছে তাদের কিছু না বললেও যাদের লাইসেন্স নেই তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে সার্জেন্টের কাছে চালককে নিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে লাইসেন্স চেক করার যাওয়ার সুযোগ দেওয়া হবে চালকরা এমনটা ভাবলেও শিক্ষার্থীরা বেলা একটা পর্যন্ত কোনো যানবাহনও যেতে দেয়নি। পরে যদিও জরুরি কাজের কথা বলে অনেকে এলাকা ছাড়ার সুযোগ পেয়েছেন। তবে শুরু থেকে শিক্ষার্থীরা অ্যাম্বুলেন্স যেতে সহযোগিতা করেছে।
দুপুর ১২টার দিকে ছাত্রদের লাইসেন্স চেকের মুখে পড়েন একজন প্রাইভেটকার চালক। বয়স্ক এই মানুষটির কাছে লাইসেন্স যাওয়ার পর তিনি বলেন, বাবা লাইসেন্স নিয়ে আসিনি। তখন সমস্বরে শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘আঙ্কেল লাইসেন্স নাই বইসা থাকেন। কিছু করার নাই।’
পুরো সময়জুড়ে কাকরাইলে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা নীরবে দাঁড়িয়ে ছিলেন। আন্দোলন শুরুর দিনে কোথাও কোথাও পুলিশের কিছু সদস্য শিক্ষার্থীদের বাধা দিলেও বৃহস্পতিবার এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি।
দিনভর শহবাগ মোড়ে ৩৮টি মামলা দেয় শাহবাগ এলাকার ট্রাফিক পুলিশ। আর ডিএমপির পুরো রমনা বিভাগে মামলা হয়েছে তিনশরও বেশি। এসব মামলার অধিকাংশ ছিল- চালকের লাইসেন্স না থাকা, লাইসেন্স থাকলেও মেয়াদ না থাকা বা গাড়ির রেজিস্ট্রেশন না থাকার মামলা।
সরেজমিন দেখা গেছে, বেলা ১১টা থেকে শাহবাগ মোড় অবরোধ করে আন্দোলনে নামে ছাত্রছাত্রীরা। রাস্তার মাঝে বসে স্লোগান ও বক্তব্য দেওয়ার পাশাপাশি একদল শিক্ষার্থী ব্যস্ত ছিল চলমান যানবাহনের কাগজ পরীক্ষায়। তারা যাচাই করছিল রাস্তায় নামা গাড়িগুলোর বৈধ কাগজপত্র আছে কি না। আবার কাগজ থাকলেও সেগুলো নবায়ন করা কি না। যখনই কোনো গাড়ির বা চালকের কাগজে সমস্যা পেয়েছে তখনই সেই গাড়িটি আটক করে নিয়ে গিয়েছে ট্রাফিক পুলিশের কাছে। কাগজ ঠিক না থাকলে ট্রাফিক পুলিশকে বলছে, তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিতে। শাহবাগে দায়িত্বে থাকা ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরাও সারাদিন ব্যস্ত ছিলেন গাড়ি আটক ও মামলা দেওয়ার কাজে। তবে বেলা সাড়ে ৩টার পর তাদেরকে আর শাহবাগ এলাকায় দেখা যায়নি। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।
লাইসেন্স দেখাতে না চাওয়ায় লাঞ্ছিত পুলিশ
রাজধানীতে মোটরসাইকেলে করে আসা এক পুলিশ সদস্যকে লাইসেন্স না দেখানোয় তাকে লাঞ্ছিত করেছে ছাত্ররা। পরে মোটরসাইকেলটিকে সার্জেন্টের মাধ্যমে পাঠানো হয় ডাম্পিংয়ে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিরপুর রোডে আসাদ গেট এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।
ঢাকা মহানগর পুলিশের ক্রাইম ডিভিশনের কনস্টেবল সিরাজ হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে করে আসছিলেন। ওই সড়কে সকাল থেকে অবস্থান নিয়ে লাইসেন্সের পরীক্ষা চলছিল। হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালালে তাকেও মামলা দেওয়াচ্ছিল ছাত্ররা। এর মধ্যে ঢাকা মেট্রো-হ ৩২-৬৭৩১ নম্বরের মোটরসাইকেলটিকে চালাচ্ছিলেন পুলিশ সদস্য সিরাজ। তার কাছে লাইসেন্স চাইলে তিনি তা দেখাতে রাজি হননি।
