শুধু বাংলাদেশ দলকে চায় শ্রীলংকা

শুধু বাংলাদেশ দলকে চায় শ্রীলংকা

http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্কঃ

বিসিবি হাইপারফরম্যান্স (এইচপি) দলের শ্রীলংকা সফর অনিশ্চিত। শঙ্কায় রয়েছে জাতীয় দলের সফরও! বাংলাদেশকে মাত্র ৩০ জন ক্রিকেটার-কোচিং স্টাফ নিয়ে যেতে বলেছে শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি)। তারা শুধুই জাতীয় দল চেয়েছে।

জাতীয় দল ও এইচপি মিলে বাংলাদেশ ৬৫ জনের দল শ্রীলংকায় পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে।

সেটা মানছে না শ্রীলংকা সরকার। ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফ মিলে জাতীয় দলেই ৩৪-৩৫ জন সদস্য হবে। একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, শ্রীলংকার চাওয়া অনুযায়ী এইচপি দল রেখে শুধু জাতীয় দল নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনায় এগোচ্ছে বিসিবি।

এরই মধ্যে প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো, পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসন, ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুক, ট্রেনার ও ফিজিও নিক লি এবং জুলিয়ান ক্যালেফাতো ঢাকায় এসে বসে আছেন। নিউজিল্যান্ড থেকে সরাসরি শ্রীলংকায় যাওয়ার কথা রয়েছে স্পিন বোলিং পরামর্শক ড্যানিয়েল ভেট্টোরি ও ব্যাটিং কোচ ম্যাকমিলানের।

টিম ম্যানেজার হিসেবে এবং দুই নির্বাচকেরও শ্রীলংকায় যাওয়ার কথা। প্রাথমিক দল হিসেবে শ্রীলংকায় ২১ সদস্যের জাতীয় দল যাবে। জাতীয় দল নিয়ে অনেক আলোচনা হলেও এইচপি নিয়ে কোনো কথা হচ্ছে না। এইচপি ক্রিকেটারদের আবাসন ব্যবস্থা ও করোনা পরীক্ষা করানো নিয়েও আলোচনা নেই। শ্রীলংকা থেকে সবুজ সংকেত না পাওয়ায় এইচপি নিয়ে কোনো অগ্রগতি নেই।

এইচপি দলের শ্রীলংকা সফর অনিশ্চিত হয়ে গেছে কি না জানতে চাইলে এইচপির চেয়ারম্যান নাঈমুর রহমান দুর্জয় যুগান্তরকে বলেন, ‘এখনও কোনো কিছু ফাইনাল না। তিন-চারদিন সময় লাগবে ফাইনাল হতে। তাদের সঙ্গে নিয়মিত আলোচনা চলছে।’ ৩০ জন ক্রিকেটার নিয়ে শ্রীলংকা সফরে যেতে হলে কি শুধু জাতীয় দল যাবে?

তিনি বলেন, ‘জাতীয় দলের সঙ্গেই তো শুধু ৩০-৩২ জন ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফ লাগে। ১২-১৫ জনই লাগে কোচিং স্টাফ। তবে এটা এখন শুধু শ্রীলংকা বোর্ডের বিষয় না। তাদের জাতীয় ইস্যু। তারা আলোচনা করছে, আমরাও ভাবছি। সব পরিষ্কার না হলে এইচপি দল নিয়েও আলাদা করে কিছু বলা যাচ্ছে না।’

এদিকে শনিবার বিসিবিকে আরেকটি গাইডলাইন পাঠিয়েছে শ্রীলংকা বোর্ড। সেখানে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন তো আছেই, সঙ্গে তারা শুধু জাতীয় দলকে সফরে চায়। এসএলসির চিফ অপারেটিং অফিসার অ্যাশলে ডি সিলভা স্থানীয় এক সাংবাদিককে জানিয়েছেন, ‘আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ পেয়ে তা বিসিবিতে পাঠিয়েছি।

তাদের নির্দেশনা সম্পর্কে জানতে বলা হয়েছে এবং কীভাবে তারা শ্রীলংকা সফর করবে সেটা জানাতে বলা হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের জন্য জাতীয় প্রয়োজনের দিকে আমরা খেয়াল রাখব। আমরা বিসিবির থেকে কোনো প্রক্রিয়া না পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করব। এরপরই বাকি ব্যবস্থা জানাতে পারব।’

এসএলসিকে বিসিবি এখন নিজেদের অবস্থান জানাবে। সামনের পরিস্থিতিতে কী করণীয় এ নিয়ে রোববার নাঈমুর রহমান দুর্জয়, হাইপারফরম্যান্স কমিটির চেয়াম্যান খালেদ মাহমুদ, ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান ও প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু আলোচনায় বসেছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com