সংস্কার না করে কোটা বাতিল, দায় সরকারের: ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ

সংস্কার না করে কোটা বাতিল, দায় সরকারের: ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ

সংস্কার না করে কোটা বাতিল, দায় সরকারের: ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ
সংস্কার না করে কোটা বাতিল, দায় সরকারের: ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ

লোকালয় ডেস্কঃ কোটা পদ্ধতির সংস্কার না করে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের কারণে যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে, তার দায় সরকারকে নিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতারা।

৭ অক্টোবর, রবিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারের সামনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতারা এ মন্তব্য করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন।

সংবাদ সম্মেলনে পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূর, ফারুক হোসেন, আতাউল্লাহ, জসিম উদ্দিন আকাশ, মশিউর রহমানসহ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে হাসান আল মামুন বলেন, ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ গত ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সব সরকারি চাকরিতে ৫ দফার আলোকে কোটা পদ্ধতির সংস্কারের জন্য শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করে আসছিল। আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সরকার কোটা সংস্কার না করে কোটা বাতিল করে পরিপত্র জারি করেছে।’

‘আমরা সাধারণ ছাত্রসমাজের প্রতিনিধিত্ব করি, তাই আমরা সবসময় পাঁচ দফার আলোকে কোটা পদ্ধতির সংস্কার চেয়েছি। আমরা কখনই কোটার বাতিল চাইনি। তাই এ বাতিলের কারণে উদ্ভূত সমস্যার দায়ভার সরকারকেই নিতে হবে।’

ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক বলেন, ‘এ ছাড়া সরকারি চাকরিতে কোনো বিশেষ নিয়োগ দেওয়া যাবে না। বিশেষ নিয়োগ ছাত্রসমাজ মেনে নেবে না। সেই সঙ্গে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণিতেও কোটার যৌক্তিক সংস্কার করতে হবে।’

হাসান আল মামুন আরও বলেন, ‘ছাত্রসমাজের নামে মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও হয়রানিমূলক যে সব মামলা করা হয়েছে, তা দ্রুত প্রত্যাহার করতে হবে। আন্দোলনকারীদের ওপর হামলাকারীদের বিচার ও শাস্তির আওতায় আনতে হবে।’

একই সঙ্গে নিয়োগের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে প্রিলিমিনারি, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার নম্বরসহ ফলাফল প্রকাশের জোর দাবি জানান ছাত্র অধিকার সরংক্ষণ পরিষদের এ নেতা।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা কোটা বাতিল নিয়ে সরকারকে আরও ভাবতে বলেন। একইসঙ্গে কোটা পদ্ধতির সংস্কার করতে হলে অবশ্যই পাঁচ দফার আলোকে করতে হবে বলে জানানো হয় সংবাদ সম্মেলন থেকে।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের পর সরকার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরি থেকে সব ধরনের কোটা বাতিল করে। এতে নতুন করে সংকট তৈরি হয়। মুক্তিযোদ্ধা কোটাসহ বিভিন্ন কোটার দাবি অনেকেই শাহবাগে আন্দোলন শুরু করেছেন।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের দাবি কী ছিল

‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের’ ব্যানারে যে পাঁচটি বিষয়ে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন চলছে সেগুলো হলো-

১. কোটা-ব্যবস্থা ১০ শতাংশে নামিয়ে আনা।

২. কোটায় যোগ্য প্রার্থী পাওয়া না গেলে মেধাতালিকা থেকে শূন্য পদে নিয়োগ দেওয়া।

৩. সরকারি চাকরিতে সবার জন্য অভিন্ন বয়সসীমা- (মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ক্ষেত্রে চাকরির বয়সসীমা ৩২ কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য ৩০। সেখানে অভিন্ন বয়সসীমার দাবি আন্দোলনকারীদের)।

৪. কোটায় কোনো ধরনের বিশেষ পরীক্ষা নেওয়া যাবে না (কিছু ক্ষেত্রে সাধারণ শিক্ষার্থীরা চাকরির জন্যে আবেদনই করতে পারেন না। কেবল কোটায় অন্তর্ভুক্তরা পারেন)।

৫. চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় একাধিকবার কোটার সুবিধা ব্যবহার করা যাবে না।

চাকরিতে কী পরিমাণ কোটা ছিল

বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে নির্বাহী আদেশে সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি চালু করা হয়। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরিতে ৪৫ শতাংশ মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হতো। বাকি ৫৫ শতাংশ পদে নিয়োগ হতো অগ্রাধিকার কোটায়। অগ্রাধিকার কোটার মধ্যে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা (পরে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, এখন নাতি-নাতনি) কোটা, ১০ শতাংশ নারী কোটা, ১০ শতাংশ জেলা কোটা এবং ৫ শতাংশ ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কোটা। সর্বশেষ ২০১২ সালে বিদ্যমান অগ্রাধিকার কোটায় কাঙ্ক্ষিত যোগ্য প্রার্থী পাওয়া না গেলে সেই কোটা থেকে ১ শতাংশ পদ প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের দিয়ে পূরণের নিয়ম চালু হয়। এর বাইরে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির চাকরিতে পোষ্য, আনসার-ভিডিপিসহ আরও কিছু কোটা রয়েছে।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের পর…

কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১১ এপ্রিল জাতীয় সংসদে কোটা ব্যবস্থা বাতিলের ঘোষণা দেন। এরপর সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিল বা সংস্কারের প্রয়োজন আছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমকে আহ্বায়ক করে ২ জুলাই সাত সদস্যের সচিব কমিটি গঠন করে প্রজ্ঞাপন জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

ওই কমিটিকে ১৫ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। পরে কমিটির মেয়াদ আরও ৯০ দিন বাড়ানো হয়। পরে গত ১৩ অগাস্ট মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর ব্রিফিংয়ে জানান যে সরকারি চাকরিতে সব ধরনের কোটা তুলে দিয়ে মেধাকে প্রাধান্য দিয়ে সুপারিশ প্রতিবেদন চূড়ান্ত করা হয়।

মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে সব ধরনের কোটা বাতিল করে ৪ অক্টোবর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে পরিপত্র জারি করা হয়।

এর পর ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটাসহ বিভিন্ন কোটা বহাল রাখার দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডসহ কয়েকটি সংগঠনের সদস্যরা। এ দাবিতে নানা কর্মসূচিও পালিত হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com