শেষ পর্যন্ত মামলার রায় বেন স্টোকসের পক্ষে যায় কি না!

শেষ পর্যন্ত মামলার রায় বেন স্টোকসের পক্ষে যায় কি না!

আদালতের শুনানিতে যাওয়ার সময় বেন স্টোকসের সঙ্গী ছিলেন তাঁর স্ত্রী ক্লেয়ার স্টোকস। ছবি: এএফপি

খেলাধুলা ডেস্ক : শেষ পর্যন্ত মামলার রায় বেন স্টোকসের পক্ষে যায় কি না, তা সময়ই বলে দেবে। তবে নৈশ ক্লাবের বাইরে রাস্তায় মারামারির ঘটনায় হওয়া মামলায় প্রথম দিনের শুনানিতে কৌঁসুলি যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেটা কিন্তু ইংলিশ অলরাউন্ডারের পক্ষে যায়নি। নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য স্টোকস দুজনকে আক্রমণ করেছিলেন বলে দাবি করেছেন সরকারি কৌঁসুলি নিকোলাস করসেলিস।

 

গত বছরের সেপ্টেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ চলাকালে গভীর রাতে ব্রিস্টলের এক পানশালার বাইরে মারামারিতে জড়িয়ে পড়েন স্টোকস। তদন্ত শেষে স্টোকসের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে ব্রিস্টলের ক্রাউন প্রসিকিউশন সার্ভিস (সিপিএস)। ইংলিশ অলরাউন্ডারের সঙ্গে ঘটনায় অভিযুক্ত হয়েছেন আরও দুজন-রায়ান আলি (২৮) ও রায়ান হেল (২৬)। ওই মামলারই প্রথম দিনের শুনানিতে কাল হাজিরা দিয়েছেন তিনজনই। প্রথম দিন অবশ্য অভিযুক্তরা কেউ বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ পাননি। মূলত স্টোকসের বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন করেছেন কৌঁসুলি।

 

ওই ঘটনার পরে দুই প্রত্যক্ষদর্শী বিলি ও’কোনেল ও কাই বেরি ইংল্যান্ডের দ্য সান পত্রিকার কাছে দাবি করেছিলেন তাঁরা দুজন রাস্তায় একসঙ্গে হাঁটতে গিয়ে সমকামবিদ্বেষী মন্তব্যের শিকার হয়েছিলেন। ওই সময় স্টোকসই সেটির প্রতিবাদ করেন। যার জের ধরেই ইংলিশ অলরাউন্ডারের মারামারিতে জড়িয়ে পড়া। স্টোকসও দাবি করেছিলেন, ওই জুটিকে বাঁচাতে গিয়ে তিনি নিজেও আক্রান্ত হন। আত্মরক্ষার জন্যই মারামারিতে জড়িয়ে পড়তে হয় তাঁকে।

 

তবে মামলার সরকারি কৌঁসুলি নিকোলাস করসেলিস কাল তাঁর বক্তব্যে বলেছেন, ‘ঘটনার সময় স্টোকস নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারান এবং নিজের বা অন্যের হয়ে প্রতিশোধ নিতে বা শাস্তি দেওয়ার জন্য বাকি দুজনকে আক্রমণ করেন। এটা শুধু আত্মরক্ষা বা অন্য কাউকে রক্ষা করার ব্যাপার ছিল না।’

করসেলিসের দাবি, ‘তিনি (স্টোকস) হেলকে ঘুষি মেরে অজ্ঞান করেন। তারপর কিছুটা থেমে, ভেবে, নিজেকে শান্ত করে আলির সঙ্গেও একই কাজ করেন। যে ঘটনায় আলি মারাত্মকভাবে আহত হন, তাঁর চোখের পাশের হাড় ভেঙে যায় এবং হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়।’

 

ঘটনাটা কত ভয়ংকর ছিল, সেটাও উঠে এসেছে করসেলিসের বক্তব্যে, ‘এটা শুধু একটা অপ্রীতিকর মুহূর্তই ছিল না, এটা ছিল দীর্ঘ সময় ধরে চলা একটা সহিংস অধ্যায়, যা প্রত্যক্ষদর্শীদের হতবুদ্ধি করে দেয়।’
এ মামলার শুনানি পাঁচ থেকে সাত দিন ধরে চলতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। শুনানিতে উপস্থিত থাকতে হবে বলে স্টোকস আগামী বৃহস্পতিবার থেকে লর্ডসে শুরু হতে যাওয়া ভারতের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে খেলতে পারবেন না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com