এক পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা উত্তেজিত হয়ে উঠে এবং পুলিশ সদস্যের মোটরসাইকেলটি ভাঙচুরের চেষ্টা চালায়। কিন্তু সেখানে দায়িত্বও ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা শিক্ষার্থীদের বাধা দেয়। শিক্ষার্থীদের বাধার মুখে মোটরসাইকেলটি ডাম্পিং স্টেশনে পাঠানোর সিদ্ধান্ত জানান ট্রাফিক সার্জেন্ট উজ্জ্বল।
লাঠিচার্জ করতে গিয়ে র‌্যাগিংয়ের শিকার এডিসি
লাঠিচার্জ করে রাস্তা থেকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সরাতে গিয়েছিলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের ওয়ারি জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) নূরুল আমিন। কিন্তু ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনি নিজেই শিক্ষার্থীদের র‌্যাগিংয়ের শিকার হলেন। শিক্ষার্থীরা তাকে গান গাইতে বাধ্য করে। শিক্ষার্থীদের কথামতো এডিসি নূরুল আমিন গাইলেন- ‘গ্রামের নওজোয়ান, হিন্দু মুসলমান, আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম।’
বৃহস্পতিবার রাজধানীর সায়েন্স ল্যাবরেটরি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রাহাত অন্তু নামের একজনের ফেসবুক ওয়ালে এই ভিডিও দেখা যায়। রাহাত অন্তু তার ওয়ালে লিখেছেন, ‘উনি আমাদের লাঠিচার্জ করতে এসেছিলেন। অতঃপর র‌্যাগিংয়ে পড়ে গেলেন, গান গাইতে বাধ্য হলেন। সারা জীবন তো সাধারণ মানুষকে র‌্যাগ দিলেন, আজ না হয় আমরা দিলাম।’ এরপর ভিডিওটি আপলোড করা হয় তার ফেসবুক ওয়ালে।
এ ব্যাপারে এডিসি নূরুল আমিন বলেন, ‘যারা আন্দোলন করছে, তারা অনেক ছোট। তারা অনেক কিছুই বোঝে না। তাছাড়া গুলি করে ও মাইর দিয়ে কোনো আন্দোলন দমানো যায় না। তাই তাদের সঙ্গে সম্পর্ক করে তাদের বুঝিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। তাদের আনন্দ দিতেই গান গেয়েছি।’ লাঠিচার্জ করতে যাওয়ার বিষয়টি সত্য নয় বলেও তিনি জানান।
গাড়িজুড়ে লেখা ‘আমার লাইসেন্স নাই’
প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি গাড়িতে (ঢাকা মেট্রো-ঘ ১১-৬৭৬০) রং দিয়ে ‘আমার লাইসেন্স নাই’সহ বিভিন্ন মন্তব্য লিখে দিয়েছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর ধানমন্ডির ২ নম্বর রোডে সিটি কলেজের পশ্চিম পাশে গাড়িটির কাগজপত্র না পেয়ে ওই গাড়িটিতে লেখা হয় নানা মন্তব্য।
এদিন গাড়ির কাগজপত্র ঠিক না পেয়ে অনেক সরকারি গাড়িতে তারা নানা মন্তব্য লিখে দেয়। ধানমন্ডির ২ নম্বর রোডে সিটি কলেজের পশ্চিম পাশে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি গাড়ির কাগজপত্র না পেয়ে লেখা হয় অনেক মন্তব্য।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পাজেরো গাড়িটি (ঢাকা মেট্রো-ঘ ১১-৬৭৬০) ধানমন্ডির ২ নম্বর সড়কে পৌঁছালে শিক্ষার্থীরা সেটা আটক করে কাগজপত্র তল্লাশি করে। কিন্তু চালক তার নিজের ও গাড়ির কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। এরপর পুরো গাড়িতে রং দিয়ে শিক্ষার্থীরা নানা মন্তব্য লিখে দেন। মন্তব্যগুলো হচ্ছে- ‘লাইসেন্সবিহীন চোরাই গাড়ি’, ‘চোরাই গাড়ি’, ‘আমার লাইসেন্স নাই’, ‘আমি চোর’, ‘নয় দফা দাবি মানতে হবে’ ইত্যাদি। এছাড়াও পুরো গাড়িতে ‘অপরাধী’ ও ‘চোর’ শব্দটি লিখে দেওয়া হয়। শাহবাগে বিজিবির একটি বড় ট্রাকের পেছনে লিখে দেওয়া হয় ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’।
