শেষ ওভারের দুঃখে পুড়লো বাংলাদেশ

শেষ ওভারের দুঃখে পুড়লো বাংলাদেশ

শেষ ওভারের দুঃখে পুড়লো বাংলাদেশ

খেলাধুলা ডেস্ক : শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার আট রান। তখনো হাতে পাঁচ উইকেট। এমন ম্যাচ কে হারে? কে আবার বাংলাদেশ হারে!

 

তখনও উইকেটে ছিলেন ৬৮ রানে অপরাজিত মুশফিকুর রহিম। বোলিংয়ে আসেন ক্যারিবীয় অধিনায়ক জ্যাসন হোল্ডার। প্রথম বলটিই তিনি দেন ফুলটস। তাতেই ‘ফুল’ বনে যান মুশফিক। দুর্বল শটে বল তুলে দেন মিডউইকেটে দাঁড়ানো কিমু পলের হাতে।

 

২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এভাবেই জয়ের খুব কাছে গিয়ে ভারতের কাছে দলকে হারিয়ে এসেছিলেন মুশফিক। এবারও তার কাঁধেই যেতে পারে এই হারের দায়ভার। ফুলটসের লোভ সামলাতে না পারা কিংবা ফুলটস বাউন্ডারি ছাড়া করতে ব্যর্থ হওয়া মুশফিকের বিদায়ের পর যে পাঁচ বলে আট রান নিতে পারেনি বাংলাদেশ।

 

দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে কোনো রানই নিতে পারেননি মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। পরের তিন বলেও এসেছে মাত্র চার রান! ফল তিন রানে হার।

 

শেষ ওভারের নাটকীয় এই জয়ে সিরিজে সমতা ফেরালো ক্যারিবীয়রা। একই মাঠে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৪৮ রানে জিতে বাংলাদেশ। ওই জয়ে সিরিজ জয়ের দারুণ সুযোগ তৈরি করেন তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানরা। এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ জয়ের স্বপ্ন দেখা বাংলাদেশকে এখন তাকিয়ে থাকতে হবে ৩০ জুলাইয়ের শেষ ম্যাচের দিকে।

 

শেষ ওভারের ওই বেদনার আগে ম্যাচে বাংলাদেশেরই ছিলো সব কর্তৃত্ব। যদিও ২৭২ রানের লক্ষ্য দিয়ে বাংলাদেশকে কঠিন চ্যালেঞ্জেই ফেলে দিয়েছিলো ক্যারিবীয়রা। কিন্তু তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান ও মুশফিকের হাফ সেঞ্চুরিতে লক্ষ্যটা ছুঁয়ে ফেলা খুবই সহজসাধ্য হয়ে উঠেছিলো বাংলাদেশের কাছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জেতা ম্যাচ হেরেই মাঠ ছাড়তে হয় মুশফিকদের।

 

এর আগে ২৭২ রানের কঠিন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তাদের হয়ে সেঞ্চুরি করেন শিমরন হ্যাটমায়ার। ২১ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানই এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে সেঞ্চুরি করা সর্বকনিষ্ঠ ব্যাটসম্যান।

 

হ্যাটমায়ারের সেঞ্চুরিটিই মূলত বাংলাদেশের লক্ষ্যটা কঠিন করে দেয়। সেঞ্চুরি করার আগে শভমন পাওয়েলের সাথে ১০৩ রানের জুটি গড়েন হ্যাটমায়ার। ১০২ রানেই চার উইকেট হারিয়ে ফেলেছিলো ক্যারিবীয়রা।

 

প্রথম ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও ক্যারিবীয়দের ব্যাটিং লাইনে প্রথম আঘাত হানেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। প্রথম ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও এভিন লুইসকে ফেরান তিনি। এরপর ক্রমেই উইকেটে স্থির হয়ে আসা ক্রিস গেইলকে ফেরান মেহেদি হাসান মিরাজ।

 

তিন নম্বরে নামা শাই হোপকে ফেরান সাকিব আল হাসান। আর পাঁচ নম্বরে নামা জ্যাসন মোহাম্মদকে বোল্ড করেন রুবেল হোসেন। এ চারটা উইকেট পড়ে যায় নিয়মিত বিরতিতে। যা বাংলাদেশকে আশা দেখায় সহজ লক্ষ্যের। কিন্তু তখনই দাঁড়িয়ে যান হ্যাটমায়ার। মাশরাফিদের দারুণ চ্যালেঞ্জে ফেলে দেন তিনি।

 

সেই চ্যালেঞ্জে বাংলাদেশ জিতে যাচ্ছিলো দারুণভাবেই। কিন্তু শেষ ওভারে যে বাংলাদেশের জন্য সাজানো ছিলো বেদনার গল্প। বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১২টায় শুরু হওয়া ম্যাচ দেখতে দেশে কোটি দর্শক চোখ রেখেছিলেন টিভি পর্দায়। তাদের রাত জাগা প্রায় সার্থকও করে তুলছিলেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু একেবারে শেষে এসে সেই মুশফিকই পুড়িয়েছেন আশাভঙ্গের বেদনায়। অনর্থক করে দিয়েছেন রাতজাগা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com