সরকারি সুবিধা নিতে কাউকে উৎকুচ না দেয়ার আহবান: এমপি আবু জাহির

সরকারি সুবিধা নিতে কাউকে উৎকুচ না দেয়ার আহবান: এমপি আবু জাহির

সরকারি সুবিধা নিতে কাউকে উৎকুচ না দেয়ার আহবান: এমপি আবু জাহির
সরকারি সুবিধা নিতে কাউকে উৎকুচ না দেয়ার আহবান: এমপি আবু জাহির

স্টাফ রিপোর্টার: হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি বলেছেন, অনেক সময় জন্মদাতা পিতা-মাতাকে খাবার দেয় না সন্তান। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দরিদ্রদের তিনবেলা খাবারের ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। দেশের একটা মানুষও ক্ষুদার্থ থাকবে না; এটাই চান তিনি। সেজন্যই বছর জুড়ে অস্বচ্ছল লোকদের জন্য সহায়তা অব্যাহত রাখা হয়েছে।
সোমবার দুপুরে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নে অসচ্ছল নারীদের মাঝে ভিজিডি চাউল বিতরণের উদ্বোধন শেষে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।
এমপি আবু জাহির আরো বলেন, শুধু মাসে ৩০ কেজি করে চাউলই নয়। সারা বছরই একের পর এক সহায়তা অব্যাহত রেখেছি আমরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে চাউলের বস্তায় সেলাই করে দেয়া হচ্ছে। যাতে দরিদ্রদের জন্য দেয়া শেখ হাসিনার উপহার পরিমাণ মতো তাদের হাতে পৌঁছে যায়। সরকারি এই সহায়তা নিতে কোনও জনপ্রতিনিধি বা কর্মকর্তা-কর্মচারীকে উৎকুচ না দেয়ার জন্য উপস্থিত উপকারভোগীদের প্রতি আহবান জানান তিনি।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল আহাদ ফারুক। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মনির মিয়া, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী নূরুল হক, আব্দুল হাই, মোঃ জলিল মিয়া, মোহাম্মদ আলী মুন্সী, মোঃ জাহেদুর রহমান জাহেদ, সাবেক মেম্বার মরম আলীসহ ইউনিয়ন পরিষদের সকল সদস্য এবং নারী সদস্যবৃন্দ।
ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে ১৯০টি অস্বচ্ছল পরিবারের নারীকে ৩০ কেজি করে চাউল প্রদান করা হয়। তারা আগামী দুই বছর ধরে প্রতি মাসে উল্লেখিত পরিমাণ চাউল পেয়ে যাবে।
হবিগঞ্জ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা মো. আব্দুস সালাম জানান, হবিগঞ্জ জেলায় ১৭ হাজার ২১৭ জন এই সুবিধা ভোগ করছেন। মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে বিতরণকৃত কার্ডের মাধ্যমে তাদেরকে এই চাউল প্রাদান করা হয়।
অনুষ্ঠানে চাউল নিতে আসা তাহেরা খাতুন বলেন, আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে পবিত্র রমজান মাস। তার পরিবারে কর্মক্ষম মানুষ তিনি ছাড়া আর কেউ নেই। এই ৩০ কেজি চাউল পাওয়ায় রমজান মাসে তার অনেক সুবিধা হচ্ছে। রুহেনা নামে অপর এক উপকারভোগী বলেন, রোজা মাস শুরুর পূর্বের দিন এই চাউল বিতরণ করায় দরিদ্র লোকজনের অনেক উপকার হবে। এছাড়া ঈদ মৌসুমে আবারো এই চাউল পাবে দরিদ্ররা। এতে করে তাদের ঈদের আনন্দ বেড়ে যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com