সাংসদের মেয়েকে বিয়ের ‘অপরাধে’ পুলিশের সামনেই হামলা

সাংসদের মেয়েকে বিয়ের ‘অপরাধে’ পুলিশের সামনেই হামলা

সাংসদের মেয়েকে বিয়ের ‘অপরাধে’ পুলিশের সামনেই হামলা
সাংসদের মেয়েকে বিয়ের ‘অপরাধে’ পুলিশের সামনেই হামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- ভারতের উত্তর প্রদেশের বরেলীয় বিজেপি বিধায়ক রাজেশ মিশ্রের মেয়েকে বিয়ে করার কারণে প্রাণ সংকটের আশঙ্কায় পুলিশি সুরক্ষায় থাকা অবস্থায়ই দুর্বৃত্তের হামলার শিকার হলেন এক ব্যক্তি; তাও আবার হাইকোর্টের সামনে!

গত ১১ জুলাই ২৯ বছর বয়সী অজিতেশ কুমারকে বিয়ে করেন উত্তরপ্রদেশের বাড়েলির বিজেপি আইনপ্রণেতা রাজেশ মিশ্রর মেয়ে সাক্ষী মিশ্র (২৩)। তাদের সম্পর্কে আইনপ্রণেতা বাবার মত না থাকায় প্রয়াগরাজে একটি মন্দিরে গিয়ে বিয়ের কাজটা সারেন তারা।

বিয়ের পরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও পোস্ট করে সাক্ষী দাবি করেন, নিজ বর্ণের বাইরে গিয়ে বিয়ে করায় তার বাবা ও ভাই ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে এবং তার স্বামীকে হত্যা করার পরিকল্পনা করছেন। তাই নিজের এবং স্বামীর জন্য পুলিশি নিরাপত্তার আবেদন জানান তিনি ভিডিওতে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পরিবারের অমতে নিজের পছন্দের অজিতেশ কুমার (অভি) নামে একজনকে বিয়ে করেছেন সাক্ষী মিশ্র। বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) তাদের বিয়ে হয়। অজিতেশ দলিত পরিবারের ছেলে। ঝামেলা শুরু সেখানেই। পাত্র দলিত হওয়ায় সাক্ষীর পরিবার বিয়েটা মানছে না। এরপরই বাবা রাজেশ মিশ্র (পাপ্পু ভারতৌল) এবং ভাই ভিকি ভারতৌল তাদের খুনের পরিকল্পনা করেছেন বলে সাক্ষীর অভিযোগ।

ওই ভিডিওতে সাক্ষী মিশ্র বলেন, ‘সম্মানীয় বিধায়ক পাপ্পু ভারতৌলজি (রাজেশ মিশ্রের ডাক নাম) এবং ভিকি ভারতৌলজি, দয়া করে এবার মেনে নিন, নিজেরা বাঁচুন এবং আমাদের শান্তিতে বাঁচতে দিন। আমি সত্যিই বিয়ে করেছি, ফ্যাশনের জন্য সিঁদুরটা পরিনি। বাবা আপনি যে রাজীব এবং রানার মতো নিজের কুকুর লাগিয়ে রেখেছেন আমাদের পিছনে, ওদের বলে দিন, আমার মাথার উপর থেকে যদি জল সরে যায় তাহলে ওদের পুরো পরিবার জেলে যাবে। আমরা পালিয়ে পালিয়ে বিরক্ত হয়ে পড়েছি। আমাদের প্রাণের ঝুঁকি রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অভির আত্মীয়দের বিরক্ত করা বন্ধ করে দিন। ওরা কিছু করেননি। যা কিছু করেছি আমি আর অভি করেছি। আমি খুশি থাকতে চাই, মুক্তি পেতে চাই… অভি আর অভির পরিবার মানুষই, জানোয়ার নয়। আমি ওদের সঙ্গে খুশিতে থাকব। তোমরাও শান্তিতে থাকো, রাজনীতি করো। ভবিষ্যতে যদি আমার, অভি আর অভির পরিবারের কিছু ক্ষতি হয়, তার জন্য সম্পূর্ণ দায়ী হবে বাবা এবং রাজীব-রানা।’

ভিডিওতে সাক্ষীর স্বামী অভি কোনো কথা বলতে দেখা যায়নি। এদিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট হওয়ার পরই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায় এবং এর ফল হিসেবে সাময়িকভাবে পুলিশ হেফাজতে থাকার অনুমতি পেয়ে যান এই দম্পতি।

সোমবার নয়ডার বিশেষ নিরাপত্তা হেফাজত থেকে পুলিশের সুরক্ষা নিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টে পৌঁছান সাক্ষী-অজিতেশ দম্পতি। উদ্দেশ্য বিয়ের প্রমাণপত্র দেখিয়ে আনুষ্ঠানিক পুলিশি সুরক্ষা পাওয়া।

তাদের আইনজীবী জানান, আদালত প্রাঙ্গণে পৌঁছে আদালত কক্ষে ঢোকার ঠিক আগ মুহূর্তে কয়েকজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি এসে পুলিশের নিরাপত্তার মাঝেই তাদের ওপর হামলা চালায়। তারা শুধু অজিতেশকে মারধর করে পালিয়ে যায়।

গণমাধ্যমকে আইনজীবী বলেন, ‘আমরা জানি না এরা কারা ছিল। কিন্তু এতেই প্রমাণ হলো যে এই দম্পতির জীবন সত্যিই ঝুঁকিতে আছে, আর এ কারণেই তারা সুরক্ষা চাইছেন।’

হামলার পরও আদালতকক্ষে শুনানিতে উপস্থিত হন অজিতেশ ও সাক্ষী। শুনানিতে আদালত তাদের বিয়ের বৈধতা ঘোষণা করেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। এছাড়াও আদালত রাজেশ মিশ্রর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে দম্পতিকে প্রয়োজনীয় সুরক্ষা দিতে কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com