সুশান্ত গাঁজা খায় প্রেম করার পর জানতে পারি : রিয়া

সুশান্ত গাঁজা খায় প্রেম করার পর জানতে পারি : রিয়া

লোকালয় ডেস্কঃ

সুশান্ত সিং রাজপুতের বিরুদ্ধে গাঁজা সেবনের অভিযোগ দিয়ে এক মাস পর জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন রিয়া চক্রবর্তী। গত বুধবার, মাদক মামলায় অভিনেত্রীকে জামিন দেয় বোম্বাই হাইকোর্ট। এক লাখ রুপির ব্যক্তিগত বন্ডের বিনিময়ে রিয়াকে জামিন দিয়েছেন বিচারপতি।

আদালতের নির্দেশ, নির্দিষ্ট সময়ে থানায় হাজিরা। জমা রাখতে হবে অভিনেত্রীর পাসপোর্ট। আদালতের নির্দেশ ও তদন্তকারী অফিসারকে না জানিয়ে রিয়াকে গ্রেটার মুম্বাই না ছাড়ার নির্দেশ বোম্বে হাইকোর্টের।

এই মামলায় মোট পাঁচ অভিযুক্তের মধ্যে জামিন পেলেন তিনজন। রিয়া ছাড়া জামিন পেলেন সুশান্তের হাউজ ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডা ও পরিচারক দীপেশ সাওয়ান্ত। তবে, রিয়ার ভাই সৌভিক চক্রবর্তীসহ দুইজনের জামিন নাকচ করে দেয় আদালত।

জামিন আদেশের একদিন আগে মঙ্গলবার রিয়ার জেল হেফাজতের মেয়াদ ২০ অক্টোবর পর্যন্ত বৃদ্ধি করার নির্দেশ দিয়েছিল বিশেষ আদালত। রিয়ার বিরুদ্ধে মাদক পাচারের অভিযোগ এনসিবির। গত ৮ সেপ্টেম্বর সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সাথে মাদক-যোগের অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন তার প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তী। মুম্বাইয়ের বাইকুল্লা জেলে পাঠানো হয় অভিনেত্রীকে।

এর আগে, বোম্বে হাইকোর্টে করা ৪৭ পাতার জামিনের আবেদনপত্রের রিয়া দাবি করেন, সুশান্ত একাই গাঁজা খেতেন। স্যামুয়েল মিরান্ডা আর দীপেশ সাওয়ন্তকে দিয়ে গাঁজা আনাতেন। সুশান্তের রাঁধুনি নীরজ সিবিআই ও মুম্বাই পুলিশকে জানান, মৃত্যুর তিনদিন আগে গাঁজার জয়েন্ট বানাতে বলেন সুশান্ত। তার কথামতো, জয়েন্ট বানিয়ে তিনি একটি বাক্সে ভরে রেখে দেন সুশান্তের ঘরে। মৃত্যুর পর বাক্সটি খালি অবস্থায় পাওয়া যায়। অর্থাৎ গাঁজার সবকটি জয়েন্ট শেষ! এতেই প্রমাণ হয় যে, সুশান্ত একাই গাঁজা খেতেন। তার জন্য সহযোগীদের ব্যবহার করতেন।

জামিনের আর্জিতে রিয়া চক্রবর্তীর আরো দাবি, ‘অভিযোগ উঠেছে আমি সুশান্তের জন্য কখনো কখনো মাদক আনাতাম। তার দামও মেটাতাম! এই মামলায় আমার ভূমিকা শুধু এটুকুই। অর্থাৎ সুশান্তের জন্য স্বল্প পরিমাণ মাদক আনাতাম- এটা প্রমাণ হলে খুব বেশি হলে এক বছরের সাজা হতে পারে। বর্তমান পেরিপ্রেক্ষিতে যে অভিযোগ উঠেছে তার ভিত্তিতে আমাকে জামিন দেয়া যেতে পারে। যদি আজ সুশান্ত বেঁচে থাকত, তাহলে ওর বিরুদ্ধেও স্বল্পমাত্রায় মাদক নেয়ার অভিযোগ উঠত। সে অভিযোগ প্রমাণ হলে এক বছরের সাজার সংস্থার আছে। তাতে জামিনও পাওয়া যায়। তবে মাদক যিনি নিচ্ছেন, তার এক বছরের সাজা হচ্ছে আর যিনি মাদক কিনতে টাকা দিয়েছেন- তার ২০ বছরের সাজার কথা বলা হচ্ছে, এটা ন্যায়সঙ্গত নয়।

জামিনের আবেদনের নথিতে রিয়া এও দাবি করেন, সুশান্তের সাথে সম্পর্ক তৈরির পর জানতে পারি, ওর গাঁজা খাওয়ার অভ্যাস আছে। যারা ঘরে কাজ করতেন, তাদেরই গাঁজা জোগাড় করতে বলতেন সুশান্ত। ওর এই অভ্যাস নিয়ে চিন্তায় ছিলাম। সুশান্তের সাথে কথা বলে জানতে পারি, ২০১৫-১৬ সালে কেদারনাথের শুটিংয়ের সময় থেকে ও গাঁজা উপভোগ করতে শুরু করে। আমি ওকে বোঝানোর চেষ্টা করেছিলাম।

রিয়ার আরো দাবি, গত ৮ জুন, সকাল থেকে সুশান্ত নিজের ফোনে ব্যস্ত ছিল। আমি জিজ্ঞাসা করতে ও একটা মেসেজ দেখায়। সেটা দেখে আমি আশ্চর্য হয়ে যাই। দেখি, ওর বোন প্রিয়ঙ্কা ওষুধের তালিকা পাঠিয়েছে। আমি সুশান্তকে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খেতে বলি। বোঝাই যে, গাঁজা খাওয়ার অভ্যাস আছে, তার মধ্যে এসব ওষুধ খেলে মানসিক চাপ সৃষ্টি হতে পারে। কিন্তু সুশান্ত কোনো কথা কানে তোলেনি। বোনের পাঠানো ওষুধই খাবে বলে জেদ ধরে। এরপরই ও আমাকে সব জিনিসপত্র নিয়ে ঘর ছেড়ে চলে যেতে বলে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com