স্ট্রবেরির স্বাস্থ্য উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

স্ট্রবেরির স্বাস্থ্য উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

স্ট্রবেরির স্বাস্থ্য উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ
স্ট্রবেরির স্বাস্থ্য উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

লাইফস্টাইল ডেস্ক: এক সময় ইউরোপের বিভিন্ন দেশে স্ট্রবেরির চাষ শুরু হলেও আজকাল সারা বিশ্বেই এটি পাওয়া যায়। দেশেও ফলটির ব্যাপক চাষ হচ্ছে। ফলটি দেখতে যেমন আকর্ষনীয় তেমনি স্বাদেও অনন্য। স্ট্রবেরি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল হলেও এতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ পদার্থ এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট পাওয়া যায়।

স্ট্রবেরির পুষ্টিগুণ –

স্ট্রবেরিতে সমৃদ্ধ পরিমাণ ভিটামিন এবং খনিজ যেমন – ভিটামিন সি এবং কে, ফ্লেট, পটাসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ রয়েছে। স্ট্রবেরি কম ক্যালোরি, ফাইবার সমৃদ্ধ ফল, যাতে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পলিফেনল রয়েছে। মাত্র এক কাপ স্ট্রবেরির রসে ৪৯ ক্যালোরি, ৩g ফাইবার এবং ১২g কার্বোহাইড্রেট থাকে।

স্ট্রবেরির অসাধারণ কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা –

◘ হার্ট ভালো রাখে

স্ট্রবেরিতে রয়েছে উচ্চ মানের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস যা (খারাপ) কোলেস্টেরল দ্বারা আক্রান্ত কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি কমায়। এছাড়াও রক্তের বাহ্যিক ত্বককে ত্বরান্বিত করে, উন্নত রক্ত প্রবাহ সৃষ্টি করে এবং কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা প্রতিরোধ করে। স্ট্রবেরিতে রয়েছে উচ্চ ফাইবার কনটেন্ট ও ভিটামিন সি যা একটি আদর্শ কার্ডিয়াক স্বাস্থ্য প্যাক হিসেবে কোলেস্টেরল হ্রাস করতে সাহায্য করে।

◘ ত্বকের যত্নে

স্ট্রবেরিতে রয়েছে স্যালিসিলিক এসিড, আলফা হাইড্রক্সি এসিড (এএইচএ) এবং এলাজিক অ্যাসিড যা হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়, ব্রণ প্রতিরোধ করে এবং মৃত চামড়ার কোষগুলো অপসারণ করে। স্ট্রবেরি মাস্ক প্যাক তৈরি করার জন্য ৪-৫ টি স্ট্রবেরি ব্লেন্ডারে পেস্ট করে সাথে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে মুখের উপর আলতো ভাবে প্যাক টি লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

◘ এন্টি-এইজিং হিসেবে

স্ট্রবেরিতে ভিটামিন সি কোলাজেন উৎপাদন বৃদ্ধি করে, স্কিন টোন স্বাভাবিক করে এবং এন্টি-এইজিং হিসেবে কাজ করে। এছাড়াও গবেষণায় দেখা গেছে স্ট্রবেরির নির্যাসে রয়েছে অ্যানথোসায়ানিন্স যা সূর্যের অতিবেগুনী বিকিরণ থেকে রক্ষা করে।

◘ চোখের যত্ন

স্ট্রবেরি শুষ্ক চোখের অবস্থার প্রতিরোধ করতে পারে, অপটিক স্নায়ুর অধঃপতন, দৃষ্টি ত্রুটি এবং সংক্রমণ জাতীয় সমস্যা প্রতিরোধ করে। স্ট্রবেরির অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যেমন- ফ্ল্যাভোনোয়েডস, ফেনোলিক ফাইটোকেমিক্যালস এবং এল্যাজিক এসিডের মতো উপাদান গুলো প্রায় সব ধরনের চোখের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়াও স্ট্রবেরিতে রয়েছে পটাসিয়াম যা চোখের সঠিক চাপ বজায় রাখতে সাহায্য করে।

◘ উচ্চ রক্তচাপ হ্রাস করে

স্ট্রবেরিতে পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ পরিমাণে এবং কম মাত্রার সোডিয়াম। পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম ভাসোডিলেটর হিসাবে কাজ করে যা উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। এটি শরীরের বিভিন্ন অংশে রক্ত প্রবাহ সহজ করে। প্রত্যেকটি ফাংশনের কাজ সক্রিয় করতে সাহায্য করে।

◘ ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

স্ট্রবেরিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি, ফ্লেট, অ্যানথোসায়ানিন্স, কুইরেটটিন এবং কেমফেরোল যা চমৎকার এন্টি-অক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে। এই উপাদানগুলো ক্যান্সার এবং টিউমারের বিরুদ্ধে লড়াই করে। দৈনিক স্ট্রবেরি গ্রহণ ক্যান্সার কোষের উপস্থিতি হ্রাস করে যা গবেষণা দ্বারাও প্রমাণিত।

◘ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি

স্ট্রবেরির ভিটামিন সি এর উপস্থিতি রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার উন্নতি করে। সাধারণ কাশি ও ঠাণ্ডা জাতীয় সমস্যা দূর করতেও সাহায্য করে। ভিটামিন সি আমাদের দৈনিক চাহিদার প্রায় ১৫০ শতাংশ পূর্ণ করে।

◘ মস্তিষ্কের ফাংশন ভালো রাখে

স্ট্রবেরিতে আয়োডিন, ভিটামিন সি এবং ফাইটোকেমিক্যালের সমৃদ্ধ পরিমাণে যা স্নায়ুতন্ত্রের যথাযথ কার্যকারিতা বজায় রাখতে সহায়তা করে। এছাড়াও স্ট্রবেরির পটাসিয়াম, মস্তিস্কে রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি করে।

◘ ওজন কমাতে সাহায্য করে

স্ট্রবেরি অ্যাডিপোনেটটিন এবং লেপ্টিনের উৎপাদনে সহায়তা করে যা উভয়ই চর্বি বার্ন করতে সাহায্য করে। এসব উপাদান ক্ষুধা হ্রাস, গ্লুকোজ হ্রাস, এবং শরীরের ওজন এবং চর্বি কমাতে সাহায্য করে।

◘ জন্ম ত্রুটি প্রতিরোধ করে

স্ট্রবেরি মধ্যে রয়েছে ফলিক অ্যাসিড যা বিশেষ করে গর্ভাবস্থায় জন্ম ত্রুটি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। গর্ভাবস্থায় সুস্থ স্বাস্থ্য নিশ্চিত করার জন্য এটিও গুরুত্বপূর্ণ।

◘ প্রদাহ দূর করে

স্ট্রবেরির সি-রিঅ্যাক্টিভ প্রোটিন (সিআরপি) উচ্চ রক্ত চাপ কমাতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে, সপ্তাহে ১৬ টির বেশি স্ট্রবেরি খেলে নারীরা অন্যদের তুলনায় সি-রিঅ্যাক্টিভ প্রোটিনের মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে।

◘ স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়

স্ট্রবেরি মধ্যে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমূহের বিরোধী প্রদাহী শক্তি স্ট্রোকের সঙ্গে যুদ্ধ করে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

◘ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে

স্ট্রবেরির উচ্চ ফাইবার কনটেন্টের কারণে স্ট্রবেরি হজমে সাহায্য করে এবং বমি রোধ করে। এটি ডাইভারটিকুলাইটিস, ডাইজেস্টিভ ট্র্যাক্টের প্রদাহ প্রতিরোধ করে যা জ্বর এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

◘ দাঁত সাদা করে

স্ট্রবেরি তে রয়েছে মলিক এসিড যা প্রাকৃতিক ভাবে দাঁত সাদা করতে সাহায্য করে। বেকিং সোডার সঙ্গে স্ট্রবেরি মিক্সড করে আপনার দাঁতের উপর এটি প্রয়োগ করে ৫ মিনিটের জন্য রেখে টুথব্রাশ ব্যবহার করে ধুয়ে ফেলুন৷ এটি হলুদ দাঁতকে করে তুলবে চকচকে সাদা।

◘ ডায়াবেটিস কমাতে

স্টাডিজে দেখা গেছে যে স্ট্রবেরিতে, কম গ্লাইএসএমিক ইনডেক্স আছে, ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে পারে। এছাড়াও স্ট্রবেরি খেলে ডায়াবেটিক্স এর গ্লাইএসেমিক নিয়ন্ত্রণ করে।

◘ চুলের যত্নে

অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, এলাজিক এসিড, এবং ভিটামিন সমৃদ্ধ বৈচিত্র্য চুল পড়া রোধ করে, চুল ময়েশ্চারাইজ এবং চুলের খুশকী দূর করে। কন্ডিশনার হিসেবেও এটি কাজ করে। ১ টেবিল-চামচ দই এবং ৫-৬ টি স্ট্রবেরি মিক্সড কতে চুলে লাগাতে পারেন। ৩০ মিনিট পর স্বাভাবিক নিয়মে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন স্ট্রবেরি প্রাকৃতিক ভাবে চুলের কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে।

◘ হাড়ের স্বাস্থ্য রক্ষা

ম্যাংগানিজ, ভিটামিন সি এবং কে, এবং স্ট্রবেরির পটাসিয়াম, হাড়ের স্বাস্থ্য উন্নত করতে সাহায্য করে। ভিটামিন কে ও পটাসিয়াম শরীরের মধ্যে ক্যালসিয়াম বৃদ্ধি করে এবং হাড়ের ঘনত্ব বাড়ায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com