সৌদি সাংবাদিক গুম, প্রিন্সের হাতে রক্তের দাগ!

সৌদি সাংবাদিক গুম, প্রিন্সের হাতে রক্তের দাগ!

সৌদি সাংবাদিক গুম, প্রিন্সের হাতে রক্তের দাগ!

অনলাইন ডেস্ক: নিজেদের একচ্ছত্র স্বৈরশাসন ও শোষণের পথকে পাকাপোক্ত রাখতে ভিন্নমত দমনের এই সময়ের সৌদি পদ্ধতিটা তাদের বর্বরতম অতীত ইতিহাসকেই বারবার মনে করিয়ে দেয়। ইসলাম পূর্বযুগে নারীর কোনো অধিকারেই আরব সমাজের দণ্ডমুণ্ডের কর্তারা বিশ্বাস করত না। মানবিক মর্যাদাও ছিল পদদলিত। এরপর আরব জীবনে নতুন এক শান্তির ধর্ম এসেছে। বিশ্বব্যাপী সেই ধর্মের ছায়াতলে শত কোটি মানুষ আশ্রয়ও নিয়েছে। পার হয়েছে বহু চড়াই-উৎরাই। কিন্তু এক হাজার ৪০০ বছর পেরিয়ে গেলেও ইসলামপূর্ব সেই অবস্থান থেকে সৌদি আরবের খুব বেশি নড়চড় হয়নি।

সৌদি শাসকগোষ্ঠীর মানবতাবিরোধী আলোচিত কর্মকাণ্ডের সর্বশেষ উদাহরণ হলো সাংবাদিক জামাল খাসোগির বিস্ময়করভাবে গুম হয়ে যাওয়া। ব্যক্তিগত কাজে তুরস্কের সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে ঢোকার পর এই সৌদি ভিন্নমতাবলম্বী নিখোঁজ হয়ে গেছেন। তুরস্কের সরকার ও বিশ্বমিডিয়া সন্দেহ করছে জামাল খাসোগিকে আর জীবিত রাখা হয়নি।

সৌদি আরবের এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় বদলটা ঘটেছে উচ্চাভিলাষী যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে আসার পর। তিনি দেশে মান্ধাতা আমলের রক্ষণশীল আইন ভেঙ্গে দিয়ে বেশ কিছু সংস্কার এনেছেন এটা সত্য। দেশে মুভি থিয়েটার চালু হয়েছে। মেয়েরা ড্রাইভিং লাইসেন্স পেয়েছে। এমনকি মেয়েরা একাকী মিউজিক কনসার্ট বা স্টেডিয়ামে গিয়ে খেলাধুলার দর্শকও হতে পারছে। কিন্তু তার এই সংস্কার প্রচেষ্টা যে, আসলে এক ধরনের আইওয়াশ ও পশ্চিমা প্রভুদের তুষ্ট করার ফন্দিফিকির, তা এরইমধ্যে প্রমাণিত হয়ে গেছে।

সৌদি নেতৃত্ব সিংহাসনের উত্তরাধিকারী এই যুবরাজ নিজের ক্ষমতা সংহত করার লক্ষ্যে গত বছরের শেষের দিকে এক ধাক্কায় ১১ জন জ্যেষ্ঠ যুবরাজ, দেশের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিদের একজন যুবরাজ আল-ওয়াহিদ বিন তালাল এবং আরো বেশ কজন সাবেক মন্ত্রীকে গ্রেপ্তার করেন। সেই সময় যাকে চিহ্নিত করা হয় দুর্নীতিবিরোধী অভিযান হিসেবে। রাজতন্ত্রের অভিজাতদের মধ্যে ভীতির সঞ্চার করে যুবরাজের একপাক্ষীয় ক্ষমতার ভিত নিরঙ্কুশ করার বড় পাঁয়তারা যে ছিল এটা সে ব্যাপারে বিশ্ববাসী এখন পুরোই নিঃশংসয়। শেষ পর্যন্ত গ্রেপ্তারকৃত মন্ত্রী, ব্যবসায়ী ও জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের ভাগ্যে কী জুটেছে তা এখনো অপরিষ্কার।

