সংবাদ শিরোনাম :
শায়েস্তাগঞ্জে বাস-টমটমের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত এক। হবিগঞ্জে মেয়র প্রার্থী মিজানের কর্মীদের হয়রানীর অভিযোগ করোনায় মৃত স্বজনহীন ব্যক্তির পাশে দাঁড়ানো মানবপ্রেমিকদের সংবর্ধনা জানালো পুনাক। নবীগঞ্জে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, অর্ধশতাধিক আহত।। শায়েস্তাগঞ্জে গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার। শায়েস্তাগঞ্জে স্কুল ছাত্র তানভীর হত্যার প্রতিবাদে শোকসভা কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করা হচ্ছে : আইজিপি। বিদ্রোহীদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ। নানক। কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার করে ফাঁসির দাবীতে  গোবিন্দগঞ্জে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত। হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে সার্কেল ডে অনুষ্ঠিত।
সাক্ষাত্কারঃ ‘মা দুর্গার বুক নিয়েও কমেন্ট করছে লোকে’

সাক্ষাত্কারঃ ‘মা দুর্গার বুক নিয়েও কমেন্ট করছে লোকে’

শীতের দুপুর। সঙ্গী ‘উমা বৌদি’। আসলে স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়। ‘দুপুর ঠাকুরপো’রা এই সুযোগ একেবারেই মিস করতে চাইবেন না। যাঁরা ‘হইচই’ প্ল্যাটফর্মে ইতিমধ্যেই ‘দুপুর ঠাকুরপো’ দেখেছেন, তাঁরা এর মজা জানেন। আর যাঁরা দেখেননি, তাঁরা সাক্ষাত্কারটি পড়ার পর নিশ্চয়ই দেখবেন। কারণ ‘বৌদি’ মন খুলে মনের কথা বলছেন যে…

কেমন আছেন উমা বৌদি?
স্বস্তিকা: হা হা… ভাল। আপনি?

লোকে উমা বৌদি বলে ডাকছে নাকি?
স্বস্তিকা: না, ঠিক উমা বৌদি বলে ডাকছে না। তবে, দেখা হলে আওয়াজ দিচ্ছে। আর সোশ্যাল মিডিয়ায় যাই পোস্ট করি না কেন, রিপ্লাই আসছে ওই বৌদি ট্যাগলাইনটা দিয়েই।

ইন্ডাস্ট্রির ভিতরের লোকজন কী বলছেন?
স্বস্তিকা: খুব ফানি এক্সপিরিয়েন্স। অনেকেই জিজ্ঞেস করছেন, কী বলে ডাকব তোকে?

কেমন লাগছে?
স্বস্তিকা: উইয়ার্ড লাগছে। বুঝতে পারছি না কী ভাবে রিঅ্যাক্ট করা উচিত। তবে এটা বুঝতে পারছি প্রচুর লোক দেখছেন। আর ‘হইচই অরিজিন্যালস’-এর মধ্যে ওটা এখনও এক নম্বরে। সেটা গুড নিউজ।

উমা বৌদির কিন্তু হেব্বি ডিমান্ড…
স্বস্তিকা: হা হা… কমপ্লিমেন্ট হিসেবে নিলাম।

স্বস্তিকার কাছে উমা কি চ্যালেঞ্জিং ছিল?
স্বস্তিকা: ইয়েস। আমার কাছেও এটা একটা চ্যালেঞ্জ ছিল। আদৌ এটা করতে পারব কি না…। আমি যে ধরনের চরিত্র করি, সেখান থেকে কাট টু বৌদি। আর বৌদির সঙ্গে অনেক প্যাকেজিংও রয়েছে। আমাকে তো এ ভাবে কোনও দিন কেউ দেখেননি। ১৫ বছর হয়ে গেল ইন্ডাস্ট্রিতে। এমন কাজ কোনও দিনই করিনি।

এই চরিত্রের অফার পেয়ে ভেবেছিলেন, আপনিই কেন?
স্বস্তিকা: ছ-সাত বছর আগে হলেও এটার হয়তো অন্য রকম উত্তর দিতাম। কিন্তু, এখন মনে হয় যেটা মনে হচ্ছে সেটাই বলে দেওয়া উচিত। এটা আমি না করলে অন্য কেউ করতে পারত না। অন্য কারও নাম তো মাথায় আসছে না। যাঁরা আমাকে অ্যাপ্রোচ করেছেন, তাঁরাও জানেন। ওঁরা প্রায় চার মাস ওয়েট করেছিলেন আমার ডেটের জন্য।

বুঝতে পেরেছি।
স্বস্তিকা: তবে নোংরা কমেন্টগুলো এখন আর আমাকে শক দেয় না। কারণ আমাদের দেশটা এখন যে দিকে যাচ্ছে সেখানে লোকে মা দুর্গার ছবি নিয়েও অশ্লীল কমেন্ট করে। কিছু দিন আগে আমার টুইটারেই এটা হয়েছে।

সেকি! কী হয়েছে?
স্বস্তিকা: আরে, মহালয়ায় মা দুর্গার একটা ছবি পোস্ট করেছিলাম। ছবিটায় কাঠামোর ওপর মাটি লেপা হয়েছে। পোশাক ছিল না। সেই ছবিতে গিয়ে লোকে মা দুর্গার বুক নিয়ে নোংরা কমেন্ট করেছে। এর থেকে বেশি শকিং তো কিছু হতে পারে না। তার পর অবশ্য টুইটার সেটা ব্লক করে দিয়েছে। ফলে নারী শরীর মানে মা দুর্গার বুক নিয়েও কমেন্ট করতে ছাড়ছে না, সেখানে আমি এক্সপেক্টও করি না যে, আমাকে ছাড়বে।

বিরক্ত লাগে নিশ্চয়ই?
স্বস্তিকা: না। আর এটা নিয়ে কমপ্লেন করেও লাভ নেই। কারণ, সময়টাই বদলে গিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাডভানটেজও আছে, আবার ডিজঅ্যাডভানটেজও আছে। প্রথম প্রথম এগুলো নিয়ে খুব রিঅ্যাক্ট করতাম। তার পর দেখেছি ফিফটি পার্সেন্ট লোক এই রিঅ্যাকশনটা পাওয়ার জন্যই লেখে। পরে তারা লিখেছে সরি, আপনি উত্তর দেন না। তাই এ সব লিখেছি।

উমা কি স্বস্তিকাকে একটা নতুন পরিচিতি দিল?
স্বস্তিকা: উমা তো বটেই। আমি ‘হইচই’-এর কথা আলাদা করে বলব। বাংলায় এমন একটা প্ল্যাটফর্ম যে হয়েছে, সেটা গ্রেট। এটার প্রচুর দর্শক রয়েছে সারা পৃথিবীতে। আমি কিছু দিন আগেও যখন বম্বেতে ছিলাম, সেখানে দেখেছি ওয়েব সিরিজ নিয়ে প্রচুর ভাবনাচিন্তা হচ্ছে। সেটা এখানেও হচ্ছে বলে ভাল লাগছে।

(সাক্ষাত্কারটি আনন্দ বাজার পত্রিকা থেকে নেওয়া)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com