সংবাদ শিরোনাম :
সন্তানের সামনে মাকে হত্যা, ফ্যানে ঝুলিয়ে রাখেন স্বামী-ননদ

সন্তানের সামনে মাকে হত্যা, ফ্যানে ঝুলিয়ে রাখেন স্বামী-ননদ

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  গাজীপুরে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ বিথীকে হত্যার পর মরদেহ সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যার নাটক তৈরি করেন স্বামী-ননদ। অবশেষে দেড় বছর পর লিটন নামে এক যুবককে গ্রেফতারের পর এ হত্যার রহস্য উন্মোচিত হয়।

৪ জুন ভোরে ময়মনসিংহের কোতোয়ালি থানার চুড়াখাই এলাকা থেকে লিটনকে গ্রেফতার করা হয়। লিটন একই জেলার মুক্তাগাছা থানার বনবালা গ্রামের মো. ইসমাইল হোসেনের ছেলে। ওই দিন তিনি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

নিহত ফারজানা আক্তার বিথী গাজীপুর মহানগরীর বাসন থানার ভোগড়া এলাকার আফিজ উদ্দিনের ছেলে মো. রাশেদ চৌধুরী রন্টির স্ত্রী।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গাজীপুর পিবিআইয়ের ইন্সপেক্টর হাফিজুর রহমান জানান, ২০১৩ সালের ৪ নভেম্বর রন্টির সঙ্গে বিথীর বিয়ে হয়। এর আগে তাদের প্রেম ছিল। বিয়ের পর রন্টির পরিবারের সদস্যরা বিথীকে ভালোভাবে মেনে নেননি। বিথীর সঙ্গে তাদের প্রায় ঝগড়া হতো। মাঝেমধ্যে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটতো। এরপর স্ত্রীকে নিয়ে পরিবারের সব সদস্যদের সঙ্গে বাড়ির তৃতীয় তলায় থাকতেন রন্টি।

একপর্যায়ে রন্টিকে পুনরায় অন্যত্র বিয়ে দেয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নেন পরিবারের লোকজন। রন্টিও তাদের সিদ্ধান্ত মেনে নেন। এরইমধ্যে ভাড়াটিয়া তানি নামে এক মেয়ের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন রন্টি। এসব বিষয় নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে তার মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। এতে রাগ করে বাবার বাড়ি চলে যান বিথী। পরে সালিশের মাধ্যমে পুনরায় স্বামীর ঘরে আসেন।

তিনি জানান, ২০১৮ সালের ৮ আগস্ট বিথীকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সময় লিটনকেও অংশ নিতে বলা হয়। অন্যথায় তাকে মেরে ফেলা হবে। ঘটনার দিন ৯ আগস্ট সকালে ফোন করে লিটনকে বাসায় ডেকে নেন রন্টি। এ সময় তাদের দোতলার বাসায় এসে লিটন দেখেন রন্টি তার বোন তোরা, সানি, কাজের মেয়ে আছমা ও তার স্বামী মুমিন বসে আছেন। একপর্যায়ে তোরা গায়ের ওড়না দিয়ে বিথীর গলা পেঁচিয়ে ধরেন। রন্টি ও অন্যরা দুই দিক থেকে ওড়না টেনে ধরেন। এক হাত দিয়ে স্ত্রীর মুখ চেপে ধরেন রন্টি। বিথীর দুই হাত-পা চেপে ধরে মৃত্যু নিশ্চিত করেন সানি ও লিটন। কাজের মেয়ে আছমা চার-পাঁচ মিনিট পর রন্টির মামা খালেককে ডেকে আনেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, চোখের সামনে মাকে হত্যা করায় কান্নাকাটি শুরু করে মেয়ে। পরে বিথীর মেয়েকে তৃতীয় তলায় রন্টির ছোট ভাইয়ের কাছে দিয়ে আসেন লিটন। ফের দোতলায় এসে দেখেন কাজের মেয়ে আছমার স্বামী মুমিন একটি মোড়ার ওপর উঠে ফ্যানে ওড়না বাঁধছে। এরপর রন্টি, সানি, তোরা মিলে বিথীর মরদেহ উঁচু করে ধরে ফ্যানে ঝুলিয়ে দেন।

হাফিজুর আরো জানান, খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। ময়নাতদন্তে হত্যার আলামত পাওয়া গেলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে পিটিশন মামলা করেন নিহতের বড় ভাই রুহুল আমিন সরকার রনি। গাজীপুর পিবিআই মামলাটি দেড় বছর তদন্ত করে হত্যাকারীদের শনাক্ত করতে সক্ষম হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com