সবাই‌কে নি‌য়ে কাজ কর‌তে চায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট: জাফরুল্লাহ

সবাই‌কে নি‌য়ে কাজ কর‌তে চায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট: জাফরুল্লাহ

সবাই‌কে নি‌য়ে কাজ কর‌তে চায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট: জাফরুল্লাহ
সবাই‌কে নি‌য়ে কাজ কর‌তে চায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট: জাফরুল্লাহ

লোকালয় ডেস্কঃ  বিকল্পধারার সভাপতি ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর (বি. চৌধুরী) সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে তার বাসায় যান গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

১৫ অক্টোবর, সোমবার রাত পৌনে ১০টার দিকে বি. চৌধুরীর বারিধারার বাসায় যান তিনি।

রাত সাড়ে ১০টায় বারিধারায় বি. চৌধুরীর বাসা থেকে বের হয়ে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমরা (জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট) সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চাই। কেউ বাদ পড়বে না।’

সে সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আগে যারা ছিল সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চাই। বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে বাদ দিয়ে কিছু হয় নাকি? আমরা সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চাই।’

ডা. জাফরুল্লাহকে গাড়িতে তুলে দিতে যান বিকল্পধারা বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি. চৌধুরী। তাকে উদ্দেশ করে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘ভালো থেকো। এত তাড়াহুড়া কোরো না। তোমরা সবাই আল্লাহর দোয়ায় ভালো থেকো।’

মাহী বি. চৌধুরী ডা. জাফরুল্লাহকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘চাচা, আমরা ফুল নিয়ে আপনার জন্য অপেক্ষা করব। আপনি কবে আমাদের সঙ্গে আসবেন।’

এরপর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মাহি বি. চৌধুরী। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘ডা. জাফরুল্লাহ বিকল্পধারার সভাপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও দলের মহাসচিব অবসরপ্রাপ্ত মেজর মান্নানের সঙ্গেও কথা বলেছেন। আমিও কিছুক্ষণ ছিলাম সেখানে। ১৩ অক্টোবরের ঘটনার জন্য ডা. জাফরুল্লাহ দুঃখ প্রকাশ করেছেন যে বি. চৌধুরীকে আমন্ত্রণ জানিয়ে তারা থাকতে পারেনি। এটা ভালো বা সঠিক হয়নি।’

‘এই কথাটি বলতে এসেছেন তিনি। এরপর আবারও একই আলোচনা শুরু হয়েছিল। কিন্তু বি. চৌধুরী বলেছেন, এবার আমাদের মাফ করবেন। হতেই পারে রাজনীতিতে আপনাদের এক রকম মত থাকবে, আমাদের আরেক রকম মত থাকতে পারে।’

মাহি বি. চৌধুরী আরও বলেন, ‘আমরা ওনাকে বলেছি যে. আমাদের মত স্পষ্ট যে স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে কোনো ঐক্যে যাব না। এ ছাড়া যদি ক্ষমতার ভারসাম্যই না আসে, নির্দিষ্টভাবে একটি দলকে ক্ষমতায় নেওয়ার জন্যই যদি ঐক্য হয়, সেটা দেশকে স্বেচ্ছাচারমুক্ত করবে না। সুতরাং আমরা আমাদের অবস্থান থেকে সরতে পারব না। তখন ডা. জাফরুল্লাহ বলেছেন, ওই দিন আমাদের ভুল হয়েছে। এ জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

‘তখন আমরা বলেছি, এই ভুলের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করার কিছু নেই। তবে আমরা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাফল্য কামনা করি। ড. কামাল হোসেনের সাফল্য কামনা করি। আপনারা নিজেদের মতো চলতে থাকুন। আমরা আমাদের মতো চলব।’

বিকল্পধারা একঘরে হয়ে যাচ্ছে—এমন কথাও উঠেছে বি. চৌধুরী ও ডা. জাফরুল্লাহর বৈঠকে, উল্লেখ করে মাহী বি. চৌধুরী বলেন, ‘আমরা বলেছি আমরা এক ঘরেই থাকতে চাই। বৃহত্তর অট্টালিকার বাইরে আমরা ছোট একটি কুঁড়েঘর বানাব। সেই ঘরে সত্যের, মুক্তিযুদ্ধের ও শহিদ জিয়াউর রহমানের রাজনীতি থাকবে। আমরা আমাদের অবস্থান থেকে এক ইঞ্চি নড়ার মতো অবস্থানে নেই।’

বিকল্পধারা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটে যাবে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে মাহি বি. চৌধুরী বলেন, ‘সরকারের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই। বিকল্পধারা জন্মের পর থেকে কোনো জোটে যেতে পারেনি। সুতরাং এই ধরনের কোনো সম্ভাবনা নেই। এটা গুঞ্জন।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মাহি বি. চৌধুরী আরও বলেন, ‘আমরা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে বলেছি, আপনারা স্বাধীনতাবিরোধীদের ছাড়লে, বিএনপিকে স্বাধীনতাবিরোধীদের হাত থেকে বের করে আনতে পারলে এবং ভারসাম্যের রাজনীতি দিতে পারলে আপনাদের জন্য আমাদের দরজা খোলা থাকবে।’

প্রসঙ্গত, ড. কামাল হোসেনের আহ্বানে ঐক্য প্রক্রিয়া গড়ার শুরু থেকে বিকল্পধারা থাকলেও এই জোটে বিএনপির অংশগ্রহণ নিয়ে অপর দলগুলোর সঙ্গে সংগঠনটির নেতাদের টানাপড়েন সৃষ্টি হয়। এই জোটে বিএনপি এলে তাদের স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করে আসতে হবে এবং নির্বাচনের আগেই আসন বণ্টন এবং সরকার গঠন করতে পারলে কার কী অংশগ্রহণ থাকবে তা পরিষ্কার করার দাবি জানিয়েছিল বিকল্পধারা।

বিকল্পধারা স্পষ্টভাবে জানিয়েছিল, বিএনপি ও তার জোটকে জেতাতে ঐক্য প্রক্রিয়ায় যুক্তি হবে না বিকল্পধারা। দলটির জামায়াতবিরোধী এই অবস্থানের কারণে বিব্রত হয় বিএনপি এবং ঐক্য প্রক্রিয়ার নেতারা।

এরপর গত ১৩ অক্টোবর পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী বিকল্পধারার সভাপতি বি. চৌধুরী গণফোরাম সভাপতি ও ঐক্যপ্রক্রিয়ার আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে দেখা করতে তার বেইলি রোডের বাসায় এসে দেখা না পেয়ে ফিরে যান। একই সময়ে মতিঝিলের অফিসে বসে বিএনপিসহ জেএসডি, নাগরিক ঐক্যের নেতাদের নিয়ে বৈঠক করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দাবি ও লক্ষ্য চূড়ান্ত করেন ড. কামাল হোসেন।

ওই দিন সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিকল্পধারাকে বাদ দিয়েই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আত্মপ্রকাশ করে। এই ঐক্যফ্রন্ট গঠনের নেপথ্য উদ্যোক্তা হিসেবে সেদিন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। তবে এর আগে বি. চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্টের কর্মসূচিতেও ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com