সিরাজগঞ্জে আবেগ ঘন সুইসাইড নোট লিখে ছেলের আত্মহত্যা!

সিরাজগঞ্জে আবেগ ঘন সুইসাইড নোট লিখে ছেলের আত্মহত্যা!

উজ্জ্বল অধিকারী, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা : বাবার সাথে অভিমান করে আবেগ ঘন সুইসাইড নোট লিখে সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে ফাহিম আহাম্মেদ (২১) নামে এক কলেজ ছাত্র গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছে । বৃহস্পতিবার রাত ১০ টার দিকে বেলকুচি পৌর এলাকার মুকুন্দগাঁতী গ্রাম থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত ফাহিম আহম্মেদ ওই এলাকার তাঁত ব্যবসায়ী হাজী ফজল প্রামানিকের ছেলে।

বেলকুচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন জানান, ফাহিম বাবার চেকে নকল সই করে ব্যাংক থেকে ১লাখ টাকা তুলতে যায়। ব্যাংক কর্মকর্তা ফাহিমের বাবা হাজী ফজল প্রামানিককে বলে দেয়।

পরে ফজল প্রামানিক ছেলেকে গালমন্দ করে। পরে দুপুরের খাবার খেয়ে নিজ ঘরে ঘুমোতে যায় ফাহিম। সন্ধ্যার পরও ঘুম থেকে না ওঠায় দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে তার ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পায় স্বজনরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ওসি আরও জানান, নিহতের হাতে তার বাবাকে উদ্দেশ্য করে লেখা একটি সুইসাইড নোট পাওয়া গেছে।

সেই আবেগ ঘন সুইসাইড নোট-
বাবা আমি তোমার খারাপ ছেলে না। রাগ একটু কমাও, সবার কথা ভাব আর মনের কথা বোঝার চেষ্টা করো। আমি আর তোমার কোন ক্ষতি করবো না। প্রমিজ তোমার অনেক টাকা নস্ট করেছি মাফ করে দিও।

দেশের আরও সংবাদ

খুলনায় গৃহপরিচারিকাকে ছাদ থেকে ফেলে দেবার অভিযোগ পুলিশ দম্পত্তির বিরুদ্ধে!

খুলনা প্রতিনিধি:খুলনার খালিশপুর মুজগুন্নি মেইন রোড এলাকায় পুলিশ দম্পতির বাসার ছাদ থেকে ফেলে হাফিজা খাতুন (১৩) নামের এক কাজের মেয়েকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হাফিজাকে গুরুতর অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে।

লবনচরা থানার এএসআই মেহেদী মাসুদ ও তার স্ত্রী কনস্টেবল রুবিনার বাসায় কাজ করতো হাফিজা।হাসপাতালে চিকিৎসকরা জানান, মেয়েটির অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ইনজুরি হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান,এএসআই মেহেদী মাসুদ ও তার স্ত্রী কনস্টেবল রুবিনার বাসায় কাজ করতো হাফিজা। বৃহস্পতি বার ৯টার দিকে ওই বাড়ির ২য় তলার ছাদ থেকে মেয়েটিকে নিচে ফেলা হয়েছে। খালিশপুর থানার ওসি সরদার মোশাররফ হোসেন জানান, লবনচরা থানার এএসআই মেহেদী মাসুদ ও তার স্ত্রীকনস্টেবল রুবিনার বাসায় কাজ করতো হাফিজা। সে খুলনার তেরখাদা উপজেলার মল্লিকপুরের মৃত লোকমান হাকিমেরকন্যা।খবর পেয়ে হাসপাতালে যেয়ে আহত মেয়েটির খোজ খবর নিয়েছি।

লবনচরা থানার কনস্টেবল রুবিনা জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হাফিজাকে ডাক্তারের কাছে নেয়া হয়েছিলো।সেখানে চিকিৎসক জানান হাফিজার সাথে কোন পুরুষের সেক্সুয়াল সম্পর্ক হয়েছে। একথা জানার পর বাসায় ফিরেহাফিজাকে জিজ্ঞাসবাদ করতেই সে দৌড়ে ছাদে গিয়ে নিচে লাফিয়ে পড়ে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com