পুলিশের মোটরসাইকেলে আগুন
নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানীজুড়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়ে এক ট্রাফিক সার্জেন্টের ওপর হামলা চালিয়ে তার মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটার দিকে সেখানে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট বায়েজিদের মোটরবাইকের লাইসেন্স দেখতে চায় শিক্ষার্থীরা। এ সময় তিনি লাইসেন্স না দেখিয়ে বরং ছাত্রদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন বলে অভিযোগ করেন ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির একজন ছাত্র।
তিনি বলেন, ‘ওই পুলিশ সার্জেন্ট আমাদের একজনকে ধাক্কা দেয়। তখন ছাত্ররা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে তিনি মোটরবাইক ফেলে দৌড় দেন। পরে তাকে ঘিরে পিটুনি দেওয়া হয়।’ আহত ট্রাফিক সার্জেন্ট বায়েজিদকে পরে সায়েন্স ল্যাব মোড়ের পুলিশ বক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। এদিকে বিক্ষোভকারীরা তার মোটরসাইকেলটি জ্বালিয়ে দেয়। এ ঘটনার পর সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়ে ট্রাফিক পুলিশ বক্স ঘিরে উত্তেজনা দেখা দেয়।
পুলিশের নিউমার্কেট জোনের এএসপি মো. শহীদুজ্জামান বলেন, ‘সার্জেন্ট বায়েজিদ বদলি ডিউটিতে এসেছিল। পথে কী হয়েছে, তা সঠিকভাবে বলতে পারব না। বায়েজিদ মাথায় আঘাত পেয়েছে। চিকিৎসকরা এক্স-রে আর সিটিস্ক্যান করতে বলেছেন। রিপোর্ট আসার পর বলা যাবে আঘাত কেমন।
রোগীর গাড়ি এগিয়ে দেয় শিক্ষার্থীরা
অ্যাম্বুলেন্সসহ রোগী বহনকারী গাড়িগুলোকে ভিআইপি মর্যাদা দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। গাড়িতে রোগী আছে শোনার সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সেই গাড়ি এগিয়ে দিতে দেখা গেছে।
রাজধানীর মিরপুর রোডের নীলক্ষেত মোড়ে দুপুর ১২টার দিকে একটি সিএনজিতে চড়ে আসেন এক অসুস্থ রোগী। এ সময় সিএনজি ড্রাইভার রোগী আছে বলার সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যস্ততা শুরু হয়ে যায়। এরপর একজন শিক্ষার্থী সিএনজি অটোরিকশার চালকের পাশে বসে সেই সিএনজিটি সিটি কলেজ মোড় পর্যন্ত এগিয়ে দেয়।সারাদিন মিরপুর রোডে এমনই দৃশ্য দেখা যায়। কোনো অ্যাম্বুলেন্স আসার সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীরা সেই অ্যাম্বুলেন্সকে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দিচ্ছে।
রোগীর গাড়ি এভাবে ছেড়ে দেওয়ার কারণ কী? জানতে চাইলে আন্দোলনরত এক শিক্ষার্থী নাফিসা আহমেদ বলে, ‘আমরা নিরাপদ সড়কের জন্য আন্দোলন করছি। কাউকে কষ্ট দেওয়া আমাদের উদ্দেশ্য নয়। আমাদের দাবি মেনে নিলেই আমরা সড়ক ছেড়ে দেব।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com