সৌদি যুবরাজের নির্দেশেই খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে

সৌদি যুবরাজের নির্দেশেই খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে

সৌদি যুবরাজের নির্দেশেই খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে
সৌদি যুবরাজের নির্দেশেই খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সৌদির সাংবাদিক ও ওয়াশিংটন পোস্টের কলাম লেখক জামাল খাসোগিকে হত্যার নির্দেশ সৌদি যুবরাজমোহাম্মাদ বিন সালমানই দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি (সিআইএ)।

১৬ নভেম্বর, স্থানীয় সময় শুক্রবার মার্কিন প্রভাবশালী দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তদন্ত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, সিআইএ এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে, সৌদি যুবরাজ মুহাম্মদ বিন সালমানই খাসোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন। যদিও সৌদি আরবের পক্ষ থেকে তা অস্বীকার করা হচ্ছে।

ওয়াশিংটন পোস্টের ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, সিআইএ যেসব তথ্য-উপাত্ত পরীক্ষা করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে, তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে যুবরাজ বিন সালমানের ছোট ভাই ও যুক্তরাষ্ট্রের নিযুক্ত সৌদি রাষ্ট্রদূত প্রিন্স খালিদ বিন সালমানের সঙ্গে খাশোগির ফোনালাপ।

ওই ফোনালাপে খালিদ খাসোগিকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে গিয়ে সৌদি কনস্যুলেট থেকে কাগজপত্র সংগ্রহ করতে বলেন এবং তার কোনো ক্ষতি হবে না বলে নিশ্চয়তা দেন।

কিন্তু সাংবাদিক জামাল খাসোগি সেখানে গিয়ে নিহত হন এবং এর দুদিন পরেই খালিদ বিন সালমান যুক্তরাষ্ট্র থেকে দ্রুত সৌদিতে ফিরে যান। তাকে আর ওয়াশিংটনে ফেরত পাঠানো হয়নি বরং অন্য কাউকে রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে ওয়াশিংটন পোস্টের কলাম লেখক জামাল খাসোগি হত্যার সঙ্গে জড়িত সবাইকে জবাবদিহিতার আওতায় আনার কথা জানিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও সৌদি আরবের যুবরাজ বিন সালমানকে ফোনে এ কথা জানান। সৌদি আরবেরও একই কাজ করা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

গত ২৪ অক্টোবর যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানান, সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান জড়িত থাকতে পারেন।

ট্রাম্প বলেন, ‘যুবরাজ রিয়াদে বসে সব নিয়ন্ত্রণ করছেন।’ তবে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ বিষয়টি নাও জানতে পারেন বলে ধারণা করছেন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছা নির্বাসনে থাকা জামাল খাসোগি দেশটির সংবাদমাধ্যমে লেখালেখি করতেন। আর সেসব লেখায় যুবরাজ সালমানের কঠোর সমালোচনা করতেন তিনি।

গত ২ অক্টোবর প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র নিতে ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের পর থেকেই নিখোঁজ হন খাসোগি। তার লাশ এখনো পাওয়া না গেলেও তুরস্ক, যুক্তরাষ্ট্র এবং সৌদি আরব তার খুন হওয়ার ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com