সাম্প্রতিককালে সৌদি আরব তার প্রতিবেশী রাষ্ট্র ইয়েমেনের সাথে এক চরম অসম যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছে। সৌদি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় প্রায়ই মারা পড়ছে ইয়েমেনের নিরীহ মানুষ, নারী ও শিশুরা। এমনকি সৌদি আরবের চাপিয়ে দেওয়া দুর্ভিক্ষে ইয়েমেনবাসী এখন না খেয়ে, বিনা চিকিৎসায় ধুকে ধুকে মারা যাচ্ছে। যুদ্ধের জুজু হিসেবে সামনে রাখা হয়েছে চিরায়ত সেই ইসলামী জঙ্গিবাদকে। যদিও আল কায়েদা, আইএস, তালেবানসহ ইত্যাকার সব জঙ্গিবাদিতার রূপকার ও পৃষ্ঠপোষক হলো আমেরিকা ও ইসরায়েলের ঘনিষ্ঠ মিত্র ওই সৌদি আরব। সৌদি আরবের এখন একটাই লক্ষ্য মার্কিনিদের কাছে দাসখত দিয়ে হলেও মধ্যপ্রাচ্যকে অস্থিতিশীল রেখে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করা। কিন্তু এই মোড়লগিরির খায়েশ মেটাতে গিয়ে ক্ষমতাসীন সৌদি রাজ পরিবারের এক নম্বর ব্যক্তি ওই প্রিন্স দিন দিন তাঁর মাত্রাজ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন। কাউকে ছেড়ে কথা বলছেন না তিনি। কারণ তাঁর আছে সর্বশক্তিমান সাহসদাতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েল।

কিন্তু এবার সাংবাদিক খাসোগির গুমের ঘটনায় খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও সৌদি সরকারের কাছে কৈফিয়ত তলব করেছেন। এই ঘটনাকে খুব ভয়ঙ্কর অবস্থা হিসেবে অভিহিত করে ঘটনার আদ্যোপান্ত জানতে চেয়েছেন তিনি।

সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের কড়া সমালোচক সৌদি সাংবাদিক খাসোগি গ্রেপ্তার আতঙ্কে এক বছর আগে দেশ ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছানির্বাসনে ছিলেন। তিনি ওয়াশিংটন পোস্টে কলাম লিখতেন। ব্যক্তিগত কাগজপত্রের প্রয়োজনে ২ অক্টোবর তুরস্কের সৌদি কনস্যুলেট ভবনে তিনি প্রবেশ করেন এবং সেখান থেকে আর বেরিয়ে আসেননি। বলা হচ্ছে, সৌদি থেকে দুটি ব্যক্তিগত বিমানে আসা ১৫ সদস্যের একটি স্কোয়াড কনস্যুলেট ভবনের ভেতর খাসোগি হত্যায় অংশ নেয়। হত্যার পর ওই স্কোয়াড দ্রুত তুরস্ক ত্যাগ করে। তুরস্কের স্থানীয় দৈনিকগুলোয় ওই ১৫ জনের ছবি ও পরিচয় প্রকাশ করা হয়েছে। এর মধ্যে তিন ব্যক্তি সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্বে নিয়োজিত বিশেষ ইউনিটের সদস্য। এদের একজন সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীর ফরেনসিক বিভাগের প্রধান।

খাসোগির কনস্যুলেটে আসার উদ্দেশ্য ছিল, তার পূর্বতন স্ত্রীকে যে তিনি তালাক দিয়েছেন- এ মর্মে একটি প্রত্যয়নপত্র নেওয়া, যাতে তিনি তুর্কি বান্ধবী হাতিস চেঙ্গিসকে বিয়ে করতে পারেন। খাসোগি তাঁর মোবাইল ফোনটি মিস চেঙ্গিসের হাতে দিয়ে ভবনের ভেতরে ঢোকেন। এরপর থেকে এই সাংবাদিককে আর পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর হাতিস চেঙ্গিস সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, খাসোগি এ সময় বিমর্ষ ও মানসিক চাপের মধ্যে ছিলেন- কারণ তাঁকে ওই ভবনে ঢুকতে হচ্ছে। খাসোগি তাঁকে বলেছিলেন যদি তিনি কনস্যুলেট থেকে বের না হন -তাহলে তিনি যেন তুর্কী প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ানের একজন উপদেষ্টাকে ফোন করেন।

সৌদি প্রশাসন ঘটনা পুরোপুরি অস্বীকার করে তুরস্কের সাথে যৌথ তদন্তে রাজি হয়েছে এবং তদন্তদল কাজও শুরু করেছে। কিন্তু তুরস্কের পত্রপত্রিকা তাদের নিজস্ব অনুসন্ধান থেকে দাবি করেছে, উধাও হয়ে যাওয়ার সময় খাসোগির হাতে থাকা অ্যাপল ঘড়িতেই আছে হত্যার প্রমাণ। তুরস্কের সরকারপন্থী ব্যক্তি মালিকানাধীন পত্রিকা সাবাহ দাবি করছে, তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের সময় খাসোগি তাঁর অ্যাপল স্মার্টওয়াচের রেকর্ডিং সুবিধা চালু করেন। এর ফলে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ, নির্যাতন ও হত্যার সময়কার কথাবার্তার অডিও রেকর্ড হয়েছে এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে অ্যাপলের তথ্যরাখার ভাণ্ডার আইক্লাউডে জমা হয়ে যায়। খাসোগির বাগদত্তা হাতিস চেঙ্গিসের ফোনে জমা থাকা সেসব তথ্য উদ্ধার করে হত্যার প্রমাণ মিলেছে বলে দাবি ওই পত্রিকাটির। অন্যদিকে, তুরস্ক সরকার মার্কিন কর্মকর্তাদের কাছে দাবি করেছে যে তাদের হাতে অডিও ও ভিডিও প্রমাণ রয়েছে যে সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর খুন করা হয়েছে। খাসোগি নিখোঁজের ঘটনায় সত্যটা খুঁজে বের করতে আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসও।

এরইমধ্যে ট্রাম্প প্রশাসন আরেকদফা এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। এই ঘটনায় যদি সৌদি প্রিন্সের দায় থাকে তবে কঠোর সাজা দেয়ারও হুমকি দিয়েছে। কিন্তু এমন ন্যক্কারজনক ঘটনার জেরে সৌদি আরবের সাথে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অস্ত্র বিক্রির চুক্তি বাতিল করা হবে কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ডোনাল্ড ট্রাম্প নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।

দমন পীড়নের বৈশ্বিক মানদণ্ডে সৌদি আরবের নজির এক ও অদ্বিতীয়। পৃথিবীর আর কোনো দেশ নিজেদের কনস্যুলেটের স্বাধীনতার সুযোগে অন্য একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশে ব্যক্তিগত প্লেনে খুনি নিয়ে গিয়ে নিজের দেশের ভিন্নমতাবলম্বী কোনো নাগরিককে খুন করে আসতে পারে- এমন উদাহরণ বিরল। সৌদি আরব এমনটা পারে এবং হজমও করতে পারে। কারণ এর আগেও তাদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ আছে যে, সৌদি রাজতন্ত্রের সমালোচক যদি কোনো প্রিন্সও হন তাঁকেও ভিনদেশে গিয়ে গুম করে ফেলা হয়েছে। বিস্ময়কর সত্য হলো সৌদিকে সেসব অপকর্মের জন্য কোনো তদন্ত বা শাস্তির সম্মুখীন কোনোদিনই হতে হয়নি। এবার কি তার ব্যত্যয় হবে? মার্কিনিদের কাছ থেকে বড় অস্ত্র ক্রেতা সৌদি আরব এবং যুক্তরাষ্ট্রের এক নম্বর জ্বালানি জোগানদাতাও ওই সৌদি আরব। অবস্থাদৃষ্টে অনুমান করাই যায় ট্রাম্পকেও ম্যানেজ করতে পারবেন তরুণ মোহাম্মদ বিন সালমান।

সম্প্রতি সামার বাদাউয়িসহ আটক অন্য সব মানবাধিকারকর্মীর মুক্তি দিতে সৌদি আরবের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। এই আহ্বানের পরিপ্রেক্ষিতে দেশটির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার হুমকি দিয়েছিল সৌদি আরব। শেষ পর্যন্ত কানাডাকেও বিষয়টি নিয়ে আর বাড়তে দেখা যায়নি। এমন বাস্তবতায় ট্রাম্পের উদ্বেগ ও এরদোয়ানের ক্ষুব্ধতাকেও পাশ কাটিয়ে আরেকটি প্রকাশ্য হত্যাকাণ্ডকেও হয়তো জায়েজ করে ফেলতে পারবেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ। কিন্তু বিশ্ববিবেক ও মানবিকতার আদালতে নিশ্চিতই তিনি দণ্ডিত থাকবেন। ইয়েমেনে বেঘোরে মারা যাওয়া শিশুদের মতো সাংবাদিক জালাল খাসোগির অভিশাপগ্রস্ততা থেকেও নৃশংস ও বর্বরতম সৌদি রাজতন্ত্রের রেহাই মিলবে না। আমরা চাই খাসোগির নিরুদ্দেশের সুষ্ঠু তদন্ত হোক এবং আন্তর্জাতিক আদালতে এর বিচার হোক।

রক্ষণশীল সৌদি আরবের পরিবর্তে উদারপন্থী ও উন্মুক্ত আরব গঠনে মনোযোগ দিয়েছিল বর্তমান সৌদি প্রশাসন। কিন্তু তাদের স্বেচ্ছাচারি ক্ষমতার দম্ভ এবং কথায় কথায় মানুষ হত্যার দানবিকতা জিইয়ে রেখে ঔদার্যচর্চা কেবল আষাঢ়ে গল্পের মতোই শোনাতে পারে, যা বিশ্ববাসী কেউ বিশ্বাস করবে না। হাতে রক্তের দাগ নিয়ে সভ্যতার আলাপ চলে না।

লেখক : সংবাদকর্মী, মাছরাঙা টেলিভিশন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com