সুযোগ-সুবিধা থাকা মানে এই না যা পেলাম তাই খেয়ে ফেললাম: সিইসি

সুযোগ-সুবিধা থাকা মানে এই না যা পেলাম তাই খেয়ে ফেললাম: সিইসি

সুযোগ-সুবিধা থাকা মানে এই না যা পেলাম তাই খেয়ে ফেললাম: সিইসি
সুযোগ-সুবিধা থাকা মানে এই না যা পেলাম তাই খেয়ে ফেললাম: সিইসি

ঢাকা- সম্প্রতি চট্টগ্রামে রোহিঙ্গাদের কাছে এনআইডি পাওয়ার ঘটনার ইঙ্গিত টেনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, ‘স্বাধীন সত্তার প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেওয়া মানে এই না আমরা যাচ্ছে তাই করে বেড়াব। যে রকম খুশি আমরা ব্যবহার করব। চারদিকে সুযোগ- সুবিধা থাকার মানে এই না যা পেলাম তাই গ্রহণ করলাম খেয়ে ফেললাম; সেগুলো আমাদের জন্য যন্ত্রণার কারণ হয়, কমিশনের যন্ত্রণা হয়।

শুক্রবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে বাংলাদেশ ইলেকশন কমিশন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের তৃতীয় বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) এসব কথা বলেন তিনি ।

সিইসি বলেন, ‘কাজ করতে গিয়ে অনেকে ভুল করে বসে। যেমন চিটাগাং এ একটা করেছিল। বেশি লোভী হয়ে যায় লোভ আর সামলাতে পারে না, প্রলুব্ধ হয়ে যায়। দু’একটা লোকের কর্মকাণ্ডের কারণে সারা নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ওপরে বারবার অপবাদ চলে আসে।

ইসি কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এক সময় উপজেলা নির্বাচন অফিস ছিল না। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের সম্বল ছিল একটি ব্যাগ। আর যাতায়াতের বাহন ছিল রিকশা। এখন সে অবস্থা নেই। আপনাদেরকে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেয়া হচ্ছে। ক্ষমতাও দেয়া হয়েছে। ক্ষমতা প্রয়োগ করতে হবে। আমরা যদি নিজেরা শক্তিশালী না হই তাহলে কী হবে? আগামীতে সব ধরনের নির্বাচনের দায়িত্ব নেয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তাদের প্রস্তুতি নিতে বলেন তিনি।

সিইসি বলেন, আমরা এখন স্থানীয় সরকারের কোনো নির্বাচনে বাইরের কাউকে দায়িত্ব দেই না। আগামীতে সব ধরনের নির্বাচনের দায়িত্ব নেয়ার জন্য আপনাদেরকে যোগ্যতা অর্জন করতে হবে। সেটা কতদিনে হবে জানি না। আপনারা ধীরে ধীরে নিজেদের যোগ্য করে তুলুন।

স্মার্টকার্ড নিয়ে ফ্রান্সের কোম্পানির সমালোচনা করে সিইসি বলেন, ২০১৭ সাল থেকে তারা আমাদের যন্ত্রণা দিয়েছেন। তারা সকালে এক কথা বিকেলে আরেক কথা বলেছে। তারা আমাদের ডাটাবেজও ব্যবহার করতে চেয়েছে, কিন্তু আমরা তা দেইনি। কোম্পানিটি ভেবেছিল তারা না থাকলে হয়তো আমরা স্মার্টকার্ড আর নাগরিকদের দিতে পারবো না। কিন্তু গর্বের বিষয় হলো এটি এখন আমাদের দেশের ছেলেরা তৈরি করছে।

এ সময় নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীরসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com