সংবাদ শিরোনাম :
নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার চোরচক্রের গডফাদার রিপন ও তার সহযোগিকে সনাক্ত করা হয়েছে চীফ জুডিসিয়াল আদালতের সামন থেকে আরও একটি মোটর সাইকেল চুরি আজমিরীগঞ্জে সিএনজি স্ট্যান্ড দখল নিয়ে দুই দলের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া আজমিরীগঞ্জে গাঁজাসহ টমটম চালক আটক লাখাইয়ে ডাকাতি মামলার আসামি চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার বানিয়াচংয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পাখি শিকার ও পাচারের লিখিত অভিযোগ অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল অর্ধশতাধিক ছাত্রী! হবিগঞ্জে স্কুল মাঠে পুকুর খনন নিয়ে ফেসবুকে উত্তাপ, অবস্থান জানাল প্রশাসন লোকাল জার্সিকে অ্যাডিডাসের বলে বিক্রি করার দায়ে ইজি ফ্যাশনকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা
শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিতর্কিত পোষ্য কোটায় ২৫ নম্বরেই ভর্তি ! পোষ্য কোটা নেই হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিতর্কিত পোষ্য কোটায় ২৫ নম্বরেই ভর্তি ! পোষ্য কোটা নেই হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে

এবারও শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পোষ্য কোটায় ভর্তি হবে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে কর্মরত শিক্ষক কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সন্তানরা। নানামুখী ছাড় দিয়ে নেওয়া হয়েছে ভর্তির ব্যবস্থা। গুচ্ছের অন্তর্ভুক্ত আটটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ছয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ে পোষ্য কোটা না থাকার পরও শেকৃবিতে এখনো কেন এই কোটা চালু রয়েছে তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে বিতর্ক রয়েছে। কৃষিবিজ্ঞান বিষয়ে ডিগ্রি প্রদানকারী আটটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ১০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তির ক্ষেত্রে পূর্বের মতো এবারও তিন শতাংশ পোষ্য কোটা বহাল রেখেছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। পোষ্য কোটায় ২৫ নম্বর পেলেই ভর্তির সুযোগ পাওয়া যায়। যেখানে সাধারণ শিক্ষার্থীরা ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশ নম্বর পেলেও ভর্তির নিশ্চয়তা পান না, সেখানে পোষ্য কোটায় এমন সুযোগ ভর্তি পরীক্ষায় বৈষম্য তৈরি করেছেন বলে মত শিক্ষার্থীদের।

গত বছর ২০টি আসনের বিপরীতে পোষ্য কোটায় আবেদন করেন মাত্র ১১ জন। এর মধ্যে মাত্র তিন জনের গুচ্ছ পরীক্ষা দেওয়ার যোগ্যতা ছিল। তারা পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হন। বাকি আট জনের মেধাস্কোর না থাকায় আরো ছাড় দেওয়া হয় তাদের। বিশ্ববিদ্যালয়টির অধিভুক্ত একটি কলেজের প্রশ্নে পরীক্ষা নেওয়া হয়। আট জনের মধ্যে মাত্র দুই জন ২৫ নম্বর বা তার বেশি পেয়ে ভর্তি হন। বাকি ছয় জন ১০০ নম্বরের মধ্যে ২৫ নম্বরও পাননি। তথ্য অনুযায়ী, ২০০৮ সালে প্রথম পোষ্য কোটা চালু হয় শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে। তখন পোষ্য কোটায় পাশ মার্ক নির্ধারণ করা হয় ৪০। কিন্তু অনেক শিক্ষক-কর্মকর্তাদের সন্তান ৪০ মার্ক তুলতে হিমশিম খেলে পরে পাশ মার্ক কমিয়ে ২৫ করা হয়। তাদের জন্য আলাদা সার্কুলার দিয়ে বিশেষ পরীক্ষা নেওয়া হতো। কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা চালু হলে গুচ্ছ পরীক্ষা দেওয়ার যোগ্যতা না থাকা শিক্ষার্থীদের শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্বের নিয়ম অনুসরণ করে এসএসসি ও এইচএসসি মিলিয়ে ন্যূনতম জিপিএ ৭.০০ আবেদনের যোগ্যতা ধরা হতো। তাদের শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সরকারি ভেটেরিনারি কলেজের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়া হতো। তবে এ বছর সিলেকশন পদ্ধতি না থাকায় আলাদাভাবে পরীক্ষা হবে না। কোটায় আবেদনকারীদের কেন্দ্রীয়ভাবে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। ৬২০টি মেধাভিত্তিক আসনের সঙ্গে ২০টি আসন রয়েছে পোষ্য কোটায়। তবে সর্বশেষ ১০ বছরে কখনোই ৫০ শতাংশের বেশি ভর্তি হতে পারেননি, বেশির ভাগ বছরই  চার-পাঁচ জন করে ভর্তি হয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক সিনিয়র শিক্ষক পোষ্য কোটার সমালোচনা করে এই প্রথা বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘সংবিধানের ২৮ ধারার ৪ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী  অনগ্রসরদের অগ্রগতির জন্য বিশেষ বিধান প্রণয়নের সুযোগ রয়েছে। প্রতিবন্ধী, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, দলিত-হরিজনদের মতো পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যৌক্তিকভাবেই কোটা সুবিধা পেতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সন্তানরা কোনোভাবেই সমাজের অনগ্রসর অংশ নন। তাদের জন্য পোষ্য কোটা রাখা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক। ভর্তি কার্যক্রমে বৈষম্য দূর করতে পোষ্য কোটা বাতিল করা প্রয়োজন।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন ও পাবলিক হেলথ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কে বি এম সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘ভর্তি পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে ২৫ নম্বরপ্রাপ্ত এক জন শিক্ষার্থী কোনোভাবেই ৮০-৯০ নম্বরপ্রাপ্ত অপর এক জন শিক্ষার্থীর সমকক্ষ হতে পারে না । আমরা যে সময়ে শিক্ষার মান এবং অধিকতর যোগ্য স্নাতক তৈরি নিয়ে কথা বলছি সে সময়ে এটা অবশ্যই শ্রেণিকক্ষে বৈষম্যের কারণ হবে। কেননা ২৫ নম্বরপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীর মেধা ও যোগ্যতা কোনোক্রমেই ৮০-৯০ পাওয়া শিক্ষার্থীর যোগ্যতার সমান হবে না। সময় এসেছে পোষ্য কোটার বিষয়ে পুনর্বিবেচনা করার।’

এ বিষয়ে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শহীদুর রশীদ ভুঁইয়া বলেন, ‘পোষ্য কোটা আমি দায়িত্বে আসার আগেই চালু হয়েছে। পোষ্য কোটার সংখ্যা বেশি হলেও শিক্ষার্থী দুই-চার জনের বেশি ভর্তি হয় না। আমরা যে প্রশ্ন করি তাতে বেশির ভাগই ন্যূনতম মার্কস তুলতে পারে না। আমরা চেষ্টা করছি, সামনে পোষ্য কোটা তুলে দেব।’

ছয় বিশ্ববিদ্যালয়েই পোষ্য কোটা নেই : কৃষি গুচ্ছের অন্তর্ভুক্ত আটটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আসন (১১১৬টি) বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পোষ্য কোটা নেই। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পোষ্য কোটা নেই। তবে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এক শতাংশের সামান্য বেশি পোষ্য কোটা রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com