সিডরের ১১ বছর পর বাড়ি ফিরেছে নিখোঁজ জেলে!

সিডরের ১১ বছর পর বাড়ি ফিরেছে নিখোঁজ জেলে!

সিডরের ১১ বছর পর বাড়ি ফিরেছে নিখোঁজ জেলে!
সিডরের ১১ বছর পর বাড়ি ফিরেছে নিখোঁজ জেলে!

লোকালয় ডেস্কঃ ঘূর্ণিঝড় সিডরে সাগরে ভেসে গিয়ে নিখোঁজ হয়েছিলেন জেলে শহিদুল মোল্লা (৪৮)। পরিবারের সদস্যরা তার বেঁচে থাকার আশা বহু আগেই ছেড়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু ১১ বছর পর গত ১২ নভেম্বর বাড়িতে ফিরে এসেছেন শহিদুল। এতে তার স্বজনরা খুশিতে আত্মহারা, হতবাকও।

শহিদুলের বাড়ি বাগেরহাট জেলার শরণখোলা উপজেলার খোন্তাকাটা ইউনিয়নের দক্ষিণ আমড়াগাছিয়া গ্রাম। তিনি ওই গ্রামের ফুলমিয়া মোল্লার ছেলে। ঘূর্ণিঝড় সিডরে সরকারিভাবে নিখোঁজের তালিকায় শহিদুলের নাম রয়েছে।

পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, শহিদুল অনেকটা মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় রয়েছেন। তার কথাবার্তায় এলোমেলো ভাব রয়েছে।

জানা গেছে, ছোট ভগ্নিপতি পান্না ফরাজীর নৌকা নিয়ে সাগরে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন শহিদুল। ওই নৌকায় শহিদুলের সঙ্গী ছিলেন মাসুম ছিদ্দিক ও সেলিম। আর মৎস্য ব্যবসায়ী ইউনুচ শিকদারের নৌকায় ছিলেন শহিদুলের বাবা ফুলমিয়া মোল্লা।

২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর রাতে সিডরে জলোচ্ছাসে ভেসে গিয়ে তারা সবাই নিখোঁজ হয়। সিডরের ১১ বছর পর শহিদুল বাড়িতে ফিরে এলেও তার বাবাসহ অপর দুজন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। রবিবার দুপুরে ভগ্নিপতি পান্না ফরাজীর বাড়িতে থাকা শহিদুলের সঙ্গে কথা হয় স্থানীয় সাংবাদিকদের।

সে সময় শহিদুল জানান, সিডর কী তার স্মরণ নেই। সিডরে কোথায় ছিল, কি ঘটেছিল তাও জানেন না। ভারতের পাটগ্রাম নামক এলাকায় রশিদ খানের বাড়িতে থাকতেন তিনি। সেখানে গরু আর বাড়ির কাজবাজ করতেন। এরপর সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন। তবে সীমান্তে তাকে কেউ আটকায়নি।

একবার যা বলছেন, কিছুক্ষণ পরেই আর মনে করতে পারছেন না শহিদুল। সঠিক করে বলতে পারছেন শুধু নিজের নামটাই।

শহিদুলের বড় বোন মঞ্জু বেগম ইউএনবিকে জানান, ১২ নভেম্বর স্থানীয় আমড়াগাছিয়া বাজারে শহিদুল নামে এক পাগল ঘোরাফেরা করছে, এমন খবর পাওয়ার পর তিনি বাজারে ছুটে যান। গিয়ে দেখেন বাসস্ট্যান্ড যাত্রী ছাউনিতে ঘুমিয়ে আছেন শহিদুল। তার কপালের বামপাশে কাটা দাগ, হাতের আঙ্গুলে বড়সি ঢুকে ক্ষত হওয়ার দাগ দেখেই শনাক্ত করেন ভাইকে। সেখান থেকে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসেন।

ভগ্নিপতি পান্না ফরাজী জানান, শহিদুলের দুই মেয়ে এবং দুই ছেলে। বড় মেয়ে পুতুল (২০) এবং মুকুলের (১৮) বিয়ে দিয়েছেন তারা। ছেলে মাসুম (১৭) মাদ্রাসায় হাফেজি পড়ছে। আর ছোট ছেলে মাসুদ (১১) সিডরের সময় তার মায়ের গর্ভে ছিল। সিডরে স্বামী শহিদুলকে হারিয়ে কষ্টে দিন চলছিল মাসুমা বেগমের। দীর্ঘদিনেও নিখোঁজ স্বামীর সন্ধান না পাওয়ায় গত কয়েক বছর আগে মাসুমা নতুন করে সংসার পেতেছেন। বর্তমানে তিনিও কাজের সন্ধানে ভারতের বেঙ্গালুরু শহরে অবস্থান করছেন।

পান্না ফরাজী আরও জানান, শহিদুলের ফিরে আসার খবর মাসুমাকে জানানো হয়েছে। তিনি উচ্ছ্বসিত এবং আনন্দিত। মাসুমা শিগগিরই শরণখোলায় ফিরে আসবে বলে তাদেরকে জানিয়েছেন।

শহিদুল ফিরে আসার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন খোন্তাকাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন খান মহিউদ্দিন।

শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লিংকন বিশ্বাস জানান, সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে সিডরে নিখোঁজের তালিকায় শহিদুল মোল্লার নাম রয়েছে। ১১ বছর পর শহিদুল বাড়িতে ফিরে আসা আনন্দের সংবাদ। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খোঁজখবর নিয়ে তার প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর রাতে স্মরণকালের ভয়াবহ সিডরের আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় বাগেরহাট, পিরোজপুর, বরগুনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী ও ঝালকাঠি জেলার বিভিন্ন গ্রাম। জলোচ্ছ্বাসে ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট, গাছপালা, মৎস্যখামার ও গবাদিপশুসহ মানুষের সহায় সম্পদ ভেসে যায়। এক গ্রামের মানুষকে ভাসিয়ে নিয়ে যায় অন্য গ্রামে।

সিডরে সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয় বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা। এখানে সিডরের আঘাতে নিহত অনেকের লাশ এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। সরকারি হিসেবে সিডরে শুধুমাত্র শরণখোলায় ৬৯৫ জন মারা গেছে এবং এখনো পর্যন্ত ৭৬ জন নিখোঁজ আছে। তবে বেসরকারি হিসেবে মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেশি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com