সংবাদ শিরোনাম :
সুনামগঞ্জের ১৫ এলাকা ‘রেড জোন’ ঘোষণা

সুনামগঞ্জের ১৫ এলাকা ‘রেড জোন’ ঘোষণা

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  সুনামগঞ্জে প্রতিদিনেই করোনাভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা বেড়েই চলছে। আর করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে তিন সপ্তাহের জন্য সুনামগঞ্জের ৮টি উপজেলাসহ ১৫টি এলাকা রেড জোন ঘোষণা করা হয়েছে। রোববার জেলা তথ্য অফিসের পক্ষ থেকে সবাইকে জানানোর জন্য মাইকিং করা হয়েছে।

সোমবার ১৬ জুন থেকে কঠোর অবস্থানে থেকে সবাইকে সর্তকতা অবলম্বন করার জন্য মাঠে নেমেছে পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

জানা যায়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনুযায়ী প্রতি এলাকাগুলোতে এক লক্ষে ৬০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী থাকলে সেই সব এলাকাকে রেড জোনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য বলা হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সুনামগঞ্জের ১১টি উপজেলার মধ্যে ৮টি উপজেলার ১৫টি এলাকাকে রেডজোনে আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে।

যার মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় পুরো সুনামগঞ্জ পৌরসভা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় পূর্ব পাগলা, পশ্চিম পাগলা ও জয়কলস ইউনিয়ন, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার পলাশ ইউনিয়ন, তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়ন, জামালগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়ন, দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার, দোয়ারাবাজার সদর ও মান্নারগাঁও ইউনিয়ন, ছাতক উপজেলার ছাতক পৌরসভা, জাউয়া বাজার ও কালারুখা ইউনিয়ন এবং জগন্নাথপুর উপজেলার জগন্নাথপুর পৌরসভা ও সৈয়দপুর ইউনিয়নকে রেডজোন করা হয়েছে।

অন্যদিকে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়ন, জামালগঞ্জ উপজেলার সাচবাজার ইউনিয়ন, দোয়ারাবাজার উপজেলার পান্ডারগাঁও ও  নরসিংপুর ইউনিয়ন, ছাতক উপজেলার নোয়রাই ইউনিয়ন এবং জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নকে হলুদ জোন করা হয়েছে।

সিভিল সার্জন সূত্রে জানাযায়, বর্তমানে সুনামগঞ্জে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫৬৩ জন। যার মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৫৬ জন, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় ১৮ জন, তাহিরপুর উপজেলায় ১৮ জন, জামালগঞ্জ উপজেলায় ৩৯ জন, ধর্মপাশা উপজেলায় ১৮ জন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ৩৬ জন, দিরাই উপজেলায় ১১জন, ছাতক উপজেলায় ১৬১ জন, শাল্লা উপজেলায় ১৩ জন,দোয়ারাবাজার উপজেলায় ৪৪ জন এবং জগন্নাথপুর উপজেলায় ৪৯সহ  করোনায় আক্রান্ত রয়েছেন।

সুনামগঞ্জে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১১৭ জন এবং মারা গেছেন ৪ জন, যার মধ্যে ছাতক উপজেলার ৩ জন এবং জামালগঞ্জ উপজেলার একজন রয়েছেন।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, রেড জোন থাকাকালীন সময়ে জরুরি দোকান তথা মুদি ও ফার্মেসি ছাড়া সব কিছু বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া ঘর থেকে বের হলে অবশ্যই স্বাস্থ্য বিধি মেনে বের হতে হবে।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হলে আটক করবে পুলিশ। আর যদি প্রয়োজনীয় কারণ দেখা ব্যর্থ হন কেউ তাহলে ঐ ব্যক্তি বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে পরিস্থিতি বিবেচনা করে আরো রেড জোন বাড়তে পারে।

সুনামগঞ্জ জেলায় সাধারণ মানুষ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীসহ প্রায় ৫২৫ জনের বেশি করোনা পজিটিভ। এ কারণে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সদর পৌরসভা ও ছাতক পৌরসভায় আক্রান্তের সংখ্যা বেশি হওয়ার ফলে এই দুই জায়গাকে রেড জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত বলেন, এই সংকটের সময়ে ত্রাণ বিতরণ করেছি। পৌরসভা খোলা আছে। সব ধরনের নাগরিক সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হবে।

সুনামগঞ্জে সিভিল সার্জন ডা. শামস উদ্দিন বলেন, জেলার ৮ টি উপজেলাসহ ১৫ টি এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহিৃত করা হয়েছে। এখন প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সবাইকে সচেতন হতে হবে এর কোনো বিকল্প নেই।

এসপি মিজানুর রহমান বলেন, জরুরি প্রয়োজনে যে কেউ স্বাস্থ্য বিধি মেনে বাইরে যেতে পারবেন। অযথা যদি কেউ পাড়ায় আড্ডায় দেয় আর পুলিশ দেখতে পায় তাদের আটক করা হবে। আর চুরি না বাড়তে না পারে সে দিকে কঠোর নজরদারী রাখবে পুলিশ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com