‘সেতুর জন্য সংসদ সদস্যের মৃত মাকে গালি দেয় মানুষ’

‘সেতুর জন্য সংসদ সদস্যের মৃত মাকে গালি দেয় মানুষ’

‘সেতুর জন্য সংসদ সদস্যের মৃত মাকে গালি দেয় মানুষ’
‘সেতুর জন্য সংসদ সদস্যের মৃত মাকে গালি দেয় মানুষ’

চট্টগ্রাম:‘ব্রিটিশ শাসনামলে কর্ণফুলী নদীর ওপর নির্মিত কালুরঘাট সেতু জরাজীর্ণ হয়ে পড়ায় নতুন সেতুর দাবি দীর্ঘদিনের। দুর্ভোগের শিকার মানুষ এলাকার সংসদ সদস্যের মৃত মাকে গালি দিচ্ছে’।

শনিবার (৬ জুলাই) সকালে ফেসবুক লাইভে এসে এ কথা বলেন রাউজানের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর ছেলে ফারাজ করিম চৌধুরী।

তিনি বলেন, ১৯৩০ সালে এই সেতু বানানো হয়েছিল। বিভিন্ন সরকার কাজ করেছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের উন্নয়নের দায়িত্ব নেয়ার পর নতুন কালুরঘাট সেতু করার জন্য একটি প্রকল্প পাস করিয়ে দিয়েছেন। চট্টগ্রামের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ১ লক্ষ কোটি টাকার কাজ করছেন।

প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে ফারাজ করিম চৌধুরী বলেন, ২০০১ সালে এই সেতুকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছিল। এর পর থেকে আজ পর্যন্ত সেতুটির ওপর দিয়ে ভারি যানবাহন চলাচল অব্যাহত রয়েছে। যাত্রীবাহি বাস, ট্রাক চলছে ঝুঁকি নিয়ে। ৫ টনের স্থলে ১০ টনের গাড়িও পার হচ্ছে। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে এসব গাড়ি চলাচল করে? এজন্য দীর্ঘ যানজট হচ্ছে। সেতু পার হতেই দেড় থেকে ২ ঘণ্টা সময় লাগছে। অনেক সময় রোগীর মৃত্যুও হচ্ছে। কোনভাবেই সেতুর ওপর দিয়ে ভারি যানবাহন চলতে দেয়া যাবে না।

ফারাজ করিম বলেন, আমার বাবা রেলপথ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হওয়ার সুবাদে জানি- একটি কোরিয়ান কোম্পানি এটার ফিজিবিলিটি স্টাডি করেছে। তারা ডিজাইনটা দেবে। এজন্য ৩ মাস সময় চেয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে প্রশ্ন রাখি না। শুনেছি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কোম্পানি দিয়ে সেতু মেরামত করা হয়েছে। এখন দেখছি সেতুর নিচে লোহা ছুটে গেছে। সেতুর ওপর দিয়ে রেল চলে। স্লিপারের পাশে বড় বড় গর্ত হয়েছে। দুর্ঘটনা হলে আমরা তদন্ত কমিটি করি। কি করে এ অবস্থা আমরা দেখেও না দেখার ভান করছি! এজন্য রেল কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

‘বোয়ালখালী, চান্দগাঁও, পাঁচলাইশের মানুষ শুধু নয়, বৃহত্তর চট্টগ্রামের মানুষের প্রাণের দাবি-এই সেতু হোক। ভারি যানবাহন উঠলে এটি কাঁপে। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ, নতুন সেতু হওয়ার আগে দরকার হলে বিদেশী কোম্পানি দিয়ে এটি মেরামত করান। জনপ্রতিনিধিরা বিষয়টি তাদের দেখিয়ে দিতে পারেন’।

তিনি বলেন, ‘আমার বাবা সুপারিশ করে যাচ্ছেন কাজটা তাড়াতাড়ি করতে। এখানকার সংসদ সদস্য (মইন উদ্দীন খান বাদল) সংসদে বলেছেন, তাঁর মৃত মাকে গালি দিচ্ছে। যদি এই সেতু না হয়, তাহলে তিনি পদত্যাগ করবেন। আমরা বৃহত্তর চট্টগ্রামবাসী কালুরঘাট সেতু চাই’।

এদিকে কালুরঘাট সেতু নির্মাণের দাবিতে অনশন কর্মসূচি পালন করছেন বোয়ালখালী উপজেলার মুক্তিযোদ্ধারা।

শনিবার (৬ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে কালুরঘাট সেতুর পূর্বপাড়ে অনশন কর্মসূচি শুরু হয় বলে জানান উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. হারুন মিয়া। সেতুর দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com