সেনাবাহিনীর সাথে আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক

সেনাবাহিনীর সাথে আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক

লোকালয় ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সঙ্গে আমাদের সুদৃঢ় পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে।বৃহস্পতিবার নাটোরের কাদিরাবাদ সেনানিবাসে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের ৬ষ্ঠ কোর পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

এরআগে বেলা ১১টার দিকে তিনি আকাশপথে ঢাকা থেকে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার দয়ারামপুরের কাদিরাবাদ সেনানিবাসে উপস্থিত হন। সেখানে সেনাবাহিনীর কুচকাওয়াজে সালাম ও অভিবাদন গ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, আমার ভাই শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। দ্বিতীয় ভাই শহীদ লে. শেখ জামাল ১৯৭৫ সালে রয়েল মিলিটারি একাডেমি স্যান্ড হার্স্ট্রে নিয়মিত প্রশিক্ষণ শেষে কমিশন লাভ করে সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। ছোট ভাই রাসেলেরও ইচ্ছা ছিল বড় হয়ে সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়ার। কিন্তু ১৯৭৫ সালেরর ১৫ আগস্ট ঘাতকরা সবাইকে নির্মমভাবে হত্যা করে। আমি আপনাদের মাঝে আমার হারানো ভাইদের খুঁজে পাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী একাগ্রতা, কর্মদক্ষতা এবং নানাবিধ জনসেবামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য সার্বজনীন আস্থা ও ও গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে সেনাসদস্যদের গৌরবজ্জ্বল ভূমিকা দেশের ভাবমূর্তি বিশ্বে উজ্জ্বল করেছে। যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় দুর্গত মানুষের সহায়তা করে সেনাবাহিনী অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। মিয়ানমার থেকে বাস্তুহারা নাগরিকরা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। আমাদের সেনাবাহিনীর সহায়তায় আমরা অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে সেখানে তাদের অবস্থানের ব্যবস্থা করেছি। রিলিফ বিতরণ থেকে সার্বিক দায়িত্ব পালনে আমাদের সশস্ত্রবাহিনী সেখানে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, পবিত্র সংবিধান ও সার্বভৌমত্ব সুরক্ষায় আপনাদের ঐক্যবদ্ধ থেকে অভ্যন্তরীণ বা বাহ্যিক যেকোনো হুমকি মোকাবিলায় সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে। দেশের গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি আধুনিক, উন্নত ও সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে সেনাবাহিনীকে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে হবে।

তিনি বলেন, কোর অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি গুরুত্বপূর্ণ ও ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। এ কোরের রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ও আত্মত্যাগের ইতিহাস। ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছি। থ্রিজির পরে ফোরজি যুগে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশ। আমরা বাংলাদেশকে বিশ্বের মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। এজন্য সকলকে এক সাথে কাজ করতে হবে। কোনো অশুভ ও স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি যেন দেশের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে না পারে, সে জন্য সকলেকে সজাগ থাকতে হবে। আমরা চাই না কোনো সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকাসক্ত আমাদের সমাজকে নষ্ট করুক। আমরা দেশের মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। বিশ্বের দরবারে আমরা মাথা উঁচু করে দাঁড়াবো। আর্থসামাজিক উন্নয়নে আজকে আমরা অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছি। জাতির পিতা শুধু একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে গড়ে তোলেননি। তার সময়ে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশের তালিকায় স্থান করে নিয়েছিল।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মন্ত্রী পরিষদের সদস্যরা, প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল তারিক আহমেদ সিদ্দিক, নৌবাহিনী প্রধান এ্যাডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদ, বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আবু এসরার, সংসদ সদস্যবৃন্দ ও ঊর্ধ্বতন